ঢাকা     শুক্রবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২৪ ১৪২৯

দ্রুত ওজন কমাতে সাইকেল যেভাবে চালাবেন

দেহঘড়ি ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫৪, ৪ অক্টোবর ২০২২   আপডেট: ২২:৫৯, ৪ অক্টোবর ২০২২
দ্রুত ওজন কমাতে সাইকেল যেভাবে চালাবেন

সাইকেল যেমন পরিবেশবান্ধব একটি বাহন হিসেবে পরিচিত, তেমনি নিয়মিত সাইকেল চালানো শরীরের জন্য দারুন একটি ব্যায়াম হিসেবেও পরিচিত। সহজ এই ব্যায়ামের স্বাস্থ্য উপকারিতা বিস্তর।

বিশেষ করে অন্য অনেক ব্যায়ামের তুলনায় সাইকেল চালিয়ে শরীরের ক্যালোরি বেশি ঝরানো যায়। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে নিয়মিত সাইকেল চালানো আদর্শ একটি ব্যায়াম। শরীর থেকে বেশি ক্যালোরি ঝরানোর বিষয়টি সাইকেলের ওজন ও চালানোর গতির ওপর নির্ভরশীল।

১৫০ পাউন্ড ওজনের একটি সাইকেল এক ঘণ্টা কী পরিমাণ চালালে কেমন ক্যালোরি খরচ হয়, তা জেনে নিন এবার। বেশি ওজনের সাইকেল আরো বেশি ক্যালোরি খরচ করবে।

* ঘণ্টায় ১০ মাইলের কম গতিতে চালালে, খুব ধীরগতিতে ক্যালোরি ক্ষয় হয়, ২৭২ ক্যালোরি। যদিও এই পরিমাণ ক্যালোরি খরচ হওয়াটা ফ্রি স্টাইলে সাঁতার কাটার প্রায় সমতুল্য। 

* ঘণ্টায় ১০-১২ মাইল গতিতে সাইকেল চালিয়ে সহজেই ৪০৮ ক্যালোরি খরচ করা যায়।

* ঘণ্টায় ১২-১৪ মাইল গতিতে সাইকেল চালিয়ে ৫৪৪ ক্যালোরি কমানো যাবে।

* ঘণ্টায় ১৪-১৬ মাইল গতিতে সাইকেল চালিয়ে ৬৮০ ক্যালোরি খরচ করা যাবে।

* ঘণ্টায় ১৬-১৯ মাইল গতিতে সাইকেল চালিয়ে সহজেই ৮১৬ ক্যালোরি খরচ হয়।

* ঘণ্টায় ২০ মাইলের বেশি রেসিং গতিতে সাইকেল চালিয়ে ১,০৮৮ ক্যালোরি ঝরানো সম্ভব।

সাইকেল চালালোর ক্ষেত্রে আপনি নতুন হলে ঘণ্টায় ১০ মাইল গতিতে চালাতে পারেন। বেশিরভাগ দিন অন্তত ২০-৩০ মিনিট সাইকেল চালান। ছুটির দিনগুলোতে সময় বাড়িয়ে দিন। ফিট থাকতে এবং দ্রুত ওজন কমাতে সপ্তাহে অন্তত দুইবার কঠোর পরিশ্রমে সাইকেল চালান।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, নিয়মিত সাইকেল চালালে হৃদপিণ্ড সুস্থ-সবল থাকে। রক্ত চলাচল থাকে স্বাভাবিক। ফুসফুসের ব্যায়ামও হয়। স্ট্রোকের মতো মারাত্মক রোগ প্রতিরোধ করা যায় নিয়মিত সাইকেল চালিয়ে। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, রক্তে খারাপ চর্বির আধিক্যের মতো সমস্যা প্রতিরোধ কিংবা এসব সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্যও সাইকেল চালানো উপকারী।

এ ছাড়াও নিয়মিত সাইকেল চালালে শরীরের নিম্নাংশের পেশি মজবুত হয়। পেট আর পিঠের পেশিও দৃঢ়তা পায়। নিয়মিত ব্যায়ামের মাধ্যমে শরীরের অতিরিক্ত ক্যালোরি খরচ করলে ফ্যাট বাসা বাঁধতে পারে না শরীরে। ফলে নানা রোগ থেকে সহজেই মুক্ত থাকা যায়।

তথ্যসূত্র: দ্য হেলদি

/ফিরোজ/

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়