ঢাকা     শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯ ||  ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩

দূষণ রোধে তুরাগ নদে প্রতিবাদী নৌ-র‌্যালি

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪২, ২৫ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৪:৪৯, ২৫ ডিসেম্বর ২০২১
দূষণ রোধে তুরাগ নদে প্রতিবাদী নৌ-র‌্যালি

নদীকে দূষণমুক্ত করার দাবিতে তুরাগ নদে প্রতিবাদী নৌ-র‌্যালি করেছে পরিবেশবাদী সংগঠন বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলন।

নদী দিবস উপলক্ষে শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় গাজীপুর টঙ্গী ব্রীজ সংলগ্ন তুরাগ নদ থেকে ওই নৌ-র‌্যালি শুরু হয়। 

নৌ-র‌্যালিতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য শামসুন নাহার।

বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক আনোয়ার সাদত এর সভাপতিত্বে ও নদী বাঁচাও আন্দোলন সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় তুরাগ নদের পাড়ে একটি আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। 

আলোচনায় প্রধান অতিথি শামসুন নাহার বলেন, তুরাগ নদের পানি এতোটাই দূষিত যে গবেষণা ছাড়াই দৃশ্যমান। এই দূষিত পানি মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর। নদীর পানি দূষণের জন্য শিল্প কারখানাগুলো ৭০ ভাগ দায়ী। নদীকে দূষণমুক্ত ও দখলমুক্ত করতে হবে।  

বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বলেন, বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। এদেশে রয়েছে অসংখ্য নদ-নদী। পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, বুড়িগঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্র নদী । আর নদীগুলো সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মরতে বসছে। অনেক নদ-নদী হয়ে গেছে বিষাক্ত।  নদীর বিষাক্ত পানি মানুষের জন্য ক্ষতিকর। নাব্যতা হারিয়ে কমে গেছে পানির প্রবাহ। এখন তুরাগ পরিণত হয়েছে দূষিত নদীতে। আর এই দূষণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ।  

আলোচনা শেষে ২০টি নৌকায় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও সামাজিক সংগঠনের ব্যক্তিরা বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড ও ব্যানার নিয়ে নৌ-র‌্যালিতে অংশ নেন।

নৌ-র‌্যালিতে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স সায়েন্স বিভাগের চেয়ারম্যান ড.শামীম আহমেদ দেওয়ান, নদী বাঁচাও আন্দোলনের সহসভাপতি ইকরাম এলাহী খান সাজ, যুগ্ম সম্পাদক কালিমুল্লাহ ইকবাল, সদস্য ইব্রাহিম খলিল, মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, গাজীপুর জেলা নদী বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেকসহ সংশ্লিষ্টরা। 

রেজাউল/সুমি

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়