ঢাকা     বুধবার   ১৯ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৫ ১৪৩১

‘মঙ্গল শোভাযাত্রা নতুন, বৈশাখে গ্রামবাংলায় উৎসব তো নতুন নয়’

অনার্য মুর্শিদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪২, ২৬ এপ্রিল ২০২৪   আপডেট: ১৪:৩০, ৮ মে ২০২৪
‘মঙ্গল শোভাযাত্রা নতুন, বৈশাখে গ্রামবাংলায় উৎসব তো নতুন নয়’

আহমদ রফিক সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব। রবীন্দ্রজীবন এবং সাহিত্য-সৃষ্টি নিয়ে রয়েছে তাঁর ভিন্নমাত্রিক মূল্যায়ন। এ কারণে টেগোর রিসার্চ ইনস্টিটিউট তাঁকে রবীন্দ্রতত্ত্বাচার্য উপাধিতে ভূষিত করে। ব্যক্তি জীবনে তিনি চিকিৎসক হলেও ছাত্রজীবন থেকেই প্রগতিশীল রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থেকে ভাষা আন্দোলনে রেখেছেন সংগঠকের অনন্য ভূমিকা। কলামিস্ট হিসেবেও তিনি রেখেছেন সমকালের স্বাক্ষর। তিনি রবীন্দ্রচর্চা কেন্দ্র ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা, বাংলা একাডেমির ফেলো এবং বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটির জীবনসদস্য। বিবিধ পুরস্কার, সম্মাননা ও স্বর্ণপদকে ভূষিত আহমদ রফিকের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন অনার্য মুর্শিদ

অনার্য মুর্শিদ: বাংলাদেশে সাংস্কৃতিক দ্বন্দ্ব তীব্রভাবে চোখে পড়ছে। এর কারণ কী বলে মনে করেন? বিশেষত গত কয়েক বছর, পহেলা বৈশাখ এলেই বিভাজন স্পষ্ট হয়ে ওঠে। কেনো এমন হচ্ছে?

আহমদ রফিক: এই ভাগ তো আজকের নয়। মুক্তিযুদ্ধের আগেও ছিল। রবীন্দ্র বিরোধিতার মাধ্যমে এর সূচনা। এখনও আছে, থাকবে। বড় বটগাছে ঝড়ের বাতাস বেশি লাগে। পাকিস্তানিদের তো বিরোধিতা করারই কথা। কারণ রবীন্দ্রনাথকে তারা হিন্দু মনে করত। সেই সূত্র ধরেই তারা এগিয়েছে। তারা ব্রাহ্ম শব্দের অর্থই জানত না। রবীন্দ্রনাথ যে হিন্দু নন, ব্রাহ্ম; এখনও অনেক সাহিত্যিক, গবেষক, পন্ডিত এটি লক্ষ্যই করে না। ব্রাহ্ম এবং হিন্দু দুটি ধর্মের মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। কাজেই রবীন্দ্রনাথকে বাতিল করার চেষ্টা করেছে পাকিস্তানিরা। রবীন্দ্রনাথকে হিন্দু ধর্মের অভিহিত করে ধর্মীয় অনুভূতি ব্যবহার করে যাতে বাঙালি মুসলমানরা তাঁর পা-িত্যের, তাঁর সৃষ্টিকর্মের বৈচিত্রের সঙ্গে একীভূত হতে না পারে এটি ছিল তাদের উদ্দেশ্য।

অনার্য মুর্শিদ: সেই সময়ে যে পহেলা বৈশাখ উদযাপিত হয়েছিল সেটি মুক্তিযুদ্ধের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কীভাবে একে আন্দোলনে রূপ দিলেন আপনারা?

আহমদ রফিক: সে তো লম্বা ইতিহাস! এই ছোট সাক্ষাৎকারে এটা বলা সম্ভব না। যারা জানতে আগ্রহী হবে তারা আমাদের লেখা বইগুলো পড়লেই বুঝতে পারবে। পাকিস্তানিরা যখন রবীন্দ্রবিরোধিতা করেছিল, বেতারে রবীন্দ্রনাথের গান নিষিদ্ধ করেছিল তখন আমরা রমনার বটমূলে এক বৈশাখে সূর্য উদয়ের সাথে রবীন্দ্র সংগীত শুরু করি-  এসো হে বৈশাখ এসো এসো... তারপর রবীন্দ্রনাথের কবিতা পাঠ করা হয়েছিল যেটি পরে গান হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের স্বপক্ষে অনেকেই ছিলেন, অনেক। ছায়ানটের সবাই, ওয়াহিদুল হক, সন্‌জিদা খাতুন ওরা জাতীয়তাবাদী ছিল, আর আমরা মার্ক্সবাদী ছিলাম। মার্ক্সবাদীদের মধ্যে সাংবাদিক কেজি মোস্তফাসহ আরো অনেকেই ছিলেন এখন নাম মনে পড়ছে না। মার্ক্সবাদীদের মধ্যে আবার পার্থক্য ছিল। যারা চীনাপন্থী তারা রবীন্দ্রনাথকে তেমন একটা পছন্দ করত না। রবীন্দ্রনাথ যখন চীনে গেলেন তখন চীনা যুবকরা তাঁকে রিজেক্ট করল। তাঁকে যে সংবর্ধনা দেয়া হলো সেখানে ছোট ছোট লিফলেট বিলি করে তাঁর বিরোধিতা করেছিল চীনা যুবকরা। তাহলে ভেবে দেখ ব্যাপারটা কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছিল। একটা বই আছে ‘টকস অব চায়না’। ওই সময়কার চীনের ঘটনাবলি নিয়ে লেখা। পড়লে বুঝতে পারবে। 

