ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ১০ ১৪৩১

পাঁচ গোল করে হালান্ড গড়লেন ইতিহাস, ম্যানসিটি নিশ্চিত করলো শেষ আট

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪৫, ১৫ মার্চ ২০২৩   আপডেট: ১২:১৯, ১৫ মার্চ ২০২৩
পাঁচ গোল করে হালান্ড গড়লেন ইতিহাস, ম্যানসিটি নিশ্চিত করলো শেষ আট

আরবি লাইপজিগের মাঠে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ১-১ গোলে ড্র করেছিল ম্যানচেস্টার সিটি। কিন্তু আশা ছিল ফিরতি লেগ নিয়ে। যেহেতু এই লেগ হবে সিটির ঘরের মাঠ ইতিহাদ স্টেডিয়ামে। কিন্তু সেই আশা এভাবে পূরণ করবে স্কাই ব্লুজরা সেটা হয়তো কেউ ভাবেনি।

মঙ্গলবার রাতের এই ম্যাচে একাই পাঁচ গোল করে ইতিহাস গড়েছেন আরলিং হালান্ড। আর ম্যানসিটি পেয়েছে ৭-০ ব্যবধানের বিরাট জয়। দুই লেগ মিলিয়ে ৮-১ ব্যবধানের বিশাল জয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

হালান্ড এদিন প্রথমার্ধেই হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন। এরপর করেন আরও দুই গোল। এর মধ্য দিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউট পর্বের ম্যাচে দ্বিতীয় কোনো ফুটবলার হিসেবে পাঁচ গোল করার রেকর্ড গড়েন। তার আগে লিওনেল মেসি ২০১২ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে প্রথম কোনো খেলোয়াড় হিসেবে নকআউট পর্বে করেছিলেন পাঁচ গোল। এছাড়া লুইজ আদ্রিয়ানো ২০১৪-১৫ মৌসুমে পাঁচ গোল করেছিলেন চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপপর্বের ম্যাচে।

এই ম্যাচে পাঁচ গোল করার মধ্য দিয়ে ম্যানসিটির হয়ে চলতি মৌসুমে রেকর্ড ৩৯ গোল করার নজির স্থাপন করেছেন হালান্ড। তার আগে ১৯২৮-২৯ মৌসুমে টমি জনসন রেকর্ড ৩৮ গোল করেছিলেন। আজ তাকে ছাড়িয়ে ম্যানসিটির ইতিহাসে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোল করার রেকর্ডটি নিজের দখলে নিয়ে নিলেন এই তারকা।

শুধু কি তাই? আজকের ৫ গোলের মধ্য দিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগে তার মোট গোল বেড়ে হয়েছে ৩০। চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী (২২ বছর ২৩৬ দিন) খেলোয়াড় হিসেবে ৩০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন এই নরওয়েজিয়ান।

অবশ্য মৌসুম শেষে ম্যানসিটির জার্সি গায়ে মোট গোলে তিনি কোথায় গিয়ে থামেন সেটাও দেখার বিষয়।

হালান্ড এদিন ম্যাচের ২২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে, এরপর ২৪, ৪৫+২, ৫৩ ও ৫৭ মিনিটে গোল পাঁচটি করেন। এ ছাড়া ৪৯ মিনিটে ইলকে গুনদোগান ও ৯০+২ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইন গোল করে ৭-০ ব্যবধানের জয় নিশ্চিত করেন।

এমন গোল উৎসব করে বেজায় খুশি হালান্ড, ‘খুবই দারুণ একটি রাত। এই প্রতিযোগিতায় খেলতে পেরে আমি গর্বিত। চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলাটা আমি উপভোগ করি। নিজের পাঁচ গোল, দলের ৭-০ ব্যবধানের— এক কথায় অসাধারণ।’

‘আমার শক্তিমত্তার জায়গা হলো গোল করা। সত্যি কথা বলবো? আজ অনেক গোল হয়ে গেছে। এতো গোল হবে ভাবিনি। আমি কেবল বল জালে জড়ানোর চেষ্টা করেছি। চেষ্টা করেছি যেখানে গোলরক্ষক নেই সেদিক দিয়ে মারার।’ যোগ করেন হালান্ড।

ঢাকা/আমিনুল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়