ঢাকা     বুধবার   ০৬ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ২২ ১৪২৯ ||  ০৬ জিলহজ ১৪৪৩

শ্রীলঙ্কার জবাব, পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৫৯, ২৪ মে ২০২২   আপডেট: ১৭:৪৪, ২৪ মে ২০২২
শ্রীলঙ্কার জবাব, পিছিয়ে নেই বাংলাদেশও

সংক্ষিপ্ত স্কোর: প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কা ১৪৩/২ (৪৬ ওভার)

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ- ৩৬৫/১০ (১১৬.২ ওভার) মুশফিক ১৭৫*।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে স্লো ওভার রেটের কারণে ১০ পয়েন্ট কাটে আইসিসি। কোনোভাবেই যেন স্লো ওভার রেটের খপ্পড়ে না পড়ে সেজন্য দ্রুত আরো একটি ওভার করতে চেয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু আলো থাকলেও সময় অতিক্রম হওয়ায় দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করে দেন আম্পায়াররা। 

বাংলাদেশের করা ৩৬৫ রানের জবাবে ২ উইকেটে ১৪৩ রানে মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে শ্রীলঙ্কা। অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে ৭০ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন। তার সঙ্গে আছেন নাইটওয়াচম্যান কাশুন রাজিথা। অতিথিরা পিছিয়ে ২২২ রানে।

শেষ সেশনে দুই দল সমানে সমান লড়াই করেছে। ২৪ ওভারে শ্রীলঙ্কা তুলেছে ৫৯ রান। বাংলাদেশ পেয়েছে ২ উইকেট। তবে একটি ক্যাচ মিস ও সাহস করে একটি রিভিউ নিলে দিনটা নিজেদের করে নিতে পারতো বাংলাদেশ। 

হাতে ৮ উইকেট রেখে শ্রীলঙ্কা শক্ত অবস্থানে আছে।  বাংলাদেশকে পিছিয়ে রাখা যাবে না মোটেও। তৃতীয় দিন ম‌্যাচের ভাগ‌্য লিখা হয়ে যেতে পারে। এদিন যারা প্রভাব বিস্তার করবে তাদের হাতে থাকবে ম‌্যাচের নাটাই।  

বোলিংয়ে ফিরেই সাকিবের উইকেট

প্রথম স্পেলে সাকিবের বোলিংয়ে ছিল না তেমন ধার। ৭ ওভারে ১ মেডেনে দিয়েছিলেন ১৯ রান। পড়ন্ত বিকেলে দ্বিতীয় স্পেল করতে এসেই সাফল্যের দেখা পেলেন। ওভারের প্রথম বলেই মিলল কুশল মেন্ডিসের উইকেট। তার আর্ম ডেলিভারীতে ব্যাট নামাতে সময় নিয়েছিলেন ডানহাতি ব‌্যাটসম‌্যান। বল তার পেছনের পায়ে আঘাত করে। বাংলাদেশের এলবিডব্লিউর আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। ৪৯ বলে ১১ রান করেন মেন্ডিস। দ্বিতীয় উইকেটে করুণারত্নের সঙ্গে তার জুটি ছিল ৪৪ রানের। 

ধনঞ্জয়াকে জীবন দিলেন জয়

উদ্বোধনী জুটি ভাঙার এক বল পরই বাংলাদেশ আরেকটি উইকেট পেতে পারত। তাইজুল ইসলামের বলে শর্ট লেগে ক্যাচ তুলেছিলেন দিমুথ করুণারত্নে। কিন্তু বল হাতের মুঠোয় জমাতে পারেননি করুণারত্নে। ৩৭ রানে তাকে জীবন দেন জয়। এর কিছুক্ষণ পরই লঙ্কান অধিনায়ক তুলে নেন ক‌্যারিয়ারের ২৯তম ফিফটি। রিভিউয়ের পর ক‌্যাচ মিস...করুণারত্নে বড় কিছু করলে বিপদেই পড়বে বাংলাদেশ।   

অবশেষে সাফল‌্য

চা বিরতির পর চতুর্থ ওভারে ইবাদত হোসেন ভাঙলেন উদ্বোধনী জুটি। ওশাদা ফার্নান্দো ৫৭ করে নাজমুল হোসেন শান্তর ক্যাচ হন। ৯৫ রানে ভাঙে দিমুথ করুণারত্নের সঙ্গে তার জুটি। ফার্নান্দোর ৯১ বলের ইনিংসে ৮ চার ও ১ ছয় ছিল। 

রিভিউয়ে অনাগ্রহ কেন?

