ঢাকা     শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ২০ ১৪২৯

জাপাতে বিভক্তির প্রশ্নই আসে না: দেশে ফিরে বললেন রওশন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩৯, ২৭ নভেম্বর ২০২২   আপডেট: ১৯:৪১, ২৭ নভেম্বর ২০২২
জাপাতে বিভক্তির প্রশ্নই আসে না: দেশে ফিরে বললেন রওশন

থাইল্যান্ডে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ

দীর্ঘ পাঁচ মাস থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

রোববার (২৭ নভেম্বর) থাই এয়ারওয়েজের বিমানে করে বেলা ১২টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ছেলে রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদ এমপি, পূত্রবধু মাহিমা সাদ।

দেশে ফিরে রওশন এরশাদ বলেছেন, ‘আমি সব সময় জাপার ঐক্য চাই। আমার স্বামী প্রয়াত রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, আমি ও আমার পরিবারের সদস্যদের কত কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে। গত ৩২ বছরে দলের নেতাকর্মীরা কতটা পরিশ্রম করেছেন, তা দেখেছি আমি। আমি মনে করি, পার্টিকে বিভক্ত করার কোনো প্রশ্নই আসে না। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমি পার্টির সব এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং অন্যদের সঙ্গে যেকোনো বিভ্রান্তি ও ভুল বোঝাবঝি দূর করতে বসব। আমি নিশ্চিত, সেই ভুল বোঝাবুঝি দূর করে ঐক্যবদ্ধভাবে শিগগিরই রাজনৈতিক কর্মসূচিতে ফিরতে পারব, ইনশাআল্লাহ।’

বিমানবন্দরে নির্ধারিত আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভিআইপি লাউঞ্জ গেটে রওশন এরশাদকে অভ্যর্থনা জানান জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম‌্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি ও সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, বিরোধী দলীয় নেতার রাজনৈতিক সচিব গোলাম মসীহ্, প্রেসিডিয়াম সদস‌্য নাসরিন জাহান রত্না এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি শফিকুল ইসলাম সেন্টু, সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন খান, এসএমএম আলম, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, সাবেক এমপি নুরুল ইসলাম মিলন, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, কাজী মামুনুর রশীদ, ছাত্রসমাজের সাবেক সভাপতি মনিরুজ্জামান টিটু, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম নূরু, মনোয়ারা তাহেরা মানু, আমেনা হাসান, শেখ রুনা প্রমুখ।

পরে ভিআইপি লাউঞ্জে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন রওশন এরশাদ। তিনি নিজের সুস্থতা ও দেশে ফিরে আসার জন্য সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছে শোকরিয়া জ্ঞাপনের পাশাপাশি পার্টির নেতাকর্মী, দেশবাসী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। সার্বিক সহযোগিতার জন‌্য থাইল্যান্ডে বাংলাদেশ দূতাবাসকেও ধন্যবাদ জানান।

রওশন এরশাদ বলেন, ‘আমার পায়ে কিছু সমস্যা আছে। থেরাপি নিচ্ছি। দেশবাসীর দোয়া ও ভালোবাসায় সুস্থ হয়ে ফিরে এসেছি। আমি আজীবন আপনাদের সেবা করতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমাদের প্রিয় নেতা সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্নেহধন্য এবং তার পছন্দের যোগ্য ও দক্ষ প্রার্থীকেই লাঙ্গলের প্রার্থী হিসেবে বেছে নেওয়া হবে। যাকে প্রার্থী ঘোষণা করা হবে, তার নির্বাচন ও বিজয়ের মধ্যে দিয়ে জাতীয় পার্টি ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী দল হিসেবে নতুন করে প্রতিষ্ঠা পাবে, ইনশাল্লাহ।’

বিমানবন্দরে জিএম কাদের স্বাগত জানাতে না আসার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে সাংবাদিকদের রওশন এরশাদ বলেন, ‘আসেনি তো কী হয়েছে? হয়ত কোনো সমস্যা আছে তার। এতে কোনো সমস্যা দেখছি না আমি। তার সঙ্গে কোনো দ্বন্দ্ব নেই।’

আগামীতে তার সঙ্গে চলবেন কি না? জানতে চাইলে রওশন এরশাদ বলেন, ‘অবশ্যই চলব।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির আমলে জাতীয় পার্টি খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমাদের নেতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এবং আমি ও আমার নাবালক সন্তানসহ দলের হাজার হাজর নেতাকর্মী জেল খেটেছি। তখন আমাদের জনসভাও করতে দেওয়া হয়নি। ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে অনেক জনসভায় হামলা চালিয়ে কত শত নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছিল। সেই অন্ধকার দিনগুলো আমরা ভুলব কী করে? তাদের শাসনামলে হাওয়া ভবনের দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা ও অপতৎপরতা দেখেছি।’

‘জনগণ উন্নতি ও শান্তি জন্য পরিবর্তন চায়। জাতীয় পার্টিই দিতে পারে সেই শান্তি। অবশ্যই তা বিএনপি নয়। বিএনপির সঙ্গে জোটের প্রশ্নই আসে না,‘ বলেন রওশন এরশাদ।

নঈমুদ্দীন/রফিক

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়