ঢাকা     সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৯ ১৪৩১

গাজায় বিপর্যস্ত শিশুদের জন্য শ্রীলঙ্কার ১০ লাখ ডলারের অনুদান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:২৪, ৩ এপ্রিল ২০২৪   আপডেট: ১৩:২৭, ৩ এপ্রিল ২০২৪
গাজায় বিপর্যস্ত শিশুদের জন্য শ্রীলঙ্কার ১০ লাখ ডলারের অনুদান

যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজা উপত্যকায় বিপর্যস্ত শিশুদের সহায়তার জন্য জাতিসংঘের ফিলিস্তিনি শরণার্থী-বিষয়ক সংস্থাকে (ইউএনআরডব্লিউএ) ১০ লাখ ডলার অনুদান দিয়েছে শ্রীলঙ্কা। মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) ফিলিস্তিনি সংবাদ সংস্থা ওয়াফার বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মিডলইস্ট মনিটর।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শ্রীলঙ্কা অর্থনৈতিক সংকটে জর্জরিত হওয়া সত্ত্বেও এ অনুদান দিয়েছে। জাতিসংঘের ত্রাণ সংস্থা ভেঙে ফেলার যে পরিকল্পনা করা হচ্ছে, তা মোকাবিলার অন্যতম প্রচেষ্টা এটা। ইউএনআরডব্লিউএর কর্মীরা হামাসের সঙ্গে জড়িত বলে ইসরায়েল বরাবরই দাবি তুলেছে। যদিও তারা কখনোই তাদের দাবির সপক্ষে প্রমাণ দিতে পারেনি। এছাড়াও তারা গাজায় জাতিসংঘের এ সংস্থাটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়ার জন্য বিভিন্ন পর্যায়ে লবিং করছে। ইসরায়েলের দাবি, সংস্থাটি না থাকলে শরণার্থী সমস্যাও থাকবে না।

এমন পরিস্থিতির মধ্যে মঙ্গলবার গাজা উপত্যকায় ফিলিস্তিনি শিশুদের সহায়তার জন্য ১০ লাখ ডলার অনুদান দিয়েছে অর্থনৈতিক সংকটে জর্জরিত শ্রীলঙ্কা।

দেশটির প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহের কার্যালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘শ্রীলঙ্কা সরকার গাজা উপত্যকায় সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুদের সহায়তার জন্য ১০ লাখ ডলার অনুদান দিয়েছে। অনুদানটি আনুষ্ঠানিকভাবে জাতিসংঘের অফিশিয়াল চ্যানেলের মাধ্যমে ফিলিস্তিন সরকারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

এর আগে, ফেব্রুয়ারি মাসে গাজায় সংঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুদের সহায়তার লক্ষ্যে একটি তহবিল প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব উত্থাপন করে প্রেসিডেন্ট বিক্রমাসিংহে। মন্ত্রিসভা প্রস্তাবটির অনুমোদন দেয়ার পর এ অনুদান দেয় শ্রীলঙ্কা।

জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের পক্ষে ওকালতি করার সময় যুদ্ধবিধ্বস্ত গাজায় যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছিল শ্রীলঙ্কা।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামলা চালায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস। ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের দাবি, ওই হামলায় প্রায় ১২০০ ইসরায়েলি নিহত ও দুই শতাধিক ইসরায়েলিকে জিম্মি করে গাজায় নিয়ে গেছে হামাস যোদ্ধারা। এর জবাবে সেদিন থেকেই গাজায় বিমান হামলা ও পরে স্থল অভিযান শুরু করে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, পাঁচ মাসের বেশি সময় ধরে চলা ইসরায়েলি হামলায় ইতিমধ্যে প্রায় ৩৩ হাজার ফিলিস্তিনির মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছেন আরও প্রায় ৮০ হাজার মানুষ।

জাতিসংঘের মতে, গাজায় ইসরায়েলি আগ্রাসনে খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি এবং ওষুধের তীব্র সংকটের মধ্যে ভূখণ্ডের ৮৫ শতাংশ বাসিন্দা অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছে। সেই সঙ্গে অঞ্চলটির ৬০ শতাংশ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে। 

জাতিসংঘ জানিয়েছে, দীর্ঘ এ সময় ধরে চলা সংঘাতের কারণে মানবিক সংকটে দিন পার করছেন ফিলিস্তিনিরা। এছাড়াও খাবার, পানি, ওষুধ ও প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তার অভাবে উপত্যকাটির ২৩ লাখেরও বেশি বাসিন্দা চরম ক্ষুধা ও ভয়াবহ অপুষ্টিতে ভুগছেন।

ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) গণহত্যার অভিযোগ রয়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে আইসিজে একটি অন্তর্বর্তী রুল জারি করে তেল আবিবকে গণহত্যামূলক কাজ বন্ধ করতে এবং গাজার বেসামরিক নাগরিকদের মানবিক সহায়তা প্রদানের গ্যারান্টি দেওয়ার ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়।

/ফিরোজ/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়