ঢাকা     শনিবার   ১৩ এপ্রিল ২০২৪ ||  চৈত্র ৩০ ১৪৩০

৫০ লাখ পরিবারকে দেড় লাখ টন চাল দেওয়া হবে: খাদ্যমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:২৩, ৪ মার্চ ২০২৪   আপডেট: ১৬:৩৭, ৪ মার্চ ২০২৪
৫০ লাখ পরিবারকে দেড় লাখ টন চাল দেওয়া হবে: খাদ্যমন্ত্রী

ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার

আগামী ১০ মার্চের মধ্যে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ৫০ লাখ পরিবারের মধ্যে দেড় লাখ টন চাল বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। 

সোমবার (৪ মার্চ) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের তৃতীয় অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি এগিয়ে নেওয়ার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি ১ মার্চ থেকেই লিফটিং করতে বলেছি। ১ থেকে ২০ মার্চ পর্যন্ত চাল বিতরণের সিদ্ধান্ত ছিল। সেটা এখন ১০ মার্চের মধ্যে শেষ করা হবে।

এতে বাজারে স্বস্তি ফিরবে কি না, জানতে চাইলে সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, আমি মনে করি, দেড় লাখ টন চাল যদি বাজারে ১৫ টাকা কেজি দরে যায়, তাহলে ৫০ লাখ পরিবারকে তো আর বাজার থেকে চাল কিনতে হবে না। এতে স্বস্তি আসবে বলে আমি মনে করি।

২০ ফেব্রুয়ারি থেকে চালের বস্তায় দাম ও জাত লেখার নির্দেশনা কার্যকর হয়েছে কি না, জানতে চাইলে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা ২০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে পরিপত্র জারি করব বলে জানিয়েছিলাম আর কার্যকর করব ১৪ এপ্রিল বা পহেলা বৈশাখ থেকে। কারণ, যেসব চাল এখন বাজারে বস্তাবন্দি আছে এবং সিল মারা আছে, সেগুলো এখন আর কেউ প্যাকেট চেঞ্জ করবে না। নতুন বছরে বোরো চাল উঠবে, তখন থেকে এটা কার্যকর হবে৷

এই প্রক্রিয়ার কোনো হালনাগাদ তথ্য জানাতে পেরেছেন কি ডিসিরা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা ডিসি, মিল মালিকদের সঙ্গে মিটিং শুরু করেছি। ধান ও চালের জাতের যে নমুনা, সেটা তাদেরও সরবরাহ করা হচ্ছে। ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট সে জাতগুলো দিয়েছে। আউশ, আমন ও বোরোতে কোন কোন জাত, কোনটা মোটা, মাঝারি ও সরু, সেটা জানিয়েছে। সেটা নিয়ে তাদের সঙ্গে কাজ করছি।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, যে মজুদবিরোধী অভিযান ডিসিদের নিয়ে করেছি, সেটাতে আমরা অনেকাংশেই সফল হয়েছি। তাদের কাছে আবেদন জানিয়েছি, নির্দেশনা দিয়েছি, যাতে বস্তার গায়ে জাতের নাম লেখা নিয়ে যে পরিবর্তন এসেছে, সেটা বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগিতা করেন। এছাড়া, ছাঁটাইয়ের মাধ্যমে চালের ধরন চেঞ্জ বন্ধের বিষয়েও নির্দেশনা গেছে। 

এএএম/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়