ঢাকা     শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৪ ১৪২৭ ||  ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

যেসব কারণে ত্বকে সূর্যরশ্মির ক্ষতির ঝুঁকি বাড়ে

|| রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৬:০৮, ৩ জুলাই ২০২০  

ত্বকে সূর্যরশ্মির ক্ষতিকর প্রভাব এড়াতে সানস্ক্রিন লাগানোর কোনো বিকল্প নেই। তবে অনেক সময় সানস্ক্রিন না লাগালেও অন্যান্য অনেক কারণ আছে যাতে করে আমাদের ত্বক সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাবের শিকার হয়। জেনে নিন তেমন কিছু ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়।

কিছু প্রসাধনীর ব্যবহার: বার্ধক্য এবং ব্রণরোধকারী বেশকিছু প্রসাধনী আছে যেগুলো ব্যবহারের ফলে ত্বকের উপরিভাগের স্তর উঠে যায়। তাছাড়া ত্বকে পর্যাপ্ত পরিমাণ মেলানিনের পরিমাণ এসব প্রসাধনী ব্যবহারের ফলে কমে যায়। মেলানিন হচ্ছে ত্বকে উপস্থিত এমন এক প্রাকৃতিক উপাদান যা সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে ত্বককে রক্ষা করে। অলোক ভিজ নামে একজন গবেষক এ বিষয়ে বলেন, ‘যেকোনো প্রসাধনী কেনার আগে মোড়কের উপরে লেখা বিভিন্ন রাসায়নিক উপাদান দেখে কিনুন। কোনো প্রসাধনীতে যদি রেটিনল অথবা ভিটামিন এ, গ্লাইকোলিক অথবা স্যালিসাইলিক এসিড, কিংবা হাইড্রোকুইনিন জাতীয় উপাদান থাকে তাহলে তা ব্যবহারে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি ত্বকের আরো বেশি ক্ষতি করে।’ সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বক বাঁচাতে বাইরে যাওয়ের যাওয়ার সময় সানস্ক্রিন এবং উপযোগী কাপড় পরে বের হন।

পারফিউম: আপনি জেনে অবাক হবেন যে কিছু সুগন্ধি আছে যা ব্যবহারের ফলে আপনার ত্বক স্পর্শকাতর হয়ে যায় এবং তখন সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি ত্বকে আরো বেশি প্রভাব ফেলে। সাধারণত পারফিউমে সুগন্ধ তৈরি করার জন্য ল্যাভেন্ডার, সিডার, রোজমেরি, বারগামট এবং চন্দনকাঠ ব্যবহৃত হয়। ফলে এমন কিছু রাসায়নিক উপাদানের উদ্ভব ঘটে যা ত্বককে স্পর্শকাতর করে তোলে। এ বিষয়ে সোনিয়া বাতরা নামে একজন গবেষক বলেন, ‘এ সকল পারফিউম ব্যবহারের পর সূর্যের আলোতে বের হলে ত্বকে প্রদাহ শুরু হয় এবং ত্বকে দাগ পড়ে যায়।’

নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ: ব্রণ প্রতিরোধকারী কিছু ওষুধ খাওয়ার ফলে সূর্যের আলোতে ত্বকের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাছাড়া অবসাদ প্রতিরোধকারী, ব্যাকটেরিয়া-ছত্রাক প্রতিরোধকারী এবং প্রদাহ দূরকারী কিছু ওষুধ খাওয়ার ফলে সূর্যের আলোয় ত্বকের স্পর্শকাতরতা বেড়ে যায়। এজন্য চিকিৎসকের কাছে জিজ্ঞেস করে নিন যদি আপনার ওষুধের সঙ্গে সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে বাঁচতে অতিরিক্ত কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে কিনা।

