ঢাকা, শনিবার, ১২ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
Risingbd
অমর একুশে
সর্বশেষ:

গাজীপুরস্থ আইইউটির ভিসির অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ

হাসমত আলী : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৩ ৫:২৭:১২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-২৩ ৫:২৭:১২ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর : গাজীপুরে ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলোজির (আইইউটি) ভিসি অপসারণের দাবিতে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষক ও কর্মচারীদের একাংশ বিক্ষোভ করেছেন। ভিসি ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে চাইলে আন্দোলনকারীরা মূল গেটে তালা লাগিয়ে ভেতরে অবস্থান নেন। ফলে গেটের বাইরে গাড়িতে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও প্রবেশ করতে পারেননি ভিসি।

জানা গেছে, শিক্ষার্থী এবং শিক্ষক ও কর্মচারীদের একাংশ মঙ্গলবার সকাল ৭টা দিকে প্রতিষ্ঠানে মূল ফটক বন্ধ করে ভেতরে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ভিসি ড. মুনাজ আহমেদ নূর গাড়ি নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে চাইলে বিক্ষোভকারীরা মূল ফটকে তালা লাগিয়ে দেন। এ সময় তারা প্ল্যাকার্র্ড হাতে ‘এক দফা এক দাবি মুনাজ তুই কবে যাবি’সহ বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। এ সময় গেইটের আনসার সদস্যরা ভিসির গাড়ি ঘিরে রাখে। খবর পেয়ে দুপুর ১টার দিকে জয়দেবপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু আন্দেলনকারীরা তাদের দাবির পক্ষে অনড় থাকেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক জানান, ড. মুনাজ আহমেদ নূর ভিসি হিসেবে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকে ফ্যাকাল্টি এবং স্টাফ মেম্বারদের প্রতি অপেশাদারি আচরণ করেছেন। কারণ দর্শানো ছাড়াই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী এমনকি সিকিউরিটি গার্ডদের চাকরি থেকে অপসারণ করেছেন। এছাড়া প্রশাসনিক বিধির অপব্যবহার করে একটি বৈষম্যমূলক কর্মক্ষেত্রের তৈরি করেছে, যা কার্যক্ষেত্রে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে। বেতন-ভাতা বৃদ্ধি, অস্থায়ী পদকে স্থায়ীকরণ, পদ বাড়ানোসহ নানা দাবিতে আন্দোলন করলেও তিনি আমলে নিচ্ছেন না।



তাছাড়া সক্ষমতার চেয়ে বেশি ছাত্র নেওয়া, হলে সিট দেওয়ার ক্ষেত্রে অনিয়ম, হলে সিট খালি থাকা সত্ত্বেও সিট না দেওয়া, অপর্যাপ্ত শিক্ষক, ক্যাফেটেরিয়াতে বাড়তি ছাত্রদের ভিড়, খাবার সংকট, কোনো যৌক্তিক কারণ ছাড়াই টিউশন ফি হাঠাৎ বাড়ানোসহ নানা অনিয়মের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরাও শিক্ষকদের আন্দোলনের সঙ্গে একাট্টা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের সব সমস্যার কথা তুলে ধরে ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে ওআইসির মহাসচিব ড. ইউসাফ বিন আহমদ আল ওথাইমেনের কাছে চিঠির মাধ্যমে অভিযোগ করা হয়েছে। ওই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ওআইসির তিনজন প্রতিনিধিবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে তদন্ত করা হলেও কমিটি এখন পর্যন্ত কোনো রিপোর্ট প্রদান করেনি।

এ বিষয়ে ভিসি ড. মুনাজ আহমেদ নূর সাংবাদিকদের জানান, কিছু শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সম্মিলিতভাবে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। অভিযোগ বিষয়ে ওআইসির তদন্ত রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত আন্দোলনকারীদের অপেক্ষা করা উচিত।

উল্লেখ্য, ড. মুনাজ আহমেদ নূর ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে আইইউটির ভাইস-চ্যান্সেলর হিসেবে যোগদান করেন।



রাইজিংবিডি/গাজীপুর/২৩ জানুয়ারি ২০১৮/হাসমত আলী/মুশফিক

Walton
 
   
Marcel