ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ মাঘ ১৪২৬, ২৩ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

প্রার্থীদের হয়ে ভোটারদের চাওয়া জানবে ছাত্রলীগ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-১৪ ৫:৫০:১৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-১৪ ৭:২৪:২৬ পিএম

ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীদের কাছে নগরবাসীর প্রত্যাশা কী, তা জানতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

দলের প্রার্থীরা মেয়র নির্বাচিত হলে সেসব চাওয়া যাতে পূরণ হয়, সেজন্য মেয়রদের কাছে এসব তথ্য তুলে দেবেন সংগঠনটির শীর্ষ নেতৃত্ব।

তথ্য সংগ্রহ করার পাশাপাশি আধুনিক ও উন্নত ঢাকা গড়তে ভোটারদের কাছে ভোট চাইবে সংগঠনটির সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা। এজন্য ওয়ার্ড-ভিত্তিক তৃণমূল পর্যন্ত কমিটি গঠনের কাজ শেষ করে করে দিয়েছে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। যদিও এরই মধ্যে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীরা। তবে কমিটি গঠন হলে গনসংযোগে সুশৃঙ্খল ও পরিকল্পনামাফিক এগোবে বলে মনে করছেন ছাত্রলীগের নেতৃত্ব।

এ সম্পর্কে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় রাইজিংবিডিকে বলেন, “ভবিষ্যতের সুন্দর, সুস্থ ও আধুনিক উন্নত ঢাকা গড়তে নগরবাসী কোন বিষয়গুলোকে প্রধান্য দিতে চান? তাদের চাওয়া কী? কোন বিষয়গুলোকে মেয়রকে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করতে হবে?-এসব তথ্যগুলো আমরা ডাটাবেজ আকারে সংগ্রহ করব।

‘ভবিষ্যতে নৌকার প্রার্থী যদি জয়ী হয়ে মেয়র পদে আসেন- তাহলে সেসব তথ্য আমরা তার হাতে তুলে দেব। নাগিরক চাহিদাগুলো তিনি জেনে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে তথ্যগুলো সহযোগিতা করবে বলে আমরা মনে করি।”

জয় জানান, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ভোটরদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করবে। এরই মধ্যে দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ শুরু করেছে নেতা-কর্মীরা।

ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংগঠনটির পক্ষে ছাত্রদের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করবেন।

এর অংশ হিসেবে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিতে ওয়ার্ড ভিত্তিক টিম গঠন করেছে ছাত্রলীগ।

নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগে কেন্দ্রভিত্তিক মনিটরিং টিমও ঘোষণা করা হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর ও বিভিন্ন ইউনিটের নেতা-কর্মীরা প্রচারণায় অংশ নেবেন। তারা আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে সমন্বয় করে কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। সেক্ষেত্রে কার্যক্রম পরিচালনার সুবিধার্থে ওয়ার্ড পর্যায়ের টিম গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

দুয়েক দিনের মধ্যে ওয়ার্ডভিত্তিক টিম গঠনের কথা জানিয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ‘নেতাকর্মীরা প্রত্যেক ভোটারের কাছে গিয়ে ভোট প্রার্থণা করবেন। আমরা ডোর টু ডোর ভোটারদের যেতে চাই। কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করবে এসব কমিটি।’

উত্তরে ছাত্রলীগের নির্বাচনী কার্যক্রম মনিটরিং করছেন ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহিম হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক মো. সাইদুর রহমান হৃদয়। দক্ষিণে আছেন ছাত্রলীগের মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মেহেদী হাসান এবং সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের আহমেদ।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘যদিও বিচ্ছিন্নভাবে মহানগরের নেতাকর্মীরা কাজ শুরু করে দিয়েছেন। তবে সুশৃঙ্খলভাবে প্রচারণা চালাতে ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটিগুলো করেছি আমরা। দুয়েকদিনের মধ্যেই কমিটি কেন্দ্রে জমা দেব। এসব কমিটি নৌকার প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপসের পক্ষে ভোট চাইবে এবং সরকারের উন্নয়ন ও পরিকল্পনা নগরবাসীর কাছে তুলে ধরবে।’

সাধারণ সম্পাদক মো. জুবায়ের আহমেদ বলেন, ‘আমাদের ওয়ার্ডভিত্তিক কমিটিগুলোতে যারা থাকবেন তারা নেতাকর্মী নিয়ে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাবেন। পথচারী, অফিসগামী-নগরবাসীর কাছে দিন-রাত প্রচারণা চালাবেন।’

ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহিম হোসেন বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে সংগঠনের নেতারা ভোটারদের কাছে ভোট ভিক্ষা করবে। উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হলে নৌকার বিকল্প নেই-এই বিষয়টিতে ভোটারদের কাছে তুলে ধরা হবে।’

আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এরই মধ্যে প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিরর প্রার্থীরা।


ঢাকা/পারভেজ/সনি