ঢাকা, রবিবার, ১ পৌষ ১৪২৬, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

রাবি শিক্ষার্থীকে মারধর, কনস্টেবল প্রত্যাহার

বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৫ ১২:১১:২৬ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-১৫ ১২:৫৪:৫৬ এএম

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) মোটরসাইকেলের লাইসেন্স চেক করার সময় কথা কাটাকাটির জের ধরে হুমায়ুন কবির নাহিদ নামে এক শিক্ষার্থীকে পিটিয়েছে ক্যাম্পাসে কর্মরত পুলিশ সদস্যরা। এ ঘটনায় এক কনস্টেবলকে প্রত্যাহার করেছে নগরীর মতিহার থানা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনোদপুর গেটে এ মারধরের ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার হুমায়ুন কবির নাহিদ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী এবং রাবি শাখা ছাত্রলীগের একজন কর্মী।  

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নাহিদ বিনোদপুর গেট দিয়ে বাইক নিয়ে প্রবেশ করে। এ সময় বিনোদপুর গেটে কর্মরত পুলিশ সদস্যরা তাকে আটকায় এবং মতিহার থানার এসি মাসুদুর রহমান তার গাড়ির লাইসেন্স চেক করে। এসি মাসুদুর রহমান ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী নাদিদের আইডি কার্ড দেখতে চায়। নাহিদ তার আইডি কার্ড দেখানোর পরেও তাকে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন এসি। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।

এর জের ধরে পুলিশ সদস্যরা তাকে জনসম্মুখে বেধড়ক মারতে শুরু করে। এমনকি রাস্তায় ফেলে তাকে মারধর করা হয়। তারপর তাকে হাতকড়া পড়িয়ে পুলিশ জিপে তুলে থানায় নিয়ে যায়। প্রায় আধ ঘন্টা পরে পুলিশ আবার তাকে বিনোদপুর গেটে নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী হুমায়ুন কবির নাহিদ বলেন, পুলিশ কোনো কারণ ছাড়াই আমাকে পিটিয়েছে। এমনকি রাস্তায় ফেলে আমাকে মারধর করেছে। তাদের মধ্যে একজন কনস্টেবল আমাকে রাইফেলের বাট দিয়ে আঘাত করেছে। আমি সেই কনস্টেবলসহ যারা যারা জড়িত ছিল তাদের বিচার চাই। ক্যাম্পাসের ভিতরে তারা কোন সাহসে একজন শিক্ষার্থীকে মারধর করতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর হুমায়ুন কবির বলেন, বিষয়টি জানার পর আমরা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ওই শিক্ষার্থী ও অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যকে নিয়ে বসেছি। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ যারা অভিযুক্ত ছিলেন সকলে ক্ষমা চেয়েছেন।

মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অভিযুক্ত কনস্টেবলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
 

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়/শাহিনুর খালিদ/নাসিম

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন