Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ১১ ১৪২৮ ||  ১৭ সফর ১৪৪৩

একটি অনুপ্রেরণামূলক এবং সাহসী উদ্যোক্তার গল্প 

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৪১, ১৯ জুলাই ২০২১  
একটি অনুপ্রেরণামূলক এবং সাহসী উদ্যোক্তার গল্প 

জাওয়াদ শরীফ

শূন্য থেকে শুরু করে, প্রতিকূল পথ ধরে এই তরুণ এবং উদীয়মান ব্যক্তি সমস্ত প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করে, কঠোর পরিশ্রম এবং সত্য নিষ্ঠার সাথে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে তার লক্ষ্য অর্জন করেছেন।  দেশের তরুণ প্রজন্ম যখন মাসিক উপার্জন নিয়ে অব্যাহতভাবে চাকরির নিরাপত্তা অর্জনের জন্য কঠোর লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে, তখন জাওয়াদ শরীফ উদ্যোক্তা ব্যবসায়ী হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে সম্মুখে অগ্রসর হয়ে সাধারণ মানুষের জীবনকে আরও সহজতর করেন।  তিনি ভিন্ন ধারার দৃষ্টিভঙ্গি এবং বিভিন্ন উদ্যোগের মধ্য দিয়ে দেশের অর্থনীতিকে সহায়তা করছেন এবং একটি শক্তিশালী তথ্য কাঠামো তৈরি করে তরুণ উদ্যোক্তাদের তাদের নিজ ক্ষমতায় সাফল্যের পথ দেখিয়ে চলেছেন।

যাত্রার প্রারম্ভিক গল্প
জাওয়াদ শরীফ সর্বদা জন-সাধারণকে সাহায্য করতে চেয়েছেন, দেশ ও জনগণের জন্য কিছু করতে এবং আর্থ-সামাজিক প্ল্যাটফর্মের উন্নয়নে অবদান রাখতে চেয়েছেন।  ‘এক স্রষ্টার অধীনে এক জাতি’, তার একটি সাধারণ উক্তি।  শ্রমজীবী বাবা-মা এবং দুই ভাইয়ের পরিবারে বেড়ে ওঠা জাওয়াদ সর্বদা নিজের সাম্রাজ্য গড়ার তাগিদে অত্যন্ত দূরদৃষ্টি সম্পন্ন ব্যাক্তি  হওয়ার স্বপ্ন দেখেছেন।  বাংলাদেশের নামকরা রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ থেকে গোল্ডেন এ + (এসএসসি) প্রাপ্ত হয়ার পাশাপাশি তিনি স্কুলজীবন জুড়ে বিভিন্ন বহির্মুখী ক্রিয়াকলাপ এবং স্বেচ্ছাসেবক কার্যক্রমেও জড়িত ছিলেন। জাওয়াদ শরীফ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্য বিভাগীয় কেনেডি-লুগার ইয়ুথ এক্সচেঞ্জ এবং স্টাডি (ইয়েস) প্রোগ্রামের জন্য একজন তরুণ রাষ্ট্রদূত নির্বাচিত হয়েছিলেন, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডাইভারসিফাইড পপুলেশনের মধ্যে বাংলাদেশি সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্ব করেছেন। তিনি কলোরাডো অঙ্গরাজ্যের লিমন হাইস্কুল থেকে গ্রেজুয়েশন ডিপ্লোমা শেষ করেন। পরবর্তী সময়ে তিনি কলোরাডো স্কুল অফ মাইনস থেকে পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএসসি নিয়ে পড়াশোনা করেন, যেই বিশ্ববিদ্যালয় সারফেস ইঞ্জিনিয়ারিং এর ক্ষেত্রে প্রথম স্থান অর্জন করে। উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে তিনিই প্রথম বাংলাদেশি আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী হিসাবে সভাপতি নির্বাচিত হন এবং টানা দুই বছর উক্ত পদে নিরঙ্কুশ সাফল্যের সাথে ছাত্র পরিষদে দায়িত্ব পালন করেন। প্রায়শই বিভিন্ন ক্ষেত্রে যথাযথ যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও অপ্রত্যাশিত বাধার কারণে উপযুক্ত ব্যক্তি উঠে দাঁড়ানোর সাহস এবং সমর্থন পায় না যা তিনি বিদেশে থাকাকালীন প্রাপ্ত অভিজ্ঞতার আলোকে অনুধাবন করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি সবাইকে দেখাতে চেয়েছিলাম, পথ যতই ভঙ্গুর হোক না কেন বা পরিস্থিতি যতই কঠিন হোক না কেন, আমাদের সবার শিখতে হবে তা কিভাবে অতিক্রম করতে হয়। আসল বিজয়ীরা হলো তারাই যারা কখনই হার মানে না এবং অবিরাম প্রচেষ্টা চালিয়ে যায়’।

