ঢাকা     শনিবার   ০১ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৬ ১৪২৯ ||  ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

ফ্রিল্যান্সিং করে উপার্জন, সুখের সংসার শিউলি মাসুদের  

আফ্রিদা জাহিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:১১, ৮ জুলাই ২০২২  
ফ্রিল্যান্সিং করে উপার্জন, সুখের সংসার শিউলি মাসুদের  

ময়মনসিংহ জেলার মেয়ে শিউলি আক্তার ও দিনাজপুরের ছেলে আল মাসুদ। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময় দিনাজপুর চলে আসেন শিউলি। বর্তমানে তিনি দিনাজপুর সরকারি কলেজের গণিত বিভাগের অনার্স ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। ২০১৭ সালে বিয়ে করেন আল মাসুদকে। প্রেমের বিয়ে; স্বামীর বাড়ির লোকেরা মেনে নেয়নি এই সম্পর্ক। বাবা-মায়ের অমতেই বিয়ে করেন মাসুদ। এই দম্পতির ২০ মাস বয়সী একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। স্বামী কন্যা পরিবার নিয়ে  সুখেই আছেন শিউলি। সেই সুখের নেপথ্যের গল্পটি শোনালেন শিউলি আক্তার। 

মাসুদের ইচ্ছা ছিল আইটি উদ্যোক্তা হবেন। কিন্তু হাবিপ্রবি থেকে এগ্রিকালচার বিভাগে পড়াশোনা করে  চাকরিতে যুক্ত হন। ২ বছর চাকরি করতে না করতেই আইটি উদ্যোক্তা হওয়ার ইচ্ছা জেঁকে বসে তার মধ্যে। চাকরি ছেড়ে ২০১৪ সাল থেকে পুরোদমে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করেন তিনি। কিছুটা সময় লাগলেও ধীরে ধীরে আয় হতে থাকে। ২০১৬ সালে দিনাজপুরে আইটি ভ্যানিলা নামে ইনকিউবিশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।

সংসারে অর্থনৈতিক সাপোর্ট দিতে শিউলিও ২০১৯ সালে শুরু করেন ফ্রিল্যান্সিং। যুক্ত হন আইটি ভ্যানিলায়। এটি এখন দু'জনের প্রতিষ্ঠান। তাদের প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিবছর অনেকেই প্রশিক্ষণ নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করছেন। ২০২০ সালের শুরুর দিকে বাংলাদেশ সরকারের লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রোজেক্ট-এর আওতায় স্কিল ডেভেলপমেন্ট ট্রেনিং নেন শিউলি। সেখানে ভালো কিছু গ্রাহকও মিলে যায়। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

অন্যান্য পেশা ছেড়ে ফ্রিল্যান্সিং এ আগ্রহী হলেন কেন? এ প্রশ্নের উত্তরে শিউলি আক্তার বলেন, ‘মেয়েদের জন্য বাড়ির বাইরে গিয়ে চাকরি করা খুব সহজ কাজ নয়। সবার দ্বারা সেটা সম্ভব হয়ে ওঠে না। পারিবারিক বাধা থাকে, সংসার সামলানো, বাচ্চা লালন-পালন; হেল্পিং হ্যান্ড না থাকায় সব মিলিয়ে এমন একটা পেশা মেয়েদের জন্য মোটেও খারাপ না। ভালোভাবে দক্ষ হতে পারলে এখানে প্রচুর কাজের সুযোগ এবং অনেক হাই রেট এর কাজ আছে যেগুলোতে অনেক অল্প সময় দিয়েও প্রচুর টাকা আয় করা যায়।’

বাংলাদেশে সম্ভবনাময় সেক্টর এখন ফ্রিল্যান্সিং। ফলে অন্য পেশা নিয়ে আপাতত ভাবছেন না শিউলি আক্তার। স্বামী, সন্তান সংসার সামলিয়ে ঘরে বসে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছেন তিনি। সংসারে স্বচ্ছলতাও এসেছে। 

শতাধিক দক্ষ ফ্রিল্যান্সার গঠন করেছেন মাসুদ ও শিউলির প্রতিষ্ঠান। এখন পর্যন্ত ২০ জনের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন তারা। স্বপ্ন দেখছেন আইটি ভ্যানিলাকে দেশের শীর্ষস্থানীয় আইটি ফার্মে রূপান্তরিত করার এবং সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন এই দম্পতি। 

/তারা/ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়