ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ আষাঢ় ১৪২৭, ০২ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

কেন হয়েছিল জন-বিপাশার ব্রেকআপ?

বিনোদন ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৫-৩০ ১১:২০:৪৯ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৫-৩০ ১:৫৩:১৩ পিএম
জন আব্রাহাম ও বিপাশা বসু (ছবি ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত)

বলিউডের এক সময়ের আলোচিত জুটি জন আব্রাহাম ও বিপাশা বসু। পর্দায় কিংবা বাস্তবে তাদের রসায়ন নিয়ে মিডিয়ায় সবসময়ই চর্চা ছিল। ২০০৩ সালে ‘জিসম’ সিনেমার সেটে তাদের সম্পর্কের শুরু। এরপর চুটিয়ে প্রেম করেছেন। অনেকের কাছেই তারা হয়ে উঠেছিলেন আদর্শ প্রেমিক যুগল।

কিন্তু হঠাৎ করেই প্রায় দীর্ঘ দশ বছরের প্রেমের সম্পর্কের ইতি টানার সিদ্ধান্ত নেন এই জুটি। শুধু তাই নয়, তাদের পরস্পরের সঙ্গে তৈরি হয় দা-কুমড়া সম্পর্ক। কিন্তু কী কারণে তাদের ব্রেকআপ হয়েছিল এর প্রকৃত কারণ আজও অজানাই রয়ে গেছে।

এমনকি ব্রেকআপ নিয়ে জন ও বিপাশা দুজন ভিন্ন বক্তব্য দিয়েছেন। বিপাশার মতে, ব্রেকআপ নিয়ে তাদের মতবিরোধ ছিল। তবে জন এক সাক্ষাৎকারে জানান, পরস্পরের সমঝোতাতেই তাদের ব্রেকআপ হয়েছে এবং তাদের মধ্যে তিক্ত কোনো ঘটনা ঘটেনি। এই অভিনেতা বলেন, ‘যখন আমাদের ব্রেকআপ হয়, আমরা দুজন পরিণত মানুষের মতো কথা বলেছি এবং বুঝতে পেরেছিলাম আমাদের উদ্দেশ্য এক নয়।’

বিপাশা বসু ও জন আব্রাহাম

জন-বিপাশার ব্রেকআপের কারণ নিয়ে পরবর্তী সময়ে নানা কথা চাউর হয়েছে। এর মধ্যে যেটি সবচেয়ে বেশি প্রচলিত তা হলো— প্রায় দশ বছর একসঙ্গে থাকার পর জনকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন বিপাশা। কিন্তু এতে রাজি হননি জন। বিষয়টি পরে স্বীকারও করেছেন জন। তিনি বলেন, ‘দিনদিন আমাদের সম্পর্কের অবণতি হচ্ছিল। যে কোনো কারণেই হোক একবারে তলানিতে ঠেকেছিল। আমি নিজেকে প্রশ্ন করেছিলাম এবং আমার মনে হয়েছিল, অনেক কিছুর সঙ্গেই মানিয়ে নিতে পারছি না। এই সম্পর্ক নিয়ে আমাদের দু’জনের ভাবনা আলাদা ছিল। সম্পর্ক যখন চরম পর্যায়ে ছিল আমি সম্ভবত কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার মতো অবস্থায় ছিলাম না।’

অন্যদিকে বিপাশা দাবি করেন, তার সঙ্গে প্রতারণা হয়েছে। ব্রেকআপ নিয়ে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘কোনো ব্রেকআপই ভালো নয়। তবে সময় সবকিছু ভুলিয়ে দেয়। এমনকি বন্ধুত্ব ভাঙার দুঃখও। কিন্তু প্রতারণা, অবিশ্বাস এবং ধোঁকা সাধারণত ক্ষমা করা যায় না। আর এই বিষয়গুলো যেখানে থাকে সত্যিকারের বন্ধুত্ব সেখানে অসম্ভব।’ কথাগুলো জনকে উদ্দেশ্য করেই বলেছেন কিনা তা অবশ্য স্পষ্ট করেননি এই অভিনেত্রী। প্রশ্ন করা হলে বলেন, ‘আমার কথাগুলো ফিরিয়ে নিচ্ছি।’ তবে কারো-ই বুঝতে বাকি ছিল না সাবেক প্রেমিককে উদ্দেশ্য করেই কথাগুলো বলেন তিনি।

বিষয়টি আরো স্পষ্ট হয় যখন অন্য এক সাক্ষাৎকারে বিপাশার বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে জন বলেন, ‘আমি জানি ব্রেকআপের সঙ্গে অনেক আবেগ জড়িয়ে থাকে এবং এ ব্যাপারে আমার সহমর্মিতা রয়েছে। আমি যে পরিবার থেকে ওঠে এসেছি সেখানে বিশ্বাস ও সততা অনেক বড় বিষয়। প্রতারণা ও অসততা আমাদের ডিএনএ-তে নেই।’ এই অভিনেতা জানান, বিষয়টি নিয়ে চুপ থাকার কারণে তাকে যেন দোষী না ভাবা হয়।

বিপাশা বসু ও জন আব্রাহাম

বিপাশার মতে, জনের সঙ্গে সম্পর্কে নিজের শতভাগ উজার করে দিয়েছিলেন তিনি। নিজেকে সবার কাছে থেকে দূরে রেখেছিলেন। এমনকি সিনেমাও ছাড়তে হয়েছে তাকে। এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আমার সঙ্গে যা হয়ে এজন্য আমি নিজেকেই দোষ দিচ্ছি। আমি অনেক কিছু মেনে নিয়েছিলাম। কেউ যদি আপনাকে টেনে নিচে নামাতে চায়, তাহলে সেই সুযোগ দেয়া উচিত নয়।’

জানা যায়, ব্রেকআপের পর জনকে কখনোই ক্ষমা করেননি বিপাশা। এক সাক্ষাৎকারে বিপাশা জানান, সাবেক প্রেমিকের সঙ্গে বন্ধুত্ব রাখা যায় তিনি যদি বাজে না হন। তবে এই কথা তিনি জনকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন কিনা তা উল্লেখ করেননি।

তবে এই অভিনেত্রীর সঙ্গে বন্ধুত্ব সম্পর্ক রাখতে রাজি ছিলেন জন। তিনি বলেছিলেন, ‘বিপাশা আমার খুব ভালো বন্ধু ছিল, তার সঙ্গে আবারো ভালো বন্ধুত্ব হলে ভালোই লাগবে।’

জন আব্রাহাম ও প্রিয়া রাঞ্চাল (বামে), বিপাশা বসু ও করণ সিং গ্রোভার (ডানে)

তবে জন-বিপাশার সম্পর্ক এখন শুধুই অতীত। প্রিয়া রাঞ্চালকে বিয়ে করে সুখে সংসার করছেন জন আব্রাহাম। অন্যদিকে মনের মানুষ হিসেবে অভিনেতা করণ সিং গ্রোভারকে বেছে নিয়েছেন বিপাশা। সুখেই কাটছে তাদের সংসার।

 

ঢাকা/মারুফ