ঢাকা, সোমবার, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, ০৬ এপ্রিল ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

অন্ননালী নাই, নাভিতে ছিদ্র করে খাবার দিতে হয় তাকে!

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-২৫ ৯:৩০:৩৯ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-২৫ ১২:২১:৩৮ পিএম

শাহরিয়াজ হোসেন শোভন। শিশুটির বয়স মাত্র ১৩ মাস। ওর আধো আধো কথা শুনে প্রাণ জুড়িয়ে যায়। মায়াবি চোখে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকায়। ক্ষুধা পেলে অন্য শিশুর মতোই কাঁদে। তবে অন্য শিশুর মতো শোভন খেতে পারে না।

মুখ দিয়ে খাওয়ার সুযোগ নেই তার। জন্ম থেকেই শোভনের অন্ননালী না থাকায় বিকল্পভাবে নাভির বরাবর ছিদ্র দিয়ে নলের সাহায্যে তরল খাবার দিতে হয় তাকে। এভাবে খাবার খেয়ে বেঁচে আছে শোভন।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার গড়েরকান্দা গ্রামের শরীফ হোসেন জানান, ঢাকার শিশু হাসপাতালে চিকিৎসকরা সাধ্যমত চেষ্টা করেও তার অন্ননালী প্রতিস্থাপন করতে পারেননি।

তাই শোভনকে ভারতের ভেলোর কিংবা সিঙ্গাপুরে নিয়ে চিকিৎসার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। তার অন্ননালী স্থাপন করতে না পারলে তাকে বাঁচানো যাবে না বলেও চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

বিদেশে চিকিৎসা করাতে ও প্রয়োজনীয় খাদ্য কিনতে দরকার কমপক্ষে ৬ থেকে ৭ লাখ টাকা। কিন্তু এতো টাকা কোথায় পাবে শোভনের বাবা-মা।

শোভনের মা অসহায় শারমিন সুলতানা জানান,বিগত ১৩ মাস ধরে শোভনের চিকিৎসা ও খাদ্য কিনতে গিয়ে নি:স্ব হয়ে পড়েছেন তারা। সামান্য জায়গা জমি যা ছিল তা সন্তানের সু-চিকিৎসায় সব বেঁচে দিয়েছন। এখন তাদের এমন অবস্থা যে সন্তানের দুধ কেনার পয়সার জন্য অন্যের কাছে হাত পাততে হয়। কিন্তু এভাবে হাত পেতে আর কতদিন শোভনকে বাঁচিয়ে রাখা যাবে?

শারমিন সুলতানা আরো জানান, প্রতিদিন সন্তানের জন্য কারো না কারো কাছে হাত পাততে হয় তাদের। কোন কোন দিন ভাতের ফ্যান (মাড়) খাওয়াতে হয়। ক্ষুধা লাগলে সন্তানের কান্না মা হিসেবে সহ্য করা যে কত কষ্টের তা মা ছাড়া আর কেউ জানে না।

তিনি ছেলের চিকিৎসায় সমাজের দানশীল ব্যক্তিদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছন। সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে সবটুকু সম্পদ বিক্রি করেছেন। এখন কিছুই নেই। তাই শোভনের চিকিৎসা ও খাদ্য কিনতে সমাজের বিত্তশালী দয়ালু ব্যক্তিদের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

শোভনের চিকিৎসায় সাহায্য পাঠাতে পারেন আপনিও।  তার জন্য ০১৯৩০৫৭০২১৯ (বিকাশ) নম্বরে সহযোগিতার অনুরোধ জানিয়েছেন শোভনের অসহায় বাবা-মা।



শাহীন/বুলাকী