ঢাকা     সোমবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৩ ১৪২৭ ||  ১০ সফর ১৪৪২

‘জেনারেটর-আইপিএস নির্ভরতা কমাতে পেরেছে সরকার’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:১২, ১৩ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
‘জেনারেটর-আইপিএস নির্ভরতা কমাতে পেরেছে সরকার’

প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ (ফাইল ছবি)

দেশে এখন লোডশেডিং নেই মন্তব্য করে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, এক সময় দেশে যেখানে ১১ ঘণ্টাও লোডশেডিং হতো, এখন আমরা জেনারেটর ও আইপিএসের ব্যবসা উঠিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছি। এটি সরকারের একটি সফলতা।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) ফোরাম ফর এনার্জি রিপোর্টার্স বাংলাদেশ (এফইআরবি) আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু, এনার্জি সিকিউরিটি এবং আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এমন মন্তব্য করেন। ভার্চুয়াল এ আয়োজনের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ছিল বাংলাদেশ ইনডিপেনডেন্ট পাওয়ার প্রডিউসারস অ্যাসোসিয়েশন (বিপপা)।

নসরুল হামিদ বলেন, অনেক সরকার দেখেছেন, তারাতো ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দেওয়ার কথা বলেনি, শেখ হাসিনা সরকার বলেছে। মুজিববর্ষেই সবার ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া হবে। অনেকে সিঙ্গাপুরের উদাহরণ দেন। হ্যাঁ, আমরা এখনও অনেক পেছনে। আমরা শতভাগ বিদ্যুৎ দিতে যাচ্ছি।  পোরশা (নওগাঁ) একটি গ্রাম সেখানে বিদ্যুৎ যাওয়ার পর রাত ১২টা পর্যন্ত বাজার চলে। 

তিনি বলেন, পায়রায় প্রথম যখন গেছি ধুধু বালু। প্রথম অনেকে অনেক কথা বলেছে। পাওয়ার প্লান্ট রেডি হওয়ার আগেই কয়লা এনেছি। আমেরিকাতেও অনেক প্লান্টে আল্ট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি নেই, আমরা পায়রাতে করেছি।  ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে বিদ্যুতের কারণে।  

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আগে তেল আসার পর বড় জাহাজ থেকে খালাস করতে ১২ দিন লাগতো।  এখন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তেল আসবে। এ বছরের মধ্যে কাজ শেষ হচ্ছে।  এতে হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় হবে। বড় জাহাজ থেকে ছোট জাহাজে আনতে লোকসান হয়।  ভেজাল হয় এটাও বন্ধ হয়ে যাবে। এটাও কিন্তু জ্বালানি নিরাপত্তার অংশ। পতেঙ্গায় টার্মিনাল করছি, বাঘাবাড়িতে টার্মিনাল করছি। পাইপলাইনে তেল আসবে নারায়ণগঞ্জে, সেখান থেকে এয়ারপোর্টে। 

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন কাগজপত্র দেখি আর ভাবি, মাত্র সাড়ে তিন বছরে কিভাবে এতো কিছু করতে পেরেছিলেন বঙ্গবন্ধু।  বেশ অবাক লাগে, তখন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ, রাস্তা নেই, ব্রিজ নেই, টাকা নেই, মানুষের ঘরে খাবার নেই।  বিশ্বে তখন ঠাণ্ডা যুদ্ধ চলমান, কোন দেশ কাকে নেবে তারও একটি লড়াই চলছিল। 

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ারের এডিটর মোল্লাহ আমজাদ হোসেন।  বিশেষ অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর সাবেক একান্ত সচিব বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গর্ভনর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন।  

অন্যদের মধ্যে বক্তব্যে রাখেন বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ, বাপেক্সের সা এমডি মর্তুজা আহমেদ ফারুক চিশতী, জ্বালানি বিশেষজ্ঞ সালেক সুফী, বিপপার চেয়ারম্যান ইমরান করিম প্রমুখ।

ঢাকা/হাসান/জেডআর

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়