ঢাকা     শনিবার   ২০ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

চেক জালিয়াতি মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান গ্ৰেপ্তার

নওগাঁ সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:২৪, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩  
চেক জালিয়াতি মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান গ্ৰেপ্তার

চেক জালিয়াতি মামলায় নওগাঁর বদলগাছি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সামসুল আলম খানকে গ্ৰেপ্তার করেছে পুলিশ। 

সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রাতে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বদলগাছি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আতিয়ার রহমান। এর আগে সোমবার সকালে নওগাঁ শহরের কাঁচা বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার বাদী ও বিবাদীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের দিকে সামসুল আলম খান উপজেলার আধাইপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান থাকাকালীন হতদরিদ্র, দরিদ্র ও মধ্যবিত্তদের সহায়ক চাঁদার বিনিময়ে নলকূপ ও স্যানিটেশন (হাইসাওয়া-এসডিসি) প্রকল্পটি তার মানবকল্যাণ সংস্থা নামে এনজিওর মাধ্যমে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জেলার ৯৯টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন। এবং নিজ নামের চেক হস্থান্তর করেন। পরবর্তীতে মানবকল্যাণ সংস্থার বিরুদ্ধে প্রকল্পের নামে অবৈধভাবে সাধারণ মানুষের কাছে থেকে চাঁদা উত্তোলনের অভিযোগ এনে মামলা করেন নওগাঁ-৩ আসনের (বদলগাছী - মহাদেবপুর) সাবেক সংসদ সদস্য ড. আকরাম হোসেন চৌধুরীর স্ত্রী মায়া চৌধুরী। এর প্রেক্ষিতে প্রকল্পটি বাতিল হলে ৮ লাখ টাকা পাওনা দাবি করে বলিহার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার মুহাম্মদ হাতেম আলী ২০১৬ সালে আদালতে মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুল আলম খানের ছোট ভাই বিদ্যুৎ হোসেন বলেন, এ মামলায় নিম্ন আদালত আমার ভাইয়ের পক্ষে রায় দিয়েছিলো। পরবর্তীতে বিবাদী উচ্চ আদালতে আপিল করলে আমার ভাইয়ের কাছে নোটিশ আসে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য। পেশাগত কাজে ব্যস্ততার কারণে সঠিক সময়ে হাজিরা দিতে না পারায় আদালত একপেশে রায় দিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে। আশা করছি আইনিভাবে আমরাই জয়ী হবো।

মামলার বাদী নওগাঁ সদর উপজেলার বলিহার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার মুহাম্মদ হাতেম আলী বলেন, ২০১৩ সালে সামসুল আলম এর সাথে আমার ব্যবসায়ীক লেনদেন ছিল। পরে আমার পাওনা টাকা পরিশোধ না করার কারণে আদালতে মামলা দায়ের করি। সেই মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করলে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছে বলে জেনেছি।

এ বিষয়ে বদলগাছী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিয়ার রহমান বলেন, চলতি মাসের ১৬ তারিখে আদালত থেকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুল আলম খানের বিরুদ্ধে থানায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানার নোটিশ আসে। এরপর থেকেই তিনি পলাতক ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার সকালে নওগাঁ শহরের কাঁচা বাজার এলাকা থেকে সদর মডেল থানার সহযোগিতায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

সাজু/টিপু

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়