ঢাকা     শনিবার   ২০ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৭ ১৪৩১

বেইলি রোডে আগুন: বেতন নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না সাগরের

শাহীন রহমান, পাবনা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৫৬, ১ মার্চ ২০২৪   আপডেট: ১৯:২৩, ১ মার্চ ২০২৪
বেইলি রোডে আগুন: বেতন নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না সাগরের

দিনমজুর বাবার অভাবী সংসারের হাল ধরতে ঢাকায় নিরাপত্তা প্রহরীর চাকরি নিয়েছিলেন সাগর হোসেন (২০)। বেতন পাওয়ার পর বাড়িতে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই আগুন কেড়ে নিলো সব।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মৃত্যুর মিছিলে যোগ হয়েছে তার নামও।

সাগর পাবনার ফরিদপুর উপজেলার হাদল ইউনিয়নের ধানুয়াঘাটা পূর্বপাড়া গ্রামের হাসান আলী ও সাবিনা খাতুন দম্পতির ছেলে। এ বছর এইচএসসি পাশ করেছিলেন তিনি। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে সাগর ছিলেন বড়।

ধানুয়াঘাটা গ্রামের বাসিন্দা ও ঢাকায় কর্মরত মনিরুল ইসলাম মনির বলেন, গারদা শিলড সিকিউরিটি কোম্পানির মাধ্যমে নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে গত মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ওই ভবনের একটি শোরুমে চাকরি নেন সাগর। সেখানে কর্মরত অবস্থায় আগুনে আটকা পড়ে মারা যায় সে।

শুক্রবার (১ মার্চ) সরেজমিনে সাগরের গ্রামের বাড়িতে গিয়ে আত্মীয়স্বজন ও এলাকাবাসীর ভিড় দেখা যায়। শোকে পাথর হয়ে গেছেন তার বাবা-মা। মাঝে মধ্যে ছেলের জন্য আর্তনাদ করছেন তারা।

সাগরের বাবা হাসান আলী বলেন, দিনমজুরি করে কোনরকম সংসার চালাই। ছেলেকে লেখাপড়া করানো কঠিন হয়ে পড়েছিল। পরে বাবা-ছেলে আলোচনা করে কাজের সন্ধানে তাকে ঢাকায় যেতে বলি। চার মাস আগে সে ঢাকায় গিয়ে নিরাপত্তা প্রহরী হিসেব চাকরি নেয়। মাঝেমধ্যে কিছু টাকা পাঠাত। সেটা দিয়েই সংসার চলছিল। গতকাল রাতে জলসা শুনে বাড়ি ফিরে শুনি, ছেলে আর নেই।

সাগরের মা সাবিনা খাতুন বলেন, দুদিন আগে সাগরের সঙ্গে মোবাইলে কথা হয়েছে। বেতন পেলে বাড়িতে আসবে বলেছিল। কিন্তু তার আগেই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেল।

হাদল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম হোসেন বলেন, সকালে ফেসবুকের মাধ্যমে জেনেছি, বেইলি রোডের আগুনের ঘটনায় সাগর মারা গেছে। তার পরিবার খুবই অসহায়। উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে সাগরের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করব।

কেআই

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়