ঢাকা     সোমবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১৩ ১৪৩০

চান্দগাঁও থানার ওসি’র বিরুদ্ধে অশোভন আচরণের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩৪, ৩০ মে ২০২৩   আপডেট: ২১:৩৭, ৩০ মে ২০২৩
চান্দগাঁও থানার ওসি’র বিরুদ্ধে অশোভন আচরণের অভিযোগ

ওসি খায়রুল ইসলাম

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের চান্দগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ইসলামের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করার অভিযোগ উঠেছে। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করে ওসি বলেছেন, এই অভিযোগ ভিত্তিহীন। এমন মিথ্যা অভিযোগ তোলা দুঃখজনক। 

গত ২২ মে একটি পারিবারিক বিরোধের জেরে ভাইয়ের বিরুদ্ধে ভাইয়ের পাল্টা মামলা দায়েরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ অভিযোগটি ওঠে। 

চট্টগ্রাম মহানগর চান্দগাঁও থানার মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম অভিযোগ করেন, ‘কিছুদিন আগে আমার ভাই আমাকে আসামি করে চান্দগাঁও থানায় একটি মামলা করেন। মিথ্যা অভিযোগের উপর ভিত্তি করে তদন্ত ছাড়াই চান্দগাঁও থানার ওসি মামলাটি গ্রহণ করেন। এই মামলায় আদালত থেকে জামিন নিয়ে প্রকৃত ঘটনা ওসিকে অবহিত করতে এবং যিনি আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিতে আমি গত ২২ মে চান্দগাঁও থানায় যাই। এই সময় স্থানীয় কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতারাও আমার সঙ্গে ছিলেন। কথা বলার এক পর্যায়ে ওসিকে আমাদের মামলা নিতে অনুরোধ করলে তিনি মামলা নিতে অস্বীকার করেন।’ 

তিনি আরও অভিযোগ করেন, ‘আমরা ওসি’র কাছে মামলা না নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি আমাদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেন।’ 

আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুল ইসলামের ভাষ্যমতে ওসি ওই সময় বলেন, তিনি নাকি ৬০ লাখ টাকা ঘুষ দিয়ে ওসির চেয়ারে বসেছেন। ফ্রিতে সেবা দেন না। মন্ত্রী, এমপি, মেয়র বা নেতাদের দিয়ে তদবির করিয়ে কোনো লাভ হবে না। 

তবে ওসি খায়রুল ইসলাম প্রকৃত অর্থে এই ধরনের বক্তব্য দিয়েছেন কি-না সে ব্যাপারে কোনো অডিও, ভিডিও রেকর্ড পাওয়া যায়নি। 

ঘটনার সময় আমিনুল ইসলামের সঙ্গে থানায় উপস্থিত থাকা মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জসিম উদ্দিনও ওসির অশোভন আচরণের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘ওসি অশোভন মন্তব্য করেছেন। বিষয়টি আমরা নগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের মৌখিকভাবে জানিয়েছি।’ 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করতে মঙ্গলবার (৩০ মে) সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে চাঁন্দগাঁও থানার ওসি খায়রুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এই ধরনের অভিযোগ দুঃখজনক। একটি দায়িত্বশীল পদে থেকে আমার এ ধরনের অশোভন আচরণের প্রশ্নই আসে না।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘আমার থানায় এসে আপনারা দেখে যান- আমরা সাধারণ মানুষকে কিভাবে সেবা দিয়ে আসছি। আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।’ 

ওসি’র বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম নগর পুলিশের উপ-কমিশনার আবদুল ওয়ারিশ জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

রেজাউল/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়