অটো ইন্ডাস্ট্রিতে একটি দুর্দান্ত প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা এবং প্রাইম টাইম সংবাদ পাঠক হিসাবে কাজ করা

দেশে ফিরে ক্যারিয়ার গঠনে তিনি তার অভিজ্ঞতা বাস্তবায়নে মনোনিবেশ করেন এবং ইউনিভার্সাল অটো নামে একটি প্রতিষ্ঠান চালু করেন, যা বাংলাদেশের অটো শিল্পের বিশিষ্ট নাম হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। সংস্থার চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসাবে, তিনি একটি কর্মশক্তি তৈরি করেন এবং স্বল্প মূলধন নিয়ে, সরাসরি জাপান থেকে আমদানি করা ব্র্যান্ড নিউ ও রিকন্ডিশনড যানবাহন বিক্রি করার একটি অটো ডিসপ্লে শোরুম শুরু করেন। সাত বছর পরে, ইউনিভার্সাল অটো ঢাকা শহরের প্রাণকেন্দ্রে দুটি স্থানে শীর্ষ ১০টি রিকন্ডিশন্ড গাড়ি বিক্রয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে একটি হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে।

জাওয়াদ বি.জে. কারের কার্যনির্বাহী পরিচালক হিসাবেও কর্মরত রয়েছেন,যে প্রতিষ্ঠান যানবাহন আমদানি/পাইকারি/খুচরা বিক্রয় ইত্যাদি সম্বলিত একটি সংঘবদ্ধ বহুজাতিক সংস্থা।

‘কখনও স্বপ্ন বাস্তবায়নে পিছু হটবেন না’, উক্তির সাথে তিনি স্বপ্ন দেখতেন একজন সফল বহুজাতিক উদ্যোক্তা হওয়ার। মাল্টি-টাস্কার হওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশ ইলেক্ট্রনিক টিভি মিডিয়ায় একজন সফল সংবাদ পাঠক হিসাবে তাঁর পদচিহ্ন স্থাপন করেছেন। জাওয়াদ বর্তমানে দেশের শীর্ষস্থানীয় টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এনটিভিতে ইংলিশ সংবাদ পাঠক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন, এর আগে তিনি অন্য একটি টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এটিএন নিউজে একই পদে দায়িত্ব পালন করেন।

বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে তিন শতাধিক লোকের কর্মশালা এবং তার তত্ত্বাবধানে একটি ঐক্যবদ্ধ ও বৈচিত্র্যপূর্ণ কাজের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। তিনি আত্মবিশ্বাসের সাথে বলেন, ‘জাতি ও ধর্ম নির্বিশেষে, সর্ব সমতায় আমি বিশ্বাস করি বলে আমার প্রতিষ্ঠানে পক্ষপাতিত্বের কোনো স্থান নেই।’ তার কঠোর পরিশ্রম এবং সত্যনিষ্ঠ জীবন একজন সফল ব্যক্তিতের একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত। তিনি বহু তরুণকে স্বল্প সময়ে তাদের নিজ স্বপ্ন বাস্তবায়নে সুযোগ তৈরি করে দিয়েছেন এবং অনেকের ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে সহায়তা করেছেন। তার প্রারম্ভকালীন কোম্পানি এখন দেশব্যাপী প্রসারিত হওয়ার পরিকল্পনাধীন, আগামীর দিনগুলিতে একটি দৃঢ় এবং সুসংহত স্থাপনার প্রত্যাশায় এক অভূতপূর্ব গতিতে এগিয়ে যাবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

/হাসান/এসবি/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়