শ্রীলঙ্কার উদ্বোধনী জুটি চোখ রাঙাচ্ছে। আঁটসাঁট বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কাকে চাপে রাখলেও সাফল্য পাচ্ছে না। দুয়েকবার সুযোগ তৈরি করলেও সেগুলো পক্ষে আসছে না। ২৬তম ওভারের ঘটনা। ইবাদতের করা দ্বিতীয় বলে টাইমিং মেলাতে পারলেন না করুণারত্নে। বল তার প্যাডে আঘাত করে। বাংলাদেশের জোড়ালো আবেদেন সাড়া দেননি আম্পায়ার।

ইবাদতের রিভিউ নেওয়ার আগ্রহ থাকলেও অধিনায়ক মুমিনুল তার ওপর আস্থা রাখতে পারলেন না। উইকেটের পেছন থেকে লিটনের পরামর্শে রিভিউ নেয়া থেকে বিরত থাকলেন। অথচ এক বল পরই দেখা যায় বল উইকেটে পিচ করে স্টাম্পে আঘাত করতো। মানে তিনটাই রেড মার্ক। রিভিউ নিলে ইবাদতের ঝুলিতে যোগ হতো করুণারত্নের উইকেট। হাতে তিনটা রিভিউ থাকতেও তা ব্যবহারে এতোটা অনাগ্রহ কেন? 

শ্রীলঙ্কার উদ্বোধনী জুটিতে আশার আলো

দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশন শ্রীলঙ্কার নামে লিখা হলো। বাংলাদেশকে অলআউট করে ব্যাট হাতে দারুণ জবাব দিচ্ছে শ্রীলঙ্কার দুই ওপেনার। অতিথিদের উদ্বোধনী জুটিতে আশার আলো। বিনা উইকেটে ৮৪ রান তুলে চা-বিরতিতে গেছে লঙ্কানরা। সব মিলিয়ে এ সেশনে ২৫.২ ওভার খেলা হয়েছে। ১ উইকেটে ৮৮ রান এসেছে। হাফ সেঞ্চুরি তুলে ওশাদা ফার্নান্দো ৫২ রানে অপরাজিত আছেন। ৩১ রানে ব্যাটিং করছেন দিমুথ করুণারত্নে। এখনও ২৮১ রানে পিছিয়ে আছে শ্রীলঙ্কা। 

ওশাদাকে জীবন দিলেন সাকিব

ক্যাচটা খুব দ্রুত এসেছিল। সাকিব সাহস করে হাতও বাড়িয়েছিলেন। কিন্তু তার হাতের মুঠোয় জমেনি। ফলে ৪৩ রানে জীবন পান লঙ্কান ওপেনার ওশাদা ফার্নান্দো। বাঁহাতি স্পিনার সাকিবের বলে ডাউন দা উইকেটে এসে শট খেলেছিলেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান ওশাদা। সাকিবের কাছে ফিরতি ক্যাচ যায়। নাগালে পাওয়ায় হাত বাড়িয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু বলটা তার হাতের মুঠোয় জমেনি। উদ্বোধনী জুটিতে বাংলাদেশকে বেশ ভালোই জবাব দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা। 

