ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ভাদ্র ১৪২৫, ২১ আগস্ট ২০১৮
Risingbd
শোকাবহ অগাস্ট
সর্বশেষ:

আলু ব্যবসায়ীদের ব্যাপক লোকসানের আশঙ্কা

মুহাম্মদ নূরুজ্জামান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৭-১০-০৩ ৬:৩০:২৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১০-২০ ৯:৫৮:১১ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা : আলুর দাম কমে যাওয়ায় খুলনার তিনটি হিমাগারে মজুদ ৩১ হাজার বস্তা আলু থেকে মোটা অঙ্কের টাকা  লোকসানের আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা। বর্তমান বাজার দরে বস্তাপ্রতি ৫০০ টাকা হিসাবে ১৫ কোটি টাকা লোকসান গুনতে হবে।

বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, আলু রপ্তানিতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি নেই। ফলে অনেক আলু হিমাগারে রয়ে গেছে। এবার চাহিদার তুলনায় উৎপাদন হয়েছে অনেক বেশি। কোল্ডস্টোরেজগুলো থেকে ব্যবসায়ীরা গত ১৫ দিন আলু বের করেননি। আর ৬০-৬৫ দিন পর উত্তরাঞ্চল থেকে নতুন আলু আসতে শুরু করবে। তখন মজুদ আলু ফেলে দেওয়া অথবা গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা ছাড়া উপায় থাকবে না। ২০১৪-১৫ মৌসুমে আলুর কেজি তিন টাকা হওয়ায় খুলনার আড়ৎদাররা ২৫০ বস্তা আলু ভৈরব নদে ফেলে দেয়। মজুদ আলু থেকে এবার রোহিঙ্গাদের জন্য ১০০ মেট্টিক টন ত্রাণ হিসেবে দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন এ দুরবস্থা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, বাণিজ্য ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছেন। এ চিঠিতে আলু কিনতে সরকারকে অনুরোধ করা হয়েছে।

দৌলতপুর আইস এন্ড কোল্ডস্টোরেজের প্রতিনিধি মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী জানান, এ হিমাগারে ৩০ হাজার বস্তা আলু মজুদ ছিল। অক্টোবর মাসেও মজুদের পরিমাণ ১৪ হাজার বস্তা। আলু উঠার সময় প্রতি বস্তার মূল্য ছিল ১৪০০ টাকা। এখনকার মূল্য ১ হাজার ২০ টাকা।

মাহমুদ কোল্ডস্টোরেজের ম্যানেজার মো. আজমল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে বলেন, ১৪ হাজার ৪৪৮ বস্তা আলু মজুদ করা হয়। বছর শেষ হতে চললেও এখনো মজুদের পরিমাণ ৬ হাজার ১২৩ বস্তা। প্রতি বস্তায়  হিমাগারকে ২৬০ টাকা ভাড়া দিতে হয়। ১২ জন মজুদদার হিমাগারের ধারে ভিড়ছেন না। প্রতি বস্তায় ৫০০ টাকা লোকসান হবে। হিমাগারে প্রতিদিন তিন/চার ঘণ্টা লোডশেডিং হয়। আলু সতেজ রাখতে জেনারেটর ব্যবহার করা হচ্ছে।

শিরোমনি গ্রামের অধিবাসী আলু ব্যবসায়ী মনিরুল ইসলাম জানান, ব্যাংক থেকে ঋণ ও কোল্ডস্টোরেজ থেকে অগ্রিম টাকা নিয়ে এক হাজার বস্তা আলু মজুদ রেখেছেন। আনুমানিক পাঁচ লাখ টাকা লোকসান দিতে হবে। ফলে ব্যবসায়ীরা নিরুৎসাহিত হচ্ছেন।

জুন মাসে প্রতি কেজি আলু ২৪ টাকায় বিক্রি হলেও এখন ১৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।



রাইজিংবিডি/খুলনা/০৩ অক্টোবর ২০১৭/মুহাম্মদ নূরুজ্জামান/বকুল

Walton Laptop
 
     
Walton