ঢাকা     রোববার   ১৪ জুলাই ২০২৪ ||  আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

কানের ভেতর পোকা ঢুকলে যা করবেন

দেহঘড়ি ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:০৮, ১৬ মে ২০২২  
কানের ভেতর পোকা ঢুকলে যা করবেন

ঘুমানোর সময় দুর্ভাগ্যবশত কানের ভেতর তেলাপোকার বাচ্চা, পিঁপড়া, মশা ইত্যাদি ঢুকে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটতে পারে। এছাড়া বাইরে থাকাকালীল সময়েও মশা, মাছি, গুবরে পোকা প্রভৃতি কানের মধ্যে ঢুকতে পারে। বিশেষ করে শিশুদের ক্ষেত্রে এ ধরনের ঘটনা বেশি ঘটে থাকে। 

কানে হঠাৎ কোনো ধরনের পোকা-মাকড় ঢুকে পড়া ভীতিকর ও কষ্টের। সঙ্গে সঙ্গে যদি কানের ভেতর থেকে পোকা বের করা যায় তাহলে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। কিন্তু দেরী হলে বড় ধরনের অস্বস্তিকর ঘটনার মুখোমুখি হওয়া লাগতে পারে। সাম্প্রতিক এ ধরনের একটি ঘটনা জেনে নিন।

২৯ বছর বয়সি নারী কেটি হোলি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মেলবোর্ন শহরের বাসিন্দা। কানের মধ্যে অদ্ভুত এক অনুভূতি নিয়ে এক মাঝরাতে তার ঘুম ভাঙে। সেলফ ম্যাগাজিনে পাবলিশ হওয়া এক লেখায় তিনি বলেন, ‘মনে হচ্ছিল আমার কানের মধ্যে কেউ যেন এক টুকরো ঠাণ্ডা বরফ ঢুকিয়ে রেখেছিল।’ প্রাথমিক অবস্থায় তার স্বামী চিমটি দিয়ে কানের মধ্যে ঢুকে যাওয়া কিছু একটা বের করার চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি সেটা বের করতে সক্ষম হলেন না। দ্রুত হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে, পরীক্ষা করে চিকিৎসক তাদের সন্দেহকে সত্যি বলে নিশ্চিত করেন।

হ্যাঁ! ঘুমন্ত অবস্থায় তার কানের মধ্যে তেলাপোকা ঢুকে গিয়েছিল। তার কানের মধ্য থেকে তেলাপোকাটি বের করার জন্য চিকিৎসক প্রথমে পোকাটিকে লেডোকাইন নামক একটি ওষুধ দিয়ে মেরে ফেলেন এবং পরবর্তীতে পোকাটিকে সেখান থেকে বের করে আনেন।

কিন্তু তার কিছুদিন পার হয়ে যাওয়ার পরেও কেটি তার কানের মধ্যে ব্যথা অনুভব করতে থাকেন এবং পাশাপাশি তার শুনতেও বেশ সমস্যা হচ্ছিল। এভাবে প্রায় নয়দিন অতিবাহিত হয়ে যাওয়ার পরে যখন তিনি আবার চিকিৎসকের কাছে যান তখন জানতে পারেন, তেলাপোকাটির দেহের কিছু অবশিষ্ট অংশ এখনো তার কানের মধ্যে রয়ে গেছে। পূর্ববর্তী চিকিৎসকরা পোকাটিকে পুরোপুরি বের করতে সক্ষম হননি।

কানের মধ্যে পোকা ঢুকলে ব্যাপারটি হালকাভাবে নেবেন না একদমই। দ্রুত বের করার ব্যবস্থা নিতে হবে। তা না হলে কানে ব্যথা ও অস্বস্তি হতেই থাকবে। এর পাশাপাশি কানে কম শুনতে পাওয়া, মাথা ভার-ভার অনুভূত হওয়া, বিরক্তি এমনকি মানসিক ভীতির মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

মশা-মাছি, তেলাপোকা, পিঁপড়া বা অন্য কোনো জীব ঢুকলে কানের ছিদ্রের সামনে উজ্জ্বল আলোর টর্চলাইট ধরুন। এতে জীবন্ত পোকামাকড় আলোর প্রতি সংবেদনশীল হওয়ায় বের হয়ে আসতে পারে। এতে কাজ না হলে অলিভ ওয়েল বা নারিকেল তেলের কয়েক ফোঁটা ধীরে ধীরে কানের মধ্যে দিতে পারেন। এতে জীবন্ত ওই পোকামাকড় কানের ভেতরেই মরে যাবে, ফলে ব্যথা বা অস্বস্তিও কমে যাবে। তারপর সাবধানতার সঙ্গে কান থেকে সেটি বের করতে হবে। এরপরও চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। কে জানে, কেটি’র সঙ্গে ঘটে যাওয়ার ঘটনাটির মতো পোকার অংশ বিশেষ কানের মধ্যে থেকেও যেতে পারে!

পোকামাকড় কান থেকে বের করতে বেশি খোঁচাখুঁচি করতে যাবেন না, তাতে নতুন বিপদ দেখা দিতে পারে। খোঁচাখুঁচির ফলে কানের পর্দা ছিদ্র হয়ে যেতে পারে। তাই এ কাজের জন্য নাক-কান-গলা চিকিৎসকের কাছে যাওয়াটাই সবচেয়ে নিরাপদ।

তথ্যসূত্র: হেলথ লাইন

/ফিরোজ/

সর্বশেষ