ঢাকা     মঙ্গলবার   ২১ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪৩১

কান্নার শেষ কোথায়?

রাহাত সাইফুল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৫৬, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৫:০৫, ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২
কান্নার শেষ কোথায়?

জায়েদ খান, রিয়াজ, নিপুণ

‘ক’ফোটা চোখের জল ফেলেছো যে তুমি ভালোবাসবে’- মান্নাদের এই বিখ্যাত গানের মতোই যেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের প্রার্থীরা তাদের ভালোবাসার প্রমাণ দিয়েছেন চোখের জলে। 

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন শুরু থেকেই অনেক নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে চলছে। অনেক সময় নিজের আবেগ ধরে রাখতে পারেননি শিল্পীরা। এবারের নির্বাচনে কান্নার তালিকাটা বেশ লম্বা। আবার এই কান্না নিয়েও কাঁদা ছোড়াছুড়ি কম হয়নি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলের শিকার হতে হয়েছে শিল্পীদের। কারো কাছে এই কান্না মায়াকান্না, কেউ আবার মানবিক দিক দিয়েই বিচার করেছেন। 

এবারের নির্বাচনকে ঘিরে প্রথম কেঁদে আলোচিত হন অভিনেত্রী জেসমিন। ৯ জানুয়ারি ইলিয়াস কাঞ্চন নিপুণের প্যানেল ঘোষণার সময় মিশা সওদাগর-জায়েদ খান কমিটির বিরুদ্ধে কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন এই অভিনেত্রী। মজার ব্যাপার হলো, সেদিন রিয়াজের পেছনে দাঁড়িয়েই কেঁদেছিলেন জেসমিন।

এরপরই বাদ পরা ১৮৪ জন শিল্পীদের নিয়ে কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন নায়ক রিয়াজ। রিয়াজের কান্নার ভিডিও অন্তর্জালে রীতিমতো ভাইরাল হয়ে পড়েছিল। ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের সহ-সভাপতি পদপ্রার্থী এই অভিনেতা পরে অভিমান করে গণমাধ্যমে বলেছেন, কেঁদে যদি ভুল করে থাকি মাফ করে দেবেন।

জেসমিন ও রিয়াজের পর কান্নার মিছিলে যোগ দিয়েছেন আরেক অভিনয়শিল্পী নাসরিন। নির্বাচনে দাঁড়াতে গিয়েও পরে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেওয়ার বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি কাঁদলেন। এর কিছুদিন পর জায়েদ খান বক্তব্য দিতে গিয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে কিছু কষ্টের কথা বলেন। এদিকে দীর্ঘদিন অন্তরালে থাকা চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভীন পপি হঠাৎ করেই একটি ভিডিও বার্তা প্রকাশ করেন। এতে কান্না জড়িত কন্ঠে তার সদস্যপদ বাদ দেয়া নিয়ে বর্তমান কমিটির প্রতি আক্ষেপ প্রকাশ পায়। 

সবশেষ কান্নার মিছিলে যোগ দেন নায়িকা নিপুণ। গতকাল আপিল বোর্ড তাকে বিনা প্রতিদদ্ধিতায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত ঘোষণা করেন। আপিল বোর্ডের রায় নিজের পক্ষে আসায় আবেগাপ্লুত ছিলেন নিপুণ। আপিল বোর্ডের নতুন সিদ্ধান্ত জানানোর সঙ্গে সঙ্গেই কেঁদে উঠেন এই নায়িকা। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় কান্না বিজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘সত্যের জয় হলো’।

নির্বাচন শেষ হয়েও যেন শেষ হচ্ছে না। মামলার দিকে গড়াবে বলে জানা যায়। তার মানে নাটকিয়তার শেষ হচ্ছে না সহসাই। নির্বাচন নিয়ে একটার পর একটা ঘটনা ঘটে চলছে। এর শেষ কোথায়? তার উত্তর যেমনটা জানা নেই তেমনি কান্নার শেষ কোথায় তার উত্তরও মিলছে না এই মুহূর্তে। এমনটাই বলছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা।

ঢাকা/রাহাত সাইফুল/ফিরোজ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়