ঢাকা, শনিবার, ২ পৌষ ১৪২৪, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

মাত্র ১০০ দিনেই বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যাটারি!

মো. রায়হান কবির : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১১-২৪ ২:৩৫:০৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১১-২৪ ২:৩৫:০৯ পিএম

মো. রায়হান কবির : বর্তমান বিশ্বের প্রযুক্তি জগতের প্রবাদ পুরুষ ধরা হয় টেসলার প্রতিষ্ঠাতা এলন মাস্ককে। দিনকে দিন তিনি বিস্ময় উপহার দিয়ে যাচ্ছেন। কখনো দ্রুত গতির ইলেকট্রিক গাড়ি বানিয়ে, কখনো বা হাইপার লুপ নামের ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম বানিয়ে।

মোট কথা প্রযুক্তি সম্পর্কিত কোনো বিস্ময় দেখা গেলে সেখানে এলন মাস্ক বা তার প্রতিষ্ঠানের নাম থাকবে অবধারিত ভাবেই। এবার আলোচনায় আসলেন বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যাটারি বানিয়ে। ১০০ মেগাওয়াটের বিশাল এই লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি এলান মাস্ক বানিয়েছেন বাজি বা বেট ধরে মাত্র ১০০ দিনে! তাও আবার কেমন বাজি? বানাতে না পারলে পুরো টাকা ফেরত!

সাউথ অস্ট্রেলিয়ান রাজ্য সরকারের ফান্ড নিয়ে বানানো এই ব্যাটারি রাজ্যের নবায়নযোগ্য শক্তি বা রিনিউয়াবল এনার্জির প্রকল্পের অংশ। আগামী কয়েকদিনের ভেতর এর পরীক্ষামূলক ব্যবহার শুরু হবে। আর যদি তা সফল হয় তবে ডিসেম্বরের ১ তারিখ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে।

এলন মাস্কের এই বাজি ছিল বিশ্বের আলোচিত বাজির একটি। কেননা তিনি বলেছিলেন তিনি যদি ১০০ দিনে এটা বানাতে না পারেন তবে এটা বানানোর বিল ৫০ মিলিয়ন ইউএস ডলার তিনি ফেরত দেবেন। এবং তিনি তা সাফল্যের সঙ্গেই পেরেছেন।

গত সেপ্টেম্বরে সাউথ অস্ট্রেলিয়া ব্ল্যাক আউট হলে অস্ট্রেলিয়ান রাজ্য সরকার তাদের পাওয়ার সিস্টেমে ব্যাপক পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয়। এটা তারই একটা অংশ। সেপ্টেম্বরের সেই ‘অন্ধকার’ রাত যাতে আর ফিরে না আসে তাই রাজ্য সরকার ব্যাপক উদ্যোগ নেয়। প্রায় ৯০টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বিড করে টেসলা এই প্রকল্প পায়। এই প্রকল্প থেকে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ যাবে এবং তা প্রায় ৩০ হাজার বাড়িতে বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে।

এলন মাস্কের এই চ্যালেঞ্জ বিশ্বের সকলের কাছে দৃষ্টান্ত, বিশেষ করে আমাদের মতো দেশের জন্যে যারা প্রায়শই বিদ্যুৎ সমস্যায় ভোগে। দ্রুততার সঙ্গে সমস্যা সমাধানের জন্য এলন মাস্ক একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন, যা বিশ্বের সকলের কাছে একটি বার্তা দিল। চাইলেই সব সম্ভব। মাত্র ১০০ দিনে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের ব্যবস্থা সত্যি বিস্ময়কর।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৪ নভেম্বর ২০১৭/ফিরোজ 

Walton
 
   
Marcel