Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১১ মে ২০২১ ||  বৈশাখ ২৮ ১৪২৮ ||  ২৮ রমজান ১৪৪২

মঙ্গল গ্রহে অক্সিজেন তৈরি করল পারসিভারেন্স রোভার

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:৪২, ২২ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ২১:৫৫, ২২ এপ্রিল ২০২১
মঙ্গল গ্রহে অক্সিজেন তৈরি করল পারসিভারেন্স রোভার

নতুন রেকর্ড গড়েছে মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার মার্স পারসিভারেন্স রোভার মিশন। কিছুদিন আগে মঙ্গল গ্রহে প্রথমবারের মতো একটি হেলিকপ্টার উড়ানো হয় এই মিশনে। আর এবার প্রথমবারের মতো মঙ্গল গ্রহে অক্সিজেন তৈরি করল পারসিভারেন্স। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, রোভারটির একটি যন্ত্র মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডলের কার্বন ডাই অক্সাইড থেকে অক্সিজেন তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে।

মঙ্গলগ্রহের অত্যন্ত পাতলা বায়ুমণ্ডল থেকে অক্সিজেন বের করে আনা মোটেও সহজ কাজ নয়। বরং একপ্রকার অসম্ভব। কিন্তু এই অসম্ভবকেই সম্ভব করে দেখিয়েছে পারসিভারেন্স রোভার। রোভারের ‘মক্সি’ (মার্স অক্সিজেন ইন-সিটু রিসোর্স ইউটিলাইজেশন) নামের একটি টোস্টার আকারের ইউনিট এই অক্সিজেন তৈরির কাজ করেছে। এতে পাঁচ গ্রাম অক্সিজেন তৈরি করা হয়। এই পরিমাণ অক্সিজেন দিয়ে একজন নভোচারী মঙ্গলে প্রায় ১০ মিনিট শ্বাস নিতে পারবেন।

কার্বন ডাই অক্সাইড থেকে অক্সিজেন নির্গমন করার জন্য অতিরিক্ত তাপের ব্যবহার করা হয়েছে এক্ষেত্রে। মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডলের ৯৫ ভাগ জুড়েই রয়েছে কার্বন ডাই অক্সাইড। অক্সিজেন প্রায় নেই বললেই চলে। ‘মক্সি’ কার্বন অণু থেকে অক্সিজেনকে আলাদা করতে পারে। অক্সিজেন তৈরি হওয়ার পর বর্জ্য হিসেবে কার্বন মনোক্সাইড থেকে যায়। একে মঙ্গলের বায়ুমণ্ডলে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গল গ্রহে মূলত প্রাণের অস্তিত্বের সন্ধানের জন্য পারসিভারেন্স রোভার নামক মঙ্গল যানটি পাঠানো হয়েছে। এই অভিযানে এভাবে অক্সিজেন পাওয়া অন্যতম সফলতার বিষয়। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি তারিখে গ্রহটির ‘জেজোরো ক্রেটার’ নামক এলাকায় নিরাপদে অবতরণ করে নাসার মঙ্গলযান পারসিভারেন্স রোভার। গত বছরের জুলাইয়ে পৃথিবী থেকে উড়াল দেয়ার সাত মাস পর ৪৭ কোটি মাইল পথ পাড়ি দিয়ে মঙ্গল গ্রহে পা রাখার জটিল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে সক্ষম হয় পারিসিভারেন্স। 

মঙ্গলে প্রাণের অস্তিত্ব কখনো ছিল কিনা, তা খতিয়ে দেখার সবচেয়ে উপযুক্ত এলাকা জেজোরো ক্রেটার। মঙ্গলের এই এলাকায় ফেব্রুয়ারিতে অবতরণের পর থেকেই গবেষণা চালাচ্ছে পারসিভারেন্স।

নাসার বিজ্ঞানীদের প্রত্যাশা, রোভারে বিদ্যমান মক্সি যন্ত্রাংশটি প্রতি ঘণ্টায় ১০ গ্রাম পর্যন্ত অক্সিজেন উৎপন্ন করতে পারবে। আগামী দুই বছরে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে অন্তত ৯ বার এই যন্ত্রাংশকে কাজ করানোর পরিকল্পনা রয়েছে বিজ্ঞানীদের। এছাড়াও আশা করা হচ্ছে, ভবিষ্যতে মঙ্গল গ্রহে নভোচারী নিয়ে কোনো অভিযান পরিচালনা করা হলে, হয়তো তাঁদের জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের উৎপাদনও সেখানেই করা যাবে। এছাড়া রকেটের জ্বালানি হিসেবেও অক্সিজেন অপরিহার্য উপাদান।

পড়ুন: অবশেষে মঙ্গলে উড়ল হেলিকপ্টার

ঢাকা/ফিরোজ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়