ঢাকা     রোববার   ১৪ জুলাই ২০২৪ ||  আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

পর্যটকদের পদচারণায় মুখর রাঙামাটি

রাঙামাটি প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:১১, ১৯ জুন ২০২৪   আপডেট: ২২:৩৮, ১৯ জুন ২০২৪
পর্যটকদের পদচারণায় মুখর রাঙামাটি

প্রকৃতির বিচিত্র রূপে ভরপুর অনিন্দ্য শহর রাঙামাটিতে পর্যটকদের ঢল নেমেছে। ঈদুল আযহার সরকারি ছুটি শেষ হলেও ঈদের আমেজ সহসা কাটছে না। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকরা তাদের পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে প্রশান্তির ছোঁয়া নিতে ভিড় করছেন হ্রদ-পাহাড়ের শহর রাঙামাটিতে।

পবিত্র ঈদের ছুটির অবসরে নগর জীবনের কোলাহল থেকে খানিকটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে ইট পাথরের শহর ছেড়ে হ্রদ পাহাড়ের শহরে ভ্রমণপিপাসু পর্যটকরা। দেশের বিভিন্ন্ স্থান থেকে আসা পর্যটক অবসরে ছুটে যাচ্ছেন রাঙামাটিতে। পর্যটকদের জন্য মনোমুগ্ধকর কাপ্তাই হ্রদের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ছাড়াও পর্যটন কমপ্লেক্স এলাকায় হ্রদের ধারে দুই পাহাড়ের মাঝখানে স্থাপিত আর্কষণীয় ঝুলন্ত সেতু, শুভলং ঝর্ণা ,পুলিশ পলওয়েল পার্ক, ডিসি বাংলো, বার্গী লেক ভ্যালি, রাজবন বিহার, কাপ্তাই নিসর্গ পড হাউজ, বাঘাইছড়ির সাজেক কিংবা আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কের অপরূপ সৌন্দর্য অবলোকন করতে আসছেন পর্যটকরা।

গত ৩ দিনে রাঙামাটিতে প্রায় ১০ হাজার পর্যটকের সমাগম ঘটেছে। পর্যটকরা যেমন কাপ্তাই হ্রদ, ঝুলন্ত সেতু, পলওয়েল পার্ক, সাজেক, শুভলং ঝর্ণায় স্বাচ্ছন্দে ঘুরতে পারছেন তেমনি পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন। পর্যটকরা বলছেন, প্রকৃতির এমন রূপ দেখে তাদের তৃষ্ণা মিটে না। তাইতো ছুটি পেলে বারবার ছুটে আসেন মায়াবী রূপের এ শহরে।

ঢাকার গাজীপুর থেকে ঝুলন্ত সেতুতে বেড়াতে আসা পর্যটক রবিউল বলেন, রাঙামাটির প্রাকৃতিক দৃশ্যগুলো বেশ মনোরম। কাপ্তাই হ্রদ, পলওয়েল পার্ক, শুভলং ঝর্ণার প্রাকৃতিক দৃশ্যগুলো খুবই ভালো লেগেছে।

পর্যটন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমানে ৫০-৭০ ভাগ হোটেল-মোটেল বুকিং রয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে এ সংখ্যা আরও বাড়বে, ব্যবসাও ভাল হবে।

চট্টগ্রাম থেকে পরিবার নিয়ে হ্রদ পাহাড়ের শহর বেড়াতে আসা পর্যটক দ্বীপ চৌধুরী বলেন, আমার দৃষ্টিতে দেশের অন্যান্য পর্যটন এলাকার চেয়ে রাঙামাটি অনেক সুন্দর। এখানকার কাপ্তাই হ্রদ, শুভলং ঝর্ণা, আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কের মনোরম দৃশ্যগুলো আমাকে বেশ বিমোহিত করে।

পর্যটক রাফসান আহমেদ বলেন, রাঙামাটির পর্যটনকে আরও একটু ঢেলে সাজানোর প্রয়োজন আছে। এখানে ঝুলন্ত সেতু ছাড়া তেমন কিছু দেখার নেই। তবে, রাঙামাটির আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কে নতুন সংযোজন লাভ পয়েন্ট আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে। এই সড়কের পাশে কাপ্তাই হ্রদের মনোরম দৃশ্য আমাকে মুগ্ধ করেছে।

সাজেকের কুঁড়েঘর রিসোর্টের ম্যানেজার মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, আজকে সাজেকে প্রচুর পর্যটকের সমাগম হয়েছে। তিনি বলেন, গত ২ দিনের পর্যটকের সংখ্যা ছাপিয়ে আজ প্রায় ৫ হাজার পর্যটক সাজেক ভ্রমণ করছেন। আজকে সাজেকের রিসোর্টগুলোতে শতভাগ বুকিং আছে।

কাপ্তাই নিসর্গ পড হাউসের স্বত্বাধিকারী মো. নাসির উদ্দিন বলেন, ঈদের ছুটিকে কেন্দ্র করে পড হাউসে ঈদের ২ দিন আগে থেকে আগামী ২২ জুন শনিবার পর্যন্ত সবক’টি রুম বুকিং রয়েছে। কাপ্তাইয়ে প্রচুর পর্যটক আসছেন এই ঈদের ছুটিতে।

রাঙামাটি পর্যটন করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন বলেন, গত তিনদিন রাঙামাটিতে প্রচুর পর্যটক এসেছে। আমাদের মোটেলে ৭০ ভাগ বুকিং আছে। আশা করছি আগামী দিনগুলোতেও রাঙামাটিতে পর্যটকদের ভালো সমাগম হবে।

রাঙামাটির এ নয়নাভিরাম স্থানগুলো পর্যটকদের সম্মোহিতের মতো কাছে টানে। শিহরিত করে তোলে স্বচ্ছ কাপ্তাই হ্রদের জলে নৌ-বিহারের মতো রোমাঞ্চকর নৌ-ভ্রমণ।

বিজয়/ফয়সাল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়