RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১২ ১৪২৭ ||  ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

হবিগঞ্জ এখন বকের অভয়ারণ্য

মো. মামুন চৌধুরী || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:২১, ২৪ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৩:২১, ২৪ নভেম্বর ২০২০
হবিগঞ্জ এখন বকের অভয়ারণ্য

প্রশাসনের অব্যাহত অভিযানের ফলে বকপাখির অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে হবিগঞ্জ।  অভিযানে ফাঁদসহ শিকারিদের আটক করে অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড দেওয়া হচ্ছে।

জেলার আজমিরীগঞ্জ, নবীগঞ্জ, বাহুবল, লাখাই, বানিয়াচং, মাধবপুর, চুনারুঘাট উপজেলার হাওর ও পাহাড়ের বকপাখিদের রক্ষায় সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রশাসন, বন্যপ্রাণী প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ এবং সাতছড়ি বন্যপ্রাণী রেঞ্জের উদ্যোগে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। প্রশাসনের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন পরিবেশ প্রেমিকরা।

স্থানীয় পরিবেশপ্রেমিক তারেক তালুকদার বলেন, শীতকাল আসামাত্র একশ্রেণির লোকজন হাওরে ফাঁদ পেতে বক শিকার করে বিক্রি করে আসছিল। এখন ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বক শিকারিদেরকে সাজা দেওয়া হচ্ছে। এ কারণে জেলার বিভিন্ন এলাকার পাখি শিকারিরা আত্মগোপনে চলে গেছেন। অনেকে আবার শিকার ছেড়ে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছেন।

হবিগঞ্জের বাসিন্দা শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) এর আজীবন সদস্য ড. জহিরুল হক শাকিল বলেন, আমাদের প্রকৃতি থেকে বক দিনে দিনে কমে যাচ্ছে। গ্রামে, হাওরে, নদীতে, বিলে ঝিলে আগের মতো বক দেখা যায় না। কোনো কোনো অঞ্চল থেকে হারিয়েই গেছে। কারণ, কিছু লোভী ও অবিবেচক মানুষ বক শিকার করছে।  আবার তারা যখন শহরে পাখি নিয়ে আসে তখন আরেক শ্রেণির লোকেরা সেগুলো কিনে নিচ্ছে। কারণ, নিষিদ্ধ পাখি ক্রয় করে তারাও আইন অমান্য করছে, অপরাধ করছে এবং পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করতে সহায়তা করছে। 

তিনি বলেন, ফসলের খেতে অতিরিক্ত ও বেহিসেবি রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ওষুধ প্রয়োগের ফলে হাওর, বিল. ঝিলের পানিতে সেসব পদার্থ মিশে ছোট মাছ, ব্যাঙাচি ও অন্য পোকা-মাকড় মরে যাচ্ছে।  বংশ বৃদ্ধি কমে যাচ্ছে। ফলে বক ও অন্যান্য পাখির খাবার কমে যাওয়ায় দিন দিন তাদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। বক মানুষের বন্ধু।  প্রকৃতিরও বন্ধু। অনেক অপ্রয়োজনীয় পোকামাকড় খেয়ে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। ফসলের উপকার করে।  ওদের মল মাটির উর্বরতা বাড়ায়। 

তিনি হবিগঞ্জে বক রক্ষায় প্রশাসনের অভিযানের প্রশংসা করে বলেন, এ অভিযানের ফলে বক নিরাপদ হচ্ছে। পরিবেশের জন্যও বিরাট উপকার বয়ে আনছে। 

হাওর এলাকার বাসিন্দা সমুজ মিয়া জানালেন- হাওরে একটি চক্র বক শিকারে সক্রিয়। প্রশাসনের অভিযান তাদের শিকারে বিরাট বাধার সৃষ্টি করছে। 

পরিবেশ প্রেমিক বন গবেষক আহমদ আলী বলেন, পরিবেশ রক্ষা না হলে আমাদের সবার জন্যই বিপর্যয় নেমে আসবে। পরিবেশ রক্ষার স্বার্থেই বক রক্ষায় সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. প্রকাশ রঞ্জন বিশ্বাস জানান, বক পরিবেশের উপকারী পাখি।  এটি রক্ষা করা সবার দায়িত্ব। বক রক্ষায় সবার সাথে আমরাও কাজ করছি। ফলে হাওরে বকের বিচরণ বাড়ছে।

তিনি বলেন- হবিগঞ্জ জেলার একদিকে পাহাড়। পাহাড় থেকে নেমে এসেছে অসংখ্য ছড়া। এসব ছড়ার মিলন হয়েছে অপরদিকের হাওরে। হাওরে রয়েছে নানা প্রজাতির মাছ। রয়েছে পোকা মাকড়। যা বক ও মাছরাঙা পাখির পছন্দের খাবার। সঙ্গত কারণে হাওরের কাছের বাঁশ বাগান ও গাছে গাছে বাসা বেঁধেছে হাজারো বক। 

হবিগঞ্জ/টিপু

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়