ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৮ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪৩১

এমপি মনু’র ওপর ক্ষেপলেন কাদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:১৪, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩  
এমপি মনু’র ওপর ক্ষেপলেন কাদের

আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশে বার বার ব্যানার-ফেস্টুন নামিয়ে ফেলতে বললে নির্দেশ না মানায় ঢাকা-৫ আসনের এমপি মনিরুল ইসলাম মনু’র ক্ষেপলেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বক্তব্য রাখতে গিয়ে মনুকে ‘খবর আছে’ বলেও শাসান তিনি।

সোমবার (৩০ জানুয়ারি) বিকেলে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশে যোগ দিয়ে এই ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

জানা গেছে, গত কয়েকটি সমাবেশে মঞ্চ থেকে বার বার ঘোষণা দেওয়ার পরেও বিভিন্ন থানা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা স্থানীয় নেতাদের ছবি সম্বলিত ব্যানার নামান না। বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে সমাবেশে আসা নেতাকর্মীরা দুটি লাঠির মাথায় ব্যানার টাঙিয়ে সমাবেশস্থলে যোগ দেন। যতক্ষণ সমাবেশ চলে তারা নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য ব্যানার উঁচিয়ে রাখেন।  

এই ঘটনা দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কথাতেও কেউ ব্যানার নামাচ্ছেন না, এখানে শৃঙ্খলার অভাব। এসব করে কেউ মনোনয়ন পাবেন না। নামান, ব্যানার নামান। সাবের হোসেন চৌধুরীর ব্যানার নিয়ে তাকে পচাচ্ছেন? পচাচ্ছেন তাকে? এই যে জনসভা বড় হয়েছে, এই ছবিটাও সাংবাদিক ভাইয়েরা নিতে পারে না।’

এক পর্যায়ে ক্ষেপে গিয়ে তিনি বলেন, ‘এই মনু (ঢাকা-৫ আসনের সাংসদ কাজী মনিরুল ইসলাম মনু) তোমার ব্যানার নামাও, না হলে তোমার খবর আছে বলে দিচ্ছি। ব্যানার নামাও।’

সমাবেশে যারা ব্যানার নামাচ্ছেন না, তাদের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের শাস্তি দেওয়া হবে জানিয়ে কাদের বলেন, ‘যারা এরপরেও ব্যানার রেখেছে, তাদের কিন্তু এর জন্য জবাব দিতে হবে। কারা কারা ব্যানার এখনও উঁচিয়ে আছে, তাদের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের শাস্তি নেওয়া হবে। আমি আবারও বলছি। এখনও নামাচ্ছো না।

‘মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহেব, সাধারণ সম্পাদক সাহেব; আপনারা বার বার অনুরোধ করার পরেও যারা এখনও ব্যানার নামায়নি, এই হুমায়ুন (ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক) তোমার ব্যানারও তো, নিজের ব্যানারই তো নামায়নি। এই ওয়ার্ডগুলো সব লিখে রাখুন। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে, এই ওয়ার্ডগুলো লিখে রাখুন। এখন স্লোগান বন্ধ রাখতে হবে।’

মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফি সভাপতির বক্তব্যে বলেন, ‘প্রধান অতিথি বক্তব্য দেওয়ার আগে ব্যানারগুলো নামান। আমার কর্মী ভাইয়েরা, আমার নেতা ভাইয়েরা, ওয়ার্ড ইউনিটের ভাইয়েরা- আপনারা কথা শুনতে চান না। আপনাদের বিরুদ্ধে শোকজ করবো কিন্তু, মাননীয় প্রধান অতিথি আমাকে নির্দেশ দিয়েছেন। ব্যানার নামান না কেন আপনারা, এই কাজী মনু যাত্রাবাড়ীর, এই আফজাল সূত্রাপুরের ব্যানার নামাও। কথা বললে কথা শুনেন না কেন?’

সমাবেশে আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, কামরুল ইসলাম, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য সানজিদা খানম বক্তব্য রাখেন।

পারভেজ/এনএইচ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়