ঢাকা     রোববার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২০ ১৪২৯ ||  ০৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

মিনিস্টার ঢাকা: অভিজ্ঞতায় ট্রফির দাবিদার

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩৭, ১৯ জানুয়ারি ২০২২  
মিনিস্টার ঢাকা: অভিজ্ঞতায় ট্রফির দাবিদার

দরজায় কড়া নাড়ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। আগামী ২১ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু বিপিএলের পর্দা উঠবে। ছয় দলের ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক এই আসর নতুন করে শুরু হচ্ছে। নতুন দল, নতুন করে আবার দল গোছানো। সামর্থ্য ও শক্তিতে কে এগিয়ে? কোথায় দলগুলোর দুর্বলতা? তা নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন। আজ পড়ুন মিনিস্টার ঢাকার গল্প।

ড্রাফটের আগের দিন মালিকানা নিয়ে শিরোনামে আসে মিনিস্টার ঢাকা। নির্ধারিত সময়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি জমা না দেওয়ায় রুপা ফেব্রিক্স ও মার্ন স্টিলকে ঢাকার মালিকানা দেয়নি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ক্রিকেট বোর্ডই সাজায় দলটি। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে অবশ্য মালিকানারও হাতবদল হয়। ঢাকার মালিকানা এখন মিনিস্টার গ্রুপের হাতে। দলের নাম মিনিস্টার ঢাকা।

ফ্র্যাঞ্চাইজিবিহীন ঢাকার দিকে ড্রাফটে ছিল আলাদা নজর। দেশের ক্রিকেটের দুই অভিজ্ঞ ও তারকা ক্রিকেটার মাশরাফি মুর্তজা ও তামিম ইকবালকে নিয়ে সব আলো কেড়ে নেয় তারা। ড্রাফটের আগে দলে নিয়েছিল জাতীয় টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। এ তিন জনই ‘এ’ ক্যাটাগরির।

মাহমুদউল্লাহ-মাশরাফি-তামিমকে নিয়ে বেশ অভিজ্ঞ দলই গড়েছে ঢাকা। কাগজে-কলমে শক্তিশালী দল নিয়ে ট্রফি দাবি করতেই পারে ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। ড্রাফটের পরেও ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের বড় নাম ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেলকে দলে নিয়ে চমক দেয় তারা।

ব্যাটিংয়ে দেশিদের মধ্যে অভিজ্ঞ তামিম-মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে আছেন জাতীয় দলের আরেক ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম, ঘরোয়া ক্রিকেটের পরিচিত মুখ শুভাগত হোম চৌধুরী, জহুরুল ইসলাম অমি ও শামসুর রহমান শুভ। মাহমুদউল্লাহ-শুভাগত ব্যাটিংয়ের সঙ্গে বল হাতে দারুণ অবদান রাখতে পারেন।

ব্যাটিংয়ে বিদেশিদের মধ্যে নাজিবউল্লাহ জাদরান, মোহাম্মদ শেহজাদরা রানের ফোয়ারা ছুটাতে পারেন। সঙ্গে দেখা যেতে পারে রাসেলের বিস্ফোরক ব্যাটিং, ইসুরু উদানার মারকুটে ইনিংস।

স্পিনে দেশিদের মধ্যে লেগস্পিনার রিশাদ প্রতিপক্ষকে চমকে দিতে পারেন। এ ছাড়া বিদেশিদের মধ্যে আরেক আফগান লেগস্পিনার কায়েস আহমেদ বিগ ব্যাশ ছেড়ে আসবেন বিপিএলে ঢাকার হয়ে খেলতে। দুই লেগি যে কোনো দলের জন্য হতে পারেন বড় বাধা।

পেস আক্রমণেও অভিজ্ঞ ঢাকা। মাশরাফির সঙ্গে আছেন জাতীয় দলে খেলা রুবেল হোসেন-শফিউল ইসলাম-ইবাদত হোসেন। আর বিদেশিদের মধ্যে টি-টেন লিগে ভালো করা আফগান তরুণ ফজল হক ফারুকীও আছেন। আর মিডিয়াম পেসার হিসেবে রাসেল তো আছেনই।

দল নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘কোনো চাপ নেই, আমার কোনো চাপ নেই। এরকম দল পেয়ে আমি খুশি। আমাদের দলের সবচেয়ে বড় দিক হল এখানে অনেক অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। সঙ্গে ম্যাচ উইনার খেলোয়াড়ও অনেক। দিনশেষে দলগতভাবে ভালো খেলতে হবে।’

তামিমের লক্ষ্যও চ্যাম্পিয়ন হওয়া, ‘যখন কোনো দল তৈরি করে, ওদের লক্ষ্যই তো থাকে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। একইভাবে আমাদেরও এটাই ইচ্ছা। ফলাফল আমাদের হাতে থাকে না, কিন্তু আমরা প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে পারি। আমাদের না পারার কোনো কারণ নেই, ভালো খেললে অবশ্যই সুযোগ থাকবে। পারফরম্যান্স আপ টু মার্ক থাকলে জেতা যাবে না। আমাদের কাজ পারফর্ম করা, বাকিটা ভাগ্য ও ফর্মের ওপর।’ 

একই দলে মাশরাফি-মাহমুদউল্লাহও আছেন। তামিম বলেন, ‘১৪ বছর ধরে একসঙ্গে আছি, নতুন কিছু না। মাশরাফি ভাইয়ের সঙ্গে তো আগের মতো একসঙ্গে এত সময় কাটানো হয় না। যখনই সুযোগ পাই, আমি, রিয়াদ ভাই ও মাশরাফি ভাই কথাবার্তা বলতে পছন্দ করি। রিয়াদ ভাই ওনার কথায় বলেছেন, আমাদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। আশা করি চ্যালেঞ্জটা নিয়ে আমরা ভালো করব।’

এদিকে দলটির কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন দেশি কোচ মিজানুর রহমান বাবুল। অভিজ্ঞতার কারণে নিজের দলকে এগিয়ে রাখছেন বাবুল, ‘সব মিলিয়ে আমরা দল ভালো। অভিজ্ঞতার কারণে আমার দলকে এগিয়ে রাখব। এটাই আমাদের শক্তির মূল জায়গা। টি-টোয়েন্টি অভিজ্ঞদের খেলা। বিপদে অভিজ্ঞরাই এগিয়ে থাকে। আমাদের বেশিরভাগই অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। খুব ভালো একটা কম্বিনেশন আমাদের আছে। ইনশাআল্লাহ আমরা ভালো করব।’

মিনিস্টার ঢাকা

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক) তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা, নাজিবউল্লাহ জাদরান, আন্দ্রে রাসেল, ইসুরু উদানা, কায়েস আহমেদ, শুভাগত হোম চৌধুরী, মোহাম্মদ নাঈম, আরাফাত সানি, মোহাম্মদ শেহজাদ, ফজল হক ফারুকী, ইমরান উজ জামান, শফিউল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, রিশাদ হাসান, শামসুর রহমান, ইবাদত হোসেন।

ঢাকা/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়