অনার্য মুর্শিদ: রবীন্দ্রনাথের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতার বিষয়টি আসলে কতটুকু সত্য?

আহমদ রফিক: আমি নিজে শান্তিনিকেতনে যে রবীন্দ্র ভবন আছে সেখানে খোঁজ করেছি। রবীন্দ্রভারতী আছে সেখানেও খোঁজ করেছি। কোথাও কোনো চিঠি নেই যে, তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করেছেন। আসলে যারা বেসিক্যালি রবীন্দ্রবিরোধী তারাই কিন্তু এ জিনিসটা নিয়ে টানাটানি করে। আমাকে প্রথম জিজ্ঞেস করেছিল জাকারিয়া খাঁ, ‘বাংলাবাজার পত্রিকা’র মালিক। আমি বললাম যে, আপনি তো পণ্ডিত মানুষ। আপনি একটু চিন্তা করে দেখেন তো রবীন্দ্রনাথ যদি সত্যি সত্যি বিরোধিতা করে থাকতেন তাহলে ১৯২৬ সালে যখন তাঁকে আমন্ত্রণ করে নিয়ে আসা হলো, সংবর্ধনা দেয়া হলো কার্জন হলে; এ সবের পরিপ্রেক্ষিতে কি বলা যায় উনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করেছেন? আরেকটি বড় কারণ রয়েছে যেটি আমাদের জন্য বিরাট সম্মানজনক হতে পারত। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ তিনি বিরাট পণ্ডিত মানুষ, তাঁকে রবীন্দ্রনাথ খুব পছন্দ করতেন। যখন বিশ্বভারতী হলো, তখন ট্রাস্টি বোর্ডের মেম্বার হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করার জন্য রবীন্দ্রনাথ নিজে চিঠি লিখে তাঁকে আমন্ত্রণ জানালেন। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বলা হলো, আপনি যদি এই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন তাহলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে পোস্ট দেয়া হয়েছে সেটি বন্ধ করে দেয়া হবে। এখান থেকেই বুঝতে পারা যায় কারা রবীন্দ্রবিরোধী। আমি শুধু এটুকুই বললাম। এই ব্যাপারটি নিয়ে অহেতুক কাদা ঘাটাঘাটি, প্রচার করার কোনো মানে হয় না।

অনার্য মুর্শিদ: এখন যে মঙ্গল শোভাযাত্রা হয় এটার প্রয়োজনিয়তা কতটুকু?

আহমদ রফিক: মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে অনেক কথা রয়েছে। অনেক কথা উঠবেও। যারা কথা উঠায় তাদের বলব- মঙ্গল শোভাযাত্রা নতুন হতে পারে, বৈশাখ আর বৈশাখকে ঘিরে গ্রামবাংলার উৎসব তো নতুন নয়। মঙ্গল শোভাযাত্রা নাগরিকদের বৈশাখ পালনের একটি পদ্ধতি মাত্র। মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে চীনাপন্থী কমিউনিস্ট ও চীনাপন্থী মার্ক্সবাদীরা মনে করে যে, এটা হিন্দু সভ্যতা, হিন্দু সংস্কৃতি। 

অনার্য মুর্শিদ: কট্টরপন্থী ইসলামিস্টরাও তাই মনে করে। 

আহমদ রফিক: হ্যাঁ। আমাদের সব জায়গাতেই গন্ডগোল। এই গন্ডগোলের মধ্য থেকেই আমাদেও কোনটি কাঁচ, কোনটি হীরা আর কোনটি সোনা আর কোনটি তামা এটি খুঁজে বের করে নিতে হবে। খুঁজে বের করাটা খুব কষ্টকর। নিজের জ্ঞান, বুদ্ধি, বিদ্যা এগুলো ব্যবহার করে এই কষ্টের কাজটি আমাদের করতে হবে। এ জন্য পড়াশোনা করতে হবে। দেশি-বিদেশি সব বই পড়তে হবে।

তারা//

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়