Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৮ ||  ০৫ শাওয়াল ১৪৪২

রোনালদোর জোড়া গোলে মেসিদের হারালো জুভেন্টাস

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৪:২০, ৯ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ১২:৫২, ৯ ডিসেম্বর ২০২০
রোনালদোর জোড়া গোলে মেসিদের হারালো জুভেন্টাস

চ্যাম্পিয়নস লিগে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লড়াইয়ে নেমেছিল বার্সেলোনা ও জুভেন্টাস। কিন্তু সবার চোখ ছিল লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর দ্বৈরথে। দুই বছর পর এই সময়ের অন্যতম সেরা দুই ফুটবলার মুখোমুখি হয়েছিল।

ন্যু ক্যাম্পে মঙ্গলবার মেসি জাদু দেখা না গেলেও রোনালদো মেতেছিলেন গোলের উচ্ছ্বাসে। জোড়া গোল করে শেষ হাসি হেসেছেন তিনি এবং ১৭ বছর পর বার্সার মাঠে জিতেছে জুভেন্টাস ৩-০ গোলে। একই সঙ্গে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে উঠেছে তারা শেষ ষোলোতে।

শুরু থেকে বার্সাকে চেপে ধরেছিল জুভেন্টাস। ৯ মিনিটে রোনালদো প্রথম শট নেন লক্ষ্যে। অবশ্য তা সহজে ঠেকান স্বাগতিক গোলকিপার মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন। ১২ মিনিটে পেনাল্টি আদায় করেন রোনালদো। বক্সের মধ্যে বল নিয়ে এগোতে থাকা পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডকে ফাউল করেন রোনাল্ড আরাউজো। গোল করার দায়িত্ব পড়ে রোনালদোর ঘাড়ে। বার্সা গোলকিপার স্টেগেন তার শট ঠেকাতে ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়লেও বল মাঝখান দিয়ে জালে জড়ায়। ১৩ মিনিটে সিআরসেভেনের গোলটি ছিল বার্সার বিপক্ষে সব প্রতিযোগিতায় ২১ ম্যাচে ১৬তম।

রক্ষণভাগের ফাঁক খুঁজে বের করে হুয়ান কুয়াদ্রাদো কয়েকবার বার্সাকে কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন। এই কলম্বিয়ান মিডফিল্ডার ২০ মিনিটে সফল হন জুভেন্টাসের দ্বিতীয় গোল বানিয়ে দিতে। তার ডানপায়ে ভাসানো ক্রস থেকে দুর্দান্ত অ্যাক্রোবেটিক ভলিতে স্কোর ২-০ করেন ওয়েস্টন ম্যাককেন্নি।

দুই গোল হজম করার পর বার্সা ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া ছিল। বিশেষ করে মেসি আর জুভেন্টাস গোলকিপার জিয়ানলুইজি বুফনের লড়াই জমে উঠেছিল। ২২ মিনিটে বার্সা অধিনায়কের বাঁ পায়ের জোরালো শট ঠেকান ইতালিয়ান গোলকিপার। প্রথমার্ধে আরও দুইবার মেসির প্রচেষ্টা রুখে দেন বুফন।

বিরতির পর ফিরে আবারও আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের শট লক্ষ্যে, কিন্তু আঠার মতো লেগে থাকা বুফন এবারও তাকে ব্যর্থ করেন। ৫০ মিনিটে অ্যারন রামজির শট দুর্দান্ত ডাইভে সেভ করেন টের স্টেগেন। কিন্তু বিল্ড আপের সময় ক্লেমন্ত লংলের হ্যান্ডবলের আভাস পান রেফারি। পেনাল্টি চেকআউটের পরও কোনও সমাধান না হওয়ায় তাকে মনিটর দেখতে হয়। তাতে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি এবং স্পট কিক নেন রোনালদো। এবারও টের স্টেগেনকে ভুল দিকে পাঠিয়ে বাঁ দিকে কোনাকুনি শটে গোল করেন তিনি।

৫৮ মিনিটে মেসির ফ্রি কিক থেকে দূরের পোস্ট দিয়ে আন্তোয়ান গ্রিয়েজমানের শট গোলবারের উপর দিয়ে চলে যায়। ৭৬ মিনিটে জুভেন্টাস চতুর্থ গোলের উচ্ছ্বাসে মেতেছিল। কুয়াদ্রাদোর কর্নার থেকে রোনালদোর দুর্বল শট বোনুচ্চির গায়ে লেগে জালে জড়ায়। তবে বোনুচ্চি অফসাইডে থাকায় ভিএআরে গোলটি বাতিল হয়।

এই জয়ে ৬ ম্যাচে জুভেন্টাস ও বার্সার সমান ১৫ পয়েন্ট। তবে হেড টু হেড রেকর্ডে এগিয়ে থেকে ‘জি’ গ্রুপের সেরা হলো ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। এ নিয়ে ষষ্ঠবার চ্যাম্পিয়নস লিগে মুখোমুখি হয়েছিলেন মেসি-রোনালদো। ৩-০ গোলে এগিয়ে ছিলেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। ২০১১ সালের পর ইউরোপিয়ান শীর্ষ মঞ্চে ফের দেখায় সেই ব্যবধান ৩-২ এ কমালেন রোনালদো।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৩-২ গোলে হারিয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে ‘এইচ’ গ্রুপ থেকে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে আরবি লাইপজিগ। একই গ্রুপের আরেক ম্যাচে পিএসজি ও ইস্তানবুল বাসাকসেহিরের ম্যাচটি বর্ণবাদের অভিযোগে স্থগিত ছিল।

ঢাকা/ফাহিম/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়