ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৬ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৩ ১৪৩১

দরপত্রসংক্রান্ত আইনের একটি ধারা নিয়ে হাইকোর্টের রুল

মেহেদী হাসান ডালিম || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:১৪, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
দরপত্রসংক্রান্ত আইনের একটি ধারা নিয়ে হাইকোর্টের রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাবলিক প্রকিউরমেন্ট অ্যাক্ট ২০০৬ (সংশোধিত ২০১৬) এর ৩১(৩) ধারা ও গত বছরের ২৭ এপ্রিল জারি করা সিপিটিউ পরিপত্র কেন অসাংবিধানিক ও অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার আখতার ইমাম। তাকে সহযোগিতা করেন ব্যারিস্টার রেশাদ ইমাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।

সোমবার ব্যারিস্টার রেশাদ ইমাম আদালতের আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের চেয়ারম্যান, সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের মহাপরিচালক ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়কে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

ব্যারিস্টার রেশাদ ইমাম বলেন, পাবলিক প্রকিউরমেন্ট অ্যাক্টের সেকশন ৩১(৩) আন্ডারে বলা আছে, যারা টেন্ডার বিট করবে তাদের অফিসিয়াল ইস্টিমেট কস্টের ১০ ভাগ প্লাস বা ১০ ভাগ মাইনাসে বিট করতে হবে। মানে   অফিসিয়াল ইস্টিমেট কস্ট যদি হয় ১০০ টাকা তাহলে একটা টেন্ডারের যারা বিট করবে তারা ৯০ টাকার নিচে আর বিট করতে পারবে না। এই আইনের কারণে তখন দেখা যায়, ৫ থেকে ১০ জন টেন্ডারার ৯০ বিট করে। সিপিটিউ পরিপত্র অনুযায়ী ওই ৫ জন বা ১০ জনের মাঝখানে যে কোম্পানির গত ৫ বছরের এভারেজ বার্ষিক টার্নওভার সবচেয়ে বেশি সে টেন্ডার পেয়ে যাবে। মানে, যেটা বড় ঠিকাদারি কোম্পানি তারাই পাবে। এই আইনের কারণে যারা বড় কোম্পানি আছে তারা একচ্ছত্রভাবে টেন্ডার পাচ্ছে। অপেক্ষাকৃত ছোট কিন্তু যোগ্য কনস্ট্রাকশন কোম্পানি বঞ্চিত হচ্ছে। অথচ শতকরা ৮০ থেকে ৯০ ভাগ কনস্ট্রাকশন প্রতিষ্ঠান ছোট।

ওই আইনজীবী আরো বলেন, আমরা রিট আবেদনে বলেছি, এই আইন থাকলে বড় কন্ট্রাকটররা বড় হতেই থাকবে, আর যারা ছোট কন্ট্রাকটর তারা ছোট থেকেই যাবে। তাদের কোনোদিন আর প্রোফাইল বাড়বে না। তখন কমপিটিশন থাকবে না, দুই/তিনজনই কন্ট্রোল করবে। এই আইনটাই করা হয়েছে কিছু লোকের বেনিফিটের জন্য। এ কারণেই ভূক্তভোগী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্টার লাইট এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কনস্ট্রাকশন ইন্ডাস্ট্রিজ রিট আবেদনটি দায়ের করেন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আদালত রুল জারি করেছেন।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/মেহেদী/রফিক

রাইজিংবিডি.কম

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়