ঢাকা     শুক্রবার   ১২ এপ্রিল ২০২৪ ||  চৈত্র ৩০ ১৪৩০

ভোলার মনপুরায় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাদের উপর জেলেদের হামলা, আহত ৭

ভোলা সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:৪৯, ২ এপ্রিল ২০২৪  
ভোলার মনপুরায় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাদের উপর জেলেদের হামলা, আহত ৭

মনপুরায় নিষিদ্ধ চাই জালের বিরুদ্ধে অভিযানের সময় হামলায় আহত উপজেলা মেরিন অফিসার মো. মাহমুদুল হাসান।

ভোলার মনপুরায় মেঘনা নদীতে অভিযানের সময় জেলেদের সাথে উপজেলা মৎস্য অফিসের কর্মকর্তাদের সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় ৫ জেলে ও উপজেলা মৎস্য অফিসের ২ জনসহ মোট ৭ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) সকালে ওই উপজেলার ১নং মনপুরা ইউনিয়নের তুলাতুলী মাছ ঘাট সংলগ্ন মেঘনা নদীতে ও ঘাট সংলগ্ন এলাকায় দুই দফা সংঘর্ষ হয়। আহতদের মধ্যে মেরিন অফিসার মো. মাহমুদুল হাসানকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত জেলেরা জানান, আজ সকালে উপজেলা মৎস্য অফিসের লোকজন মেঘনায় অভিযানে নামে। এসময় তারা জেলেদের কাছ থেকে টাকা দাবি করেন। জেলেরা টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে মৎস্য অফিসের লোকজন নদীতে জেলেদের মারধর শুরু করেন। পরে জেলেরা সংঘবদ্ধ হয়ে অভিযানের দায়িত্বে থাকা উপজেলা মৎস্য অফিসের কর্মকর্তাদেরকে নদীতে ধাওয়া করে। 
পরে আবার তুলাতুলী মাছ ঘাটে জেলেদের সঙ্গে মৎস্য কর্মকর্তাদের হাতাহাতি শুরু হয়। এসময় ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। এ সংঘর্ষে আহত ৫ জেলে হলেন- করিম মাঝি, জসিম মাঝি, বাবুল মাঝি, ইউনুছ মাঝি ও জেলের স্ত্রী মনোয়ারা খাতুন। আহতরা সকলে মনপুরা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা।

এ বিষয়ে চরফ্যাশন উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার এর সাথে কথা হয়। তিনি বর্তমানে মনপুরা উপজেলা মৎস্য অফিসের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন। এসময় তিনি জেলেদের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মেঘনায় নিষিদ্ধ চাই জাল দিয়ে প্রভাবশালী মৎস্য ব্যবসায়ীরা জেলেদের দিয়ে পাঙ্গাস মাছের পোনাসহ ছোট ছোট মাছের পোনা নিধন করছে। নিষিদ্ধ জালের বিরুদ্ধে মেঘনায় অভিযানে গেলে দায়িত্বরত অফিসারদের জেলেরা হামলা করে। এ ঘটনায় তাদের কয়েকজন কর্মকর্তা ও কর্মচারী আহত হয়েছে।

এ হামলার ঘটনায় ভোলা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের মুঠোফোনে জানান, মেঘনা নদীতে নিষিদ্ধ চাই জাল নির্মূলে মনপুরা ও তজুমদ্দিন উপজেলার মৎস্য অফিসের দু’টি টিম পুলিশসহ অভিযানে যায়। এসময় জেলেরা অতর্কিতভাবে তাদের উপর হামলা চালায়। উপজেলা মেরিন অফিসার মাহমুদুল হাসান ও ক্ষেত্র সহকারী মনিরুল ইসলাম আহত হন। এ ব্যাপারে তদন্ত হবে এবং মামলা হবে। এখন আহতদের চিকিৎসা চলছে।

মনপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহিরুল ইসলাম বলেন, মেঘনায় মৎস্য বিভাগের অভিযানে জেলেদের সঙ্গে সংর্ঘষের ঘটনায় এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এই ঘটনায় কোন পক্ষই এখন পর্যন্ত থানায় মামলা করেনি। অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মলয়/ফয়সাল

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়