ঢাকা     শনিবার   ২৮ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯ ||  ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

পেটের বিপজ্জনক চর্বি কমানোর উপায়

এস এম ইকবাল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:০২, ২২ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৮:২৮, ২৩ ডিসেম্বর ২০২১
পেটের বিপজ্জনক চর্বি কমানোর উপায়

পেটের গভীরে ভিসচেরাল ফ্যাট নামে এক ধরনের চর্বি থাকে। এই চর্বি পেটের ভেতরস্থ অঙ্গসমূহে মোড়ানো থাকে, যেমন- লিভার ও ইন্টেস্টাইনে। এটা সবসময় দেখা বা অনুভব করা যায় না। এমনকি ফ্লাট পেটেও ভিসচেরাল চর্বি থাকতে পারে।

ব্যয়বহুল ইমেজিং টেস্ট বা স্ক্যান ব্যতীত পেটে ভিসচেরাল চর্বির পরিমাণ জানার উপায় নেই। তবে কোমর মেপে এটা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যেতে পারে। নারী ও পুরুষের কোমরের পরিধি যথাক্রমে ৮০ ও ৯৪ সেন্টিমিটারের বেশি হলে ধরে নিতে পারেন যে, ভিসচেরাল চর্বি রয়েছে।

শরীরে যেকোনো চর্বির পরিমাণ বেড়ে গেলে বিপদের কারণ হতে পারে, তবে ত্বকের নিচের চর্বির (সাবকিউটেনিয়াস ফ্যাট) তুলনায় ভিসচেরাল ফ্যাট বেশি বিপজ্জনক পরিণতি ঢেকে আনতে পারে। হৃদরোগ, ভুলে যাওয়া রোগ, উচ্চ কোলেস্টেরল, টাইপ ২ ডায়াবেটিস ও স্ট্রোকের সঙ্গে ভিসচেরাল চর্বির শক্তিশালী সম্পর্ক আছে। পেটের পরিধি বাড়লে এসব রোগের ঝুঁকিও বাড়বে। এখানে পেটের গভীরের ভিসচেরাল চর্বি কমানোর কিছু উপায় উল্লেখ করা হলো।

* ক্যালরি কমান: যুক্তরাষ্ট্রের ফাঙ্কশনাল মেডিসিনের চিকিৎসক স্টাসি জে. স্টিফেনসন বলেন, ‘ক্যালরি কমান, এমনকি অল্প হলেও। ক্যালরি সমৃদ্ধ খাবার কমিয়ে ফেললে ভিসচেরাল ফ্যাটও কমে যায়।’ ত্বকের নিচের চর্বি দেখা যায় বলে মানুষজন এটা নিয়েই দুশ্চিন্তা করে। বাস্তবতা হলো, পেটের গভীরস্থ চর্বিই রোগের ঝুঁকি বেশি বাড়ায়। তবে এটা নিয়েও অত উদ্বিগ্ন হবেন না। কারণ নিয়ন্ত্রণিত জীবনযাপনের মাধ্যমে এটা দ্রুত দূর করা যায়, যেমন- ওজন বা ক্যালরি কমিয়ে।’

* কার্ডিও ব্যায়াম করুন: ডা. স্টিফেনসন বলেন, ‘সকল শরীরচর্চাই বিপজ্জনক ভিসচেরাল চর্বি পোড়াতে পারে, তবে কার্ডিও ব্যায়াম বিশেষভাবে সহায়ক।’ দ্রুত হাঁটা, দৌঁড়ানো, সাইকেল চালানো ও সাঁতার কাটা হলো কার্ডিও ব্যায়ামের উদাহরণ। বিভিন্ন গবেষণার আলোকে বিশেষজ্ঞদের মত হলো, নারী ও পুরুষের পেটের গভীরস্থ চর্বি কমাতে কার্ডিও ব্যায়াম বেশ কার্যকর। এটা পেটের অন্যান্য চর্বিও কমায়।

* প্রক্রিয়াজাত খাবার এড়িয়ে চলুন: গাইনিকোলজি, ফার্মাকোলজি, ইন্টারনাল মেডিসিন ও সার্জারির বিশেষজ্ঞ ইলিয়ানা রোজ বলেন, ‘প্রক্রিয়াজাত খাবার না খাওয়ার চেষ্টা করুন। এসব খাবারে ট্রান্স ফ্যাট থাকে, যা স্বাস্থ্যকে মারাত্মক ঝুঁকিতে ফেলে এবং পেটের ভিসচেরাল চর্বি বাড়িয়ে দেয়।’ ফ্রায়েড ফাস্ট ফুডস, বেকারি প্রোডাক্টস, নন-ডেইরি কফি ক্রিমারস ও পটেটো চিপসে ট্রান্স ফ্যাট রয়েছে।

* মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখুন: ইয়েল ইউনিভার্সিটির গবেষণায় পাওয়া গেছে, মানসিক চাপে পেটের চর্বি বাড়তে পারে। আবার এমনও হতে পারে, ভিসচেরাল চর্বি বাড়লে মানসিক চাপও বাড়ে। মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে মেডিটেশন, ব্যায়াম, ঘুরে বেড়ানো, পর্যাপ্ত ঘুমানো, মানুষের সঙ্গে কথা বলা- এ জাতীয় কাজে জড়িত থাকুন।

* চিনি কমান: গবেষণায় দেখা গেছে, চিনি ভিসচেরাল চর্বি বাড়াতে পারে। তাই পেটের বিপজ্জনক চর্বি কমাতে চাইলে দৈনন্দিন চিনি খাওয়ার পরিমাণ কমাতে হবে। এমনকিছু খান, যেখানে প্রচুর ফাইবার ও প্রোটিন রয়েছে। যেমন- আপেল, বাদাম ও সবজি খেতে পারেন। তবে মাঝেমধ্যে উৎসব উপলক্ষে মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি পরিমাণে খেতেই পারেন।

ঢাকা/ফিরোজ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়