শ্রীলঙ্কার ভালো শুরু

বাংলাদেশের করা ৩৬৫ রানের জবাব দিতে নেমে দুই ওপেনার শুরুতে বেশ সতর্ক ব্যাটিং করেছেন। থিতু হওয়ার পর আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে এগোচ্ছেন দিমুথ করুণারত্নে ও ওশাদা ফার্নান্দো। ১১ ওভারে তাদের রান বিনা উইকেটে ৪৫। দুই পেসার ইবাদত ও খালেদের সঙ্গে মুমিনুল হক এরই মধ্যে বোলিংয়ে এনেছেন সাকিব আল হাসান ও মোসাদ্দেককে। নতুন বলে কেউই ব্রেক থ্রু এনে দিতে পারেননি। 

ছয় ডাকের ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রান করার রেকর্ড

জয়কে দিয়ে শুরু। ইবাদতকে দিয়ে শেষ। মাঝে আরো চার ব্যাটসম্যানের ডাক। সব মিলিয়ে ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে রানের খাতা খুলতে পারেননি ছয় ব্যাটসম্যান। টেস্টে এক ইনিংসে এটি ষষ্ঠ ছয় ডাকের ঘটনা। বাংলাদেশের দ্বিতীয়।

তবে এই ইনিংসের মধ্য দিয়ে অনন্য এক রেকর্ডও গড়েছে বাংলাদেশ। ছয় ডাকের ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ড গড়েছে মুমিনুলের দল। এর আগে ছয় ডাকের ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রান ছিল ১৫২। মুশফিকের ১৭৫ ও লিটনের ১৪১ রানের সুবাদে বাংলাদেশের রান ৩৬৫। 

২০০২ সালে বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৮৭ রানে অলআউট হয়েছিল। ওই ইনিংসেও ছিল ছয়টি ডাক। এছাড়া পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউ জিল্যান্ডের রয়েছে এমন বিব্রতকর রেকর্ড।

ডাবল সেঞ্চুরি হলো না মুশফিকের, ৩৬৫ রানে থামল বাংলাদেশ

লং অফে বল পাঠিয়ে দুই রান নেওয়ার জন্য ডাক দিয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু ফিল্ডার বল ফেরত পাঠানোর আগে ইবাদত ক্রিজে ঢুকতে পারলেন না। ডাইভ দিয়ে চেষ্টা করেছিলেন। কাজ হয়নি। রান আউটে সমাপ্তি বাংলাদেশের ইনিংস। সঙ্গীর অভাবে মুশফিকুর রহিম পেলেন না ক্যারিয়ারের চতুর্থ ডাবল সেঞ্চুরি। ১৭৫ রানে নট আউট তিনি। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের পুঁজি ৩৬৫ রান। ৩৫৫ বলে ২১ চারে সাজানো তার ম্যারাথন ১৭৫ রানের ইনিংস। চট্টগ্রামের পর ঢাকাতেও রানের ফোয়ারা ছুটিয়ে গেছেন বাংলাদেশের ব্যাটিং স্তম্ভ।  

লক্ষ্যে পৌঁছে শক্ত অবস্থানে বাংলাদেশ

মধ্যাহ্ন বিরতির আগে শেষ বল। ধনঞ্জয়া ডি সিলভার বল লেগ সাইডে পাঠিয়ে ১ রান নিয়ে নিজের কাছে স্ট্রাইক রাখলেন মুশফিকুর রহিম। কিন্ত টিভি আম্পায়ার জানালেন, বলটা নো ছিল। শেষ উইকেটে ব্যাটিং করছে বাংলাদেশ। স্ট্রাইকে থাকা ইবাদতকে ফেরাতে পারলেই বাংলাদেশের ইনিংস শেষ। কিন্তু অফস্পিনারের শেষ বল আটকে দিলেন ইবাদত। 

হাতে ১ উইকেট রেখে দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশন শেষ করেছে বাংলাদেশ। এ সেশনে দুই দল সমানে-সমান। ২৮ ওভারে বাংলাদেশ তুলেছে ৮৪ রান। শ্রীলঙ্কা তুলে নিয়েছে ৪ উইকেট। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের রান ৯ উইকেটে ৩৬১। 

