ঢাকা     বুধবার   ২২ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ৮ ১৪৩১

‘এফডিসিতে আসা বন্ধই করে দিয়েছিলাম’

প্রকাশিত: ১৫:৫৬, ১৯ এপ্রিল ২০২৪  
‘এফডিসিতে আসা বন্ধই করে দিয়েছিলাম’

শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোট দিতে এফডিসিতে আসেন সুচন্দা, ববিতা ও চম্পা

ঢালিউডের ‘তিন কন্যা’ বলা হয় চলচ্চিত্রের বরেণ্য অভিনয়শিল্পী সুচন্দা, ববিতা ও চম্পাকে। গত শতাব্দির ষাট, সত্তর, আশি ও নব্বই—এই চার দশক চলচ্চিত্রপ্রেমীদের মাতিয়ে রেখেছিলেন ওই তিন বোন। তারা দীর্ঘ ক্যারিয়ারে উপহার দিয়েছেন অসংখ্য জনপ্রিয় ও কালজয়ী সিনেমা।

এই তিন বোন একসঙ্গে এসেছেন বিএফডিসিতে শিল্প সমিতির নির্বাচনে ভোট দিতে। দুপুরের বিরতির পর ২টা ৪৫ মিনিটে বিএফডিসিতে আসেন তারা। শিল্পীরা তাদের দেখে আনন্দিত হয়ে সোগ্লান দিতে থাকেন। 

এ সময় ববিতা বলেন, এফডিসিতে আসা বন্ধই করে দিয়েছিলাম। অনেকদিন পর আসলাম। আজকে সবার সঙ্গে দেখা হচ্ছে, সে কারণেই আমার আসা। যারা সত্যিকারের অর্থে কাজ করবে, তাদেরকেই ভোট দেবো। 

সুচন্দা বলেন, আজকে অনেক আশা নিয়ে ভোট দিতে এসেছি। প্রত্যেকবারই আসি। এখন নতুন-পুরাতন সবাই মিলে নির্বাচনে নেমেছে, এজন্যই আমার আসা। চলচ্চিত্রের মধ্যে আমাদের সমিতি গুরুত্বপূর্ণ। শিল্পীদের ছাড়া আমাদের চলচ্চিত্র হয় না। তাই, শিল্পীদের বিকল্প নেই। বক্তব্যে নয়, যারা সততার সঙ্গে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করবে, তাদেরকেই আমরা ভোট দেবো, যাতে আমাদের সংগঠন আরও সুন্দর হয়। 

চম্পা বলেন, নতুন-পুরাতন যারাই নির্বাচন করছে প্রত্যেকে আমার প্রিয়। শিল্পী শব্দটা ভীষণভাবে আমাদের পরিবারের মনে হয়। তাই, আমি মনে করি, আমরা সবাই মিলে এক। সবাই মিলে যদি এগিয়ে যেতে পারতাম, তাহলে আমাদের শিল্পটাকে অনেক এগিয়ে নিতে পারতাম।

এবারের নির্বাচনের মেয়াদ ২০২৪ থেকে ২০২৬। ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির এ নির্বাচনে ছয়জন স্বতন্ত্রসহ দুটি প্যানেল থেকে ৪৮ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। একটি মিশা-ডিপজল পরিষদ, অন্যটি কলি-নিপুণ পরিষদ। এর মধ্যে সভাপতি পদে লড়ছেন একসময়ের জনপ্রিয় নায়ক মাহমুদ কলি ও দাপুটে খল-অভিনেতা মিশা সওদাগর। সাধারণ সম্পাদক পদে গতবারের মতো এবারও প্রার্থী হয়েছেন চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার। তার বিপরীতে দাঁড়িয়েছেন অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

রাহাত/রফিক

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়