ঢাকা     সোমবার   ১৫ জুলাই ২০২৪ ||  আষাঢ় ৩১ ১৪৩১

চীনা বাদাম চাষে কৃষক দিদার হোসেন সফল

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১৫, ২ এপ্রিল ২০২৪  
চীনা বাদাম চাষে কৃষক দিদার হোসেন সফল

চীনা বাদাম ক্ষেতে কৃষক মো. দিদার হোসেনের সাথে উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মো. শামিমুল হক শামীম।

হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলার দ্বিমুড়া গ্রামের বাসিন্দা মো. দিদার হোসেন। তিনি নিজ বাড়ির পাশে প্রায় ৩০ শতক জমিতে চীনা বাদামের আবাদ করে সফলতা পেয়েছেন।

আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে সিলেট অঞ্চলে কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৭ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে ৫০ হাজার টাকার বাদাম বিক্রির সম্ভাবনা দেখছেন তিনি। তার দেখাদেখি অনেকেই এই ফসলটি আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

রোগ প্রতিরোধী হিসেবে চীনা বাদামের পরিচিতি রয়েছে। এই বাদামে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, কার্বো-হাইড্রেট ও প্রোটিন আছে। এছাড়া বাদামের অসাধারণ কার্যকরী ফ্যাট শরীর থেকে কোলস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। এই বাদাম সাহায্য করে ডায়বেটিকস নিয়ন্ত্রণে।

কৃষক মো. দিদার হোসেন বলেন, উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মো. শামিমুল হক শামীম আমাকে সহায়তা করেছেন। তার সহায়তায় আমি জমিতে চীনা বাদাম চাষ করেছি। এখানে চীনা বাদাম চাষে খরচ নেই বললেই চলে। তবে গরুর গোবর থাকলে জমিতে প্রয়োগ করে বাদামের বাম্পার ফলন পাওয়া সম্ভব। জমিতে কীটনাশক প্রয়োগ ছাড়াই চীনা বাদাম চাষ করতে পেরে আমি আনন্দিত।

তিনি আরও বলেন, ধারণা করছি প্রায় ৫০ হাজার টাকার চীনা বাদাম বিক্রি করতে পারবো। জমির পেছনে আমার খরচ হয়েছে প্রায় ৭ হাজার টাকা। বাদাম সংগ্রহ করার পর গাছগুলো গরুর খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা যাচ্ছে।

স্থানীয় কৃষকরা বলেন, শ্রম দিলে ফল আসে। নতুন ফসল চীনা বাদাম চাষ করে তারই প্রমাণ দিলেন কৃষক মো. দিদার হোসেন। তার খেতে বাদামের ভালো ফলন হয়েছে। আমরাও ভবিষ্যতে চীনা বাদাম চাষ করতে আগ্রহী।

বাহুবল উপজেলার দ্বিমুড়া কৃষি ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মো. শামিমুল হক শামীম বলেন, কৃষক মো. দিদার হোসেন প্রমাণ করলেন চেষ্টা করলে সফল হওয়া সম্ভব। তাকে সহযোগিতা করেছি। তিনি শ্রম দিয়েছেন। বাদামের ভালো ফলন হয়েছে। এ ফলন দেখে এলাকার অন্য কৃষকরাও বাদাম চাষে আগ্রহী হয়েছেন। আশা করি বাহুবলের কৃষকরা চীনা বাদাম চাষ করে ভালো ফলন পাবেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন মজুমদার বলেন, বাহুবলে চীনা বাদাম চাষে মো. দিদার হোসেন চমক দেখিয়েছেন। বাদাম আমাদের কৃষি উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এ উপজেলার মাটি ও আবহাওয়া বাদাম চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। বিনা উদ্ভাবিত ধান, তৈলবীজ, গম, ডালসহ বিভিন্ন ফসলের জাত প্রচলিত জাতের তুলনায় ২-৩ গুণ বেশি ফলন দেয়। এখানে উন্নতজাতের বাদাম আবাদ করে কৃষক যেমন লাভবান হচ্ছেন, তেমনি তারা দেশের কৃষিতেও ভূমিকা রাখছেন।

তিনি আরও বলেন, উন্নত জাতের বাদাম চাষের কলাকৌশলসহ বিভিন্নভাবে আমরা কৃষকদের মাঠে গিয়ে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের ডা. মিঠুন রায় বলেন, চীনা বাদামে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, কার্বো-হাইড্রেট ও প্রোটিন আছে। একমুঠো চীনা বাদাম খেলে শরীর থেকে অনেক রোগ-বালাই দূরে রাখা সম্ভব। বাদামের অসাধারণ কার্যকরী ফ্যাট শরীর থেকে কোলস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। রাতে ১০ থেকে ১৫টি বাদাম পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে খেলে ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রণে থাকে। চীনা বাদামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ডায়াবেটিকস নির্মূলে বিশেষভাবে কার্যকরী। খাদ্য তালিকায় একমুঠো বাদাম যুক্ত করে অতিরিক্ত ওজনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তাছাড়া এটি শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতেও সহায়তা করে।

তিনি আরও বলেন, চীনা বাদামে মস্তিষ্কের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে। শরীরে সঠিক পরিমাণ পুষ্টি না থাকলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। চীনা বাদামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরে কঠিন রোগকে বাসা বাঁধতে বাধা দেয়। এই বাদামের সব স্বাস্থ্য উপকারিতা পেতে প্রতিদিন অবশ্যই একমুঠো চীনা বাদাম খাওয়া প্রয়োজন।

মামুন/ফয়সাল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়