ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৫ ১৪৩১

সাতক্ষীরায় জামানত হারিয়েছেন ২৩ প্রার্থী

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:২১, ৮ জানুয়ারি ২০২৪  
সাতক্ষীরায় জামানত হারিয়েছেন ২৩ প্রার্থী

সদ্য সমাপ্ত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাতক্ষীরার চারটি সংসদীয় আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী ৩০ প্রার্থীর মধ্যে ২৩ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে জাতীয় পার্টির তিন প্রার্থীসহ দুইজন সাবেক সংসদ সদস্যও রয়েছেন। যদিও তারা দুই জন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের কয়েক দিন পর নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন।

রোববার (৭ জানুয়ারি) কোনো অপীতিকর ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে জেলার চারটি আসনে নির্বাচন হয়। বিএনপি-জামায়াতসহ সমমনা জোটের ভোট বর্জনের মুখে সাতক্ষীরায় ১০টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের ২২ জন এবং ৮ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

প্রার্থীদের মধ্যে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এবং অপর একজনকে দলের পক্ষ থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেয়া হয়। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী ৩০ প্রার্থীর মধ্যে ২৩ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

কোনো প্রার্থীকে জামানত বাঁচাতে হলে ওই আসনে মোট প্রাপ্ত বৈধ ভোটের ৮ ভাগের ১ ভাগের থেকে বেশি পেতে হয়। এই ২৩ প্রার্থী তা পাননি।  

জামানত বাজেয়াপ্তরা হলেন, সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি মনোনীত হাতুড়ি প্রতীকের প্রার্থী মুস্তফা লুৎফুল্লাহর প্রাপ্ত ভোট ৪৩১টি, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ডাব প্রতীকের প্রার্থী ইয়ারুল ইসলামের প্রাপ্ত ভোট ৮৩৫, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোটের ছড়ি প্রতীকের প্রার্থী শেখ মো. আলমগীরের প্রাপ্ত ভোট ২৩৫, তুণমূল বিএনপির সোনালী আশ প্রতীকের প্রার্থী সুমি ইসলামের প্রাপ্ত ভোট ৪৪২, স্বতন্ত্র প্রার্থী দোলনা প্রতীকের এসএম মুজিবুর রহমানের (সরদার মুজিব) প্রাপ্ত ভোট ১৫ হাজার ৭০৮, স্বতন্ত্র প্রার্থী ঈগল প্রতীকের মো. নুরুল ইসলাম ২০৮, স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের শেখ নুরুল ইসলাম ৫ হাজার ৯৪৮ এবং স্বতন্ত্র কাঁচি প্রতীকের প্রার্থী শেখ মুজিবুর রহমান ৩৫৩ ভোট পেয়েছেন। 

এই আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ফিরোজ আহমেদ স্বপন ১ লাখ ৪৪ হাজার ৯৯ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন। তার নিকটতম প্রার্থী জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গলের প্রার্থী সৈয়দ দিদার বখত পেয়েছেন ২৬ হাজার ৮২১ ভোট।
 
তবে এই আসনে প্রার্থীদের মধ্যে স্বতন্ত্র কাঁচি প্রতীকের শেখ মুজিবুর রহমান পত্রিকায় প্র্রেসবিজ্ঞপ্তি দিয়ে এবং মুস্তফা লুৎফুল্লাহর পক্ষে জেলা ওয়ার্কার্স পার্টি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন।

সাতক্ষীরা-২ আসনে ন্যাশনাল পিপিলস পার্টির (এনপিপি) আম প্রতীকের প্রার্থী মো. আনোয়ার হোসেন পেয়েছেন ৯৩৮ ভোট, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলন (বিএনএম) এর নোঙ্গর প্রতীকের প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান বুলু ৭২৫ ভোট, তৃণমূল বিএনপির সোনালী আঁশ প্রতীকের প্রার্থী মোস্তফা ফারহান মেহেদী ৩০৩ ভোট, স্বতন্ত্র কাঁচি প্রতীকের এনছান বাহার বুলবুল ৪৮০ ভোট এবং স্বতন্ত্র ট্রাক প্রতীকের প্রার্থী মো. আফসার আলী পেয়েছেন ৭৭৯৪ ভোট। তবে প্রার্থীদের মধ্যে কাঁচি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী এনছান বাহার বুলবুল লাঙ্গলের পক্ষে ভোট চেয়ে প্রচার অভিযানে অংশ নেন।

এই আসনে জাতীয় পাটি মনোনীত লাঙ্গলের প্রার্থী মো. আশরাফুজ্জামান ৮৮ হাজার ৩৫৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ঈগল প্রতীকের মীর মোস্তাক আহমেদ রবি পেয়েছেন ২৭ হাজার ৪৪৭ ভোট।

সাতক্ষীরা-৩ (আশাশুনি-দেবহাটা ও কালিগঞ্জের আংশিক) আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গলের প্রার্থী মো. আলিফ হোসেনের প্রাপ্ত ভোট ১২ হাজার ৪৭৩, ন্যাশনাল পিপিলস পার্টি (এনপিপি) আম প্রতীকের প্রার্থী মো. আব্দুল হামিদ ৪ হাজার ১৮৩ ভোট, জাকের পার্টির গোলাপ ফুল প্রতীকের প্রার্থী মো. মঞ্জুর হোসেন ১ হাজার ৮৫৫ ভোট, তৃণমূল বিএনপির সোনালী আঁশ প্রতীকের রুবেল হোসেন ৮৪৭ ভোট এবং বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল (এমএল) এর চাকা প্রতীকের প্রার্থী শেখ তরিকুল ইসলাম পেয়েছেন ৭৭৮ ভোট।

এই আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আ ফ ম রুহুল হক ১ লাখ ৭৩ হাজার ৮৭৩ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন।
সাতক্ষীরা-৪ (শ্যামনগর-কালিগঞ্জের আংশিক) নির্বাচনি এলাকায় তৃণমূল বিএনপির সোনালী আশ প্রতীকের আসলাম আল মেহেদীর প্রাপ্ত ভোট ৫০৯, জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মো. মাহবুবর রহমান ৩ হাজার ৩৩৯ ভোট, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ডাব প্রতীকের মো. শফিকুল ইসলামের প্রাপ্ত ভোট ১ হাজার ৩২, ন্যাশনাল পিপিলস পার্টির (এনপিপি) আম প্রতীকের প্রার্থী শেখ ইকরামুল ৪৯৩ এবং স্বতন্ত্র কাঁচি প্রতীকের মো. মিজানুর রহমান পেয়েছেন ৫৮২ ভোট।

এই আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের এসএম আতাউল হক ১ লাখ ৩৬ হাজার ৩৯৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলন (বিএনএম) এর নোঙ্গর প্রতীকের প্রার্থী এইচএম গোলাম রেজা পেয়েছেন ৩৮ হাজার ৯৪৬ ভোট।

সাতক্ষীরা জেলায় মোট ভোটার ১৭ লাখ ৪৬ হাজার ২২৪ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ৮ লাখ ৬৯ হাজার ২২৮ জন ও পুরুষ ভোটার ৮ লাখ ৭৬ হাজার ৯৮৪ জন এবং ১২ জন হিজরা ভোটার রয়েছেন। 
 

শাহীন/বকুল 

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়