প্রথম ইনিংসে ৩৫০ রানের বেশি করতে চেয়েছিল বাংলাদেশ। নিজেদের লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ। এখন পুঁজি যত বাড়বে বাংলাদেশের এগিয়ে থাকার সম্ভাবনাও তত বাড়বে। দেড়শ রান পেরিয়ে মুশফিক ডাবলের পথে হাঁটছেন। ১৭১ রানে ব্যাটিং করছেন। তাকে সঙ্গ দেওয়া ইবাদত এরই মধ্যে ক্যারিয়ারের দীর্ঘতম ইনিংস খেলে ফেলেছেন। ১৬ বলে তার রান শূন্য। এর আগে সর্বোচ্চ ১৪ বল খেলেছিলেন। 

দুজন দশম উইকেট জুটিতে ৩৬ বলে ১২ রান যোগ করেছেন। তাদের ব্যাটে বাংলাদেশ কতূদর যায় সেটাই দেখার। 

রিভিউ নিয়ে বাঁচলেন ইবাদত

শর্ট বলে ইবাদতকে পরীক্ষায় ফেলেছিলেন আশিথা। ডানহাতি পেসারের বলে নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি ইবাদত। লাফিয়ে বল খেলার চেষ্টায় ছিলেন। কট বিহাইন্ডের আবেদন করে শ্রীলঙ্কা। তাতে সাড়াও মেলে। কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে রিভিউ নেন ইবাদত। রিপ্লেতে দেখা যায় বল কোনো কিছুর ছোঁয়া না পেয়েই যায় ডিকবেলার গ্লাভসে। রিভিউ নিয়ে শূন্য রানে বেঁচে যান ইবাদত।   

খালেদও ফিরলেন শর্ট বলে

লেজের ব্যাটসম্যানদের ক্রমাগত শর্ট বল করছেন শ্রীলঙ্কার পেসাররা। তাতে মিলছে সাফল্য। তাইজুল ইসলামের পর আশিথার শর্ট বলে কাবু খালেদ আহমেদ। ডানহাতি পেসারের শর্ট বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে শূন্য রান খালেদের। নতুন ব্যাটসম্যান ইবাদত হোসেন। 

মুশফিককে সঙ্গ দিয়ে ফিরলেন তাইজুল

মুশফিকের সঙ্গে অষ্টম উইকেটে ৪৯ রানের জুটি গড়লেন তাইজুল ইসলাম। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান স্পিনারদের বিপক্ষে সাবলীল ব্যাটিং করলেও পেসে বেশ দুর্বল। সেখানেই ফাঁদ পেতেছিল শ্রীলঙ্কা। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে দ্রুত গতির বোলার অশিথার শর্ট বলে ব্যাট সরাতে পারেননি তাইজুল। গ্লাভসে লেগে বল যায় উইকেটের পেছনে। জুটিতে ১৫ রান যোগ করে অবদান রাখেন তাইজুল। 

মুশফিকের দেড়শতে ভালো অবস্থানে বাংলাদেশ

রমেশ মেন্ডিসের বল আলতো টোকায় লেগ সাইডে পাঠিয়ে ২ রান মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে। ১৪৯ থেকে তার রান ১৫১। সাত সকালে সঙ্গী হারালেও মুশফিক পথ হারাননি। লিটন ও মোসাদ্দেকের উইকেট হারানোর পর দলের স্কোর আগলে রেখেছেন তিনি। ২৯১ বলে ১৯ চারে দেড়শতে পৌঁছেছেন মুশফিক। ক্যারিয়ারে তিনটি ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন মুশফিক। আজ কি আরেকটি ডাবলের দেখা পাবেন তিনি?

