ঢাকা, বুধবার, ১১ মাঘ ১৪২৪, ২৪ জানুয়ারি ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

ওদের চোখে পরিবর্তনের স্বপ্ন

ফয়সাল উদ্দিন নীরব : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১২-২৬ ৩:২৯:১৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১২-২৬ ৩:২৯:১৬ পিএম
হুইসেল বাংলাদেশের সদস্যরা

ফয়সাল উদ্দীন নীরব: ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজার দুর্ঘটনার দিন সন্ধ্যায় দুবাই থেকে ফেসবুকের মাধ্যমে একটি ভার্চুয়াল ইভেন্ট তৈরি করেন প্রবাসী মাহিদুল ইসলাম নকিব। উদ্দেশ্য ছিল- চট্টগ্রামের সচেতন নাগরিকদের পক্ষ থেকে রানা প্লাজায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কিছু করা।

মাহিদুল ইসলামের আহবানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য চট্রগ্রামের অনেক তরুণ সাড়া দেয়। চট্টগ্রাম থেকে বিষয়টি পরিচালনা করেন শাকিল মাহমুদ ভুঁইয়া। এই ভার্চুয়াল ইভেন্টের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় চারশ জনকে সহযোগিতা করা হয়। ইভেন্টের একটি টিম শাকিল মাহমুদের নেতৃত্বে প্রায় দেড় মাস রানা প্লাজার সামনে অবস্থান করে সহায়তা কাজ পরিচালনা করে। ততদিনে দুবাই থেকে বাংলাদেশে চলে আসেন ইভেন্টের উদ্যোক্তা মাহিদুল ইসলাম। এভাবেই যাত্রা শুরু করে অনলাইনভিত্তিক সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘হুইসেল বাংলাদেশ’। পরবর্তীতে তারা অনলাইন এবং অফলাইনে- দু’ভাবেই কাজ করে সংগঠনটি।

হুইসেল বাংলাদেশ পরিবর্তন চায় এলাকাভিত্তিক নয়, সমগ্র দেশব্যাপী। পরিবর্তনের জন্য সবার আগে প্রয়োজন গণসচেতনতা। সংগঠনটি মনে করে পর্যাপ্ত জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে না পারলে পরিবর্তনের স্বপ্ন শুধু স্বপ্নই থেকে যাবে। তারা এ জন্য মাঠ পর্যায়ে কিছু কাজ করছে। যেমন: একটি কম্বল একটি জীবন, প্রজেক্ট বই টোকাই, শীতবস্ত্র বিতরণ, সাপোর্ট হরিজন, ভাষা শহীদ: আমরা তোমাদের কতটুকু চিনি?, প্রজেক্ট সুরভী বিকাশ।

অনলাইনে সংগঠনটি যে কাজগুলো করছে তার মধ্যে রয়েছে- সচেতনতা বৃদ্ধি ও ইতিবাচক সংবাদপ্রচার, মানবতামূলক ও জনসচেতনতামূলক কাজ। সংগঠনটির হুইসেল ব্লাডলিংক নামে একটি প্রজেক্ট রয়েছে যার মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন জায়গায় রক্ত দেওয়া, রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করাসহ রক্তদানে তরুণদের উৎসাহিত করা হয়। মাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘সংগঠনটি পরিচালনার পিছনে সবচেয়ে বড অনুপ্রেরণা হলো আমেরিকার ৩৫তম প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডির বিখ্যাত উক্তি- দেশ আপনাকে কি দিল সেটা বড় বিষয় নয়, আপনি দেশকে কি দিলেন সেটাই বড় বিষয়।’

নকিব আরো জানান, সামাজিক এই সংগঠনের মূল লক্ষ্য মানবিক মূল্যবোধের পরিবর্তন। এজন্য খুব শিগগির আমরা শিক্ষার্থীদের জন্য দেশব্যাপী কর্মশালার আয়োজন করবো।

সংগঠনটি এ বছর বিজয় দিবসে ব্যতিক্রম এক আয়োজন করে। আয়োজনের মূল বিষয় ছিল- ‘১১-তে বিজয়’। সেখানে তুলে ধরা হয় মুক্তিযুদ্ধের ১১টি সেক্টরের বীরদের বীরত্বগাঁথা। ১৬ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সংগঠনটির সদস্যরা সকাল ৮টা থেকে শুরু করে এই কার্যক্রম। শহীদ মিনারে মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা জানানোর পর লিফলেট বিতরণ করা হয়। এভাবে মুক্তিযুদ্ধের ১১টি সেক্টরের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস প্রজন্মের কাছে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে তারা। সংগঠনটির প্রজেক্ট ‘বই টোকাই’-এর প্রথম পাঠাগার ঢাকার তেজগাঁয় অবস্থিত। পাঠাগারটিতে প্রায় ৭০০ বই রয়েছে। দ্বিতীয় পাঠাগারটির কার্যক্রম শুরু হয়েছে চট্টগ্রামে।

সামজিক সংগঠন হিসেবে ‘জয়বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০১৭’ এর শীর্ষ ৫০টি সামাজিক সংগঠনের মধ্যে নাম ছিল হুইসেল বাংলাদেশের। বর্তমানে সংগঠনটি ইয়ুথ বাংলার সঙ্গে কাজ করছে। সংগঠনের বর্তমান সদস্য সংখ্যা ২০০ জন। এদের মধ্যে নিয়মিত ১০০ জন বিভিন্ন কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৬ ডিসেম্বর ২০১৭/ফিরোজ/তারা

Walton
 
   
Marcel