খাদ্যাভ্যাস: শরীরে নিয়াসিন (ভিটামিন বি৩) এর ঘাটতিতে সূর্যের আলোর প্রতি ত্বক বেশি স্পর্শকাতর হয়ে পড়ে। ডা. অ্যালেক্সিস বলেন, ‘মাংস, মাশরুম এবং শস্যদানা জাতীয় খাবারে প্রচুর পুষ্টি থাকে যা সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। অন্যদিকে লাইম লেবু, পাথুনি শাক বা সেলেরি এবং পার্সলে পাতা জাতীয় কিছু খাবারে থাকা ফটোসেনসিটাইজিং নামক উপাদান রোদে ত্বক পোড়ার মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা: সূর্যের রশ্মির ফলে ত্বকের কেমন ক্ষতি হবে বা কতটুকু ক্ষতি হবে তা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ওপর অনেকটা নির্ভরশীল। আপনার শরীর যদি অতিরিক্ত স্পর্শকাতর হয়ে থাকে তাহলে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির প্রভাবে আপনার ত্বকের ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে। এ বিষয়ে গবেষক অ্যান্ড্রু অ্যালেক্সিস বলেন, ‘কেমোথেরাপি বা এইচআইভি চিকিৎসার ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক কমে যায় এবং সেসময় সূর্যের উত্তাপে শারীরিক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।’

আবহাওয়ার প্রভাব: মেঘাচ্ছন্ন দিনেও সূর্যের রশ্মি আপনার ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। ডা. বাতরা বলেন, ‘মেঘাচ্ছন্ন দিনে সূর্য দেখা যায় না বলে অনেকেই সানস্ক্রিন না লাগিয়ে বাইরে বের হন। কিন্তু সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি মেঘের মধ্য দিয়েও আপনার ত্বকের যথেষ্ট ক্ষতি করতে পারে। প্রায় ৮০ শতাংশ অতিবেগুনি রশ্মি এভাবে মেঘ ভেদ করে ঢুকে ত্বকের ক্ষতি করে থাকে।’ তিনি আরো বলেন, সকাল ১১টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির প্রভাব সবচেয়ে বেশি থাকে এবং এ সময় বাইরে যাওয়া যত এড়ানো যায় তত ভালো। সুতরাং সূর্যের আলোর তীব্রতা না থাকলেও বাইরে গেলে অবশ্যই সানস্ক্রিন লাগিয়ে বের হোন।

সানস্ক্রিন দেরিতে ব্যবহার করা: সানস্ক্রিনের পুরোপুরি উপযোগিতা পেতে সাঁতার কাটা বা শরীরে ঘাম হওয়ার পর আবার সানস্ক্রিন লাগান। অনেকেই একবার সানস্ক্রিন লাগিয়ে সারাদিন আর কোনো খোঁজখবর রাখেন না। এতে করে ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে সুরক্ষা পেতে প্রতি ২-৩ ঘণ্টা অন্তর সানস্ক্রিন লাগানো উচিত। ডা. ভিজ বলেন, ‘এসপিএফ-৩০ বা আরো ভালো গুনাগুণ সমৃদ্ধ সানস্ক্রিন পুরো শরীরে লাগালে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে সুরক্ষা পাওয়া সম্ভব।’

সময়মতো সানস্ক্রিন ব্যবহার না করা: সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে সুরক্ষা পাওয়ার জন্য সময়মতো সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। রোদে বের হওয়ার অন্তত ৩০ মিনিট আগে শরীরের ত্বকে সানস্ক্রিন লাগান। এতে করে আপনার ত্বক সানস্ক্রিনের উপকারী উপাদানগুলো শুষে নেবে এবং আপনি থাকবেন সুরক্ষিত।

সকালে স্ক্রাব ব্যবহার করা: অনেকেই আছেন যারা সকালে ঘুম থেকে উঠে স্ক্রাবিং করে কাজে বেরিয়ে পড়েন। ত্বকে উপস্থিত মৃতকোষগুলো সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে ত্বককে রক্ষা করে যা স্ক্রাবিংয়ের ফলে উঠে যায়। ফলে ত্বক চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। স্ক্রাবিং করলে তা অবশ্যই রাতে করুন এবং সকালে বের হওয়ার সময় অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

পড়ুন: সাবধান! অবহেলায় পুড়ছে ত্বক

 

ঢাকা/ফিরোজ

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়