১৪১ রানে থামলেন লিটন, মোসাদ্দেকের শূন‌্য

দ্বিতীয় দিনের সকালের শুরুটা ভালো হয়েছিল বাংলাদেশের। নতুন বলে ৭ ওভার কাটিয়ে দিয়েছিলেন মুশফিক ও লিটন। সাবলীল ব্যাটিংয়ে আসছিল রান। কিন্তু অষ্টম ওভারে শ্রীলঙ্কা পেল জোড়া সাফল্য। 

পেসার রাজিথার অফস্টাম্পের বাইরের বলে ব্যাট সরাতে পারেননি লিটন। দ্বিতীয় স্লিপে কুশল মেন্ডিস দারুণ ক্যাচ নেন। দীর্ঘ অপেক্ষার পর অতিথিরা পেল উইকেটের স্বাদ। ১৪১ রানে থামলেন লিটন। ভাঙল তার ও মুশফিকের ম্যারাথন ২৭২ রানের মহাকাব্যিক জুটি। ২৪৬ বলে ১৬ চার ও ১ ছক্কায় ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসটি সাজান লিটন।

দুই বল পর শ্রীলঙ্কার আরেকটি সাফল্য। আড়াই বছর পর দলে ফেরা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত প্রায় একই রকম ডেলিভারিতে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন। ফেরার ম্যাচে রানের খাতা খুলতে পারেননি মোসাদ্দেক। 

জোড়া সাফল্যে রাজিথা টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথম ফাইফারের স্বাদ পেলেন। আগের দিন ডানহাতি পেসার ৩ উইকেট পেয়েছিলেন। 

বড় কিছুর প্রত্যাশায় লিটন-মুশফিকের দিকে তাকিয়ে বাংলাদেশ

ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নেমেছে বাংলাদেশ। আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস নতুন করে দিন শুরু করেছেন। 

প্রথম ঘণ্টায় বড় পরীক্ষা

৮০ ওভারের পর নতুন বল নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। বলের ঔজ্জ্বলতা এখনও কমেনি। দিনের শুরুতে নতুন বলে পেসাররা সুবিধা পাবেন। বাড়তি গতি থাকবে। সিম মুভমেন্টও থাকবে। তাইতো প্রথম ঘণ্টাতে মুশফিক ও লিটনকে বড় পরীক্ষা দিতে হবে। বাংলাদেশের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যানের থেকে প্রথম ঘণ্টায় সাবলীল ব্যাটিংয়ের প্রত্যাশা করছেন। এ ঘণ্টায় কোনো বিপর্যয় চান না তিনি। 

প্রথম দিন নতুন বলেই বাংলাদেশকে নাড়িয়ে দিয়েছিলেন দুই অতিথি পেসার। ৪৫ মিনিটের লড়াইয়ে ২৪ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। এরপর লিটন ও মুশফিকের ব্যাটে  উদ্ধার হয় বাংলাদেশ। 

কতদূর যেতে পারবে বাংলাদেশ?

অসাধারণ ব্যাটিংয়ে শ্রীলঙ্কার বোলিং আক্রমণ রুখে দিন লিটন ও মুশফিক বাংলাদেশ শিবিরে ফিরিয়েছেন স্বস্তি। সকালের অস্বস্তি কাটিয়ে মধ্য দুপুর, দুপুর গড়িয়ে পড়ন্ত বিকেলে বাংলাদেশকে সোনামাখা দিন উপহার দিয়েছেন দুই সেঞ্চুরিয়ান। প্রতি আক্রমণে গিয়ে কীভাবে প্রতিপক্ষকে নাস্তানাবুদ করতে হয় তা খুব ভালো করে দেখিয়েছেন তারা। তাতে বাংলাদেশ শক্ত অবস্থানে রয়েছে। দ্বিতীয় দিন কতদূর যেতে পারবে বাংলাদেশ? মুশফিক ও লিটনের সামনে ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নেওয়ার দারুণ সুযোগ রয়েছে। মুশফিক ক্যারিয়ারের চতুর্থ, লিটন প্রথম ডাবল কি পাবেন? ২২ গজে তাদের ব্যাট হাসলে বাংলাদেশের রান পাহাড়সম হবে বলার অপেক্ষা রাখে না।

ঢাকা/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়