ঢাকা     শুক্রবার   ১৪ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ৩০ ১৪২৭ ||  ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

মানিলন্ডারিংয়ে আইন আছে, সমস্যা প্রয়োগে: টিআই সভাপতি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৪৪, ১২ জুলাই ২০২০  
মানিলন্ডারিংয়ে আইন আছে, সমস্যা প্রয়োগে: টিআই সভাপতি

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) সভাপতি ডেলিয়া ফ্যারাইরা রোবিও

মানিল্ডারিংয়ের মতো অপরাধ দমন বা প্রতিরোধে বিশ্বের অনেক দেশেই ভালো আইন থাকলেও এর প্রয়োগে প্রধান সমস্যা বলে মনে করেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) সভাপতি ডেলিয়া ফ্যারাইরা রোবিও।

রোববার (১২ জুলাই) বিকেলে মানবপাচার ও অর্থপাচারের মতো সংঘবদ্ধ অপরাধে জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ততা নিয়ন্ত্রণে নাগরিক সমাজের ভূমিকা শীর্ষক ভার্চুয়াল সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

টিআইবি ও কুয়েত ট্রান্সপারেন্সি সোসাইটি (কেটিএস) এ যৌথ সভার আয়োজন করে।

ডেলিয়া ফ্যারাইরা রোবিও বলেন, টিআই যেকোনও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর ভূমিকা রাখে, বিশেষ করে মানিলন্ডারিংয়ের মতো অপরাধ। দুর্নীতি এখন কেবল একটি দেশের ভেতরে নেই।  আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সংঘবদ্ধভাবে দুর্নীতি হচ্ছে।  যে কারণে মানিলন্ডারিংয়ের মতো অপরাধ সংঘঠিত হয়।

টিআই সভাপতি বলেন, আমাদের ফোকাস থাকতে হবে অর্থনৈতিক উৎস ও সাংগঠনিক কাঠামোর ওপর।  তবে বর্তমান সময়ে প্রযুক্তিগত বিষয়টির ওপর বেশি ফোকাস দেওয়া উচিত। সামগ্রিকভাবে মানিলন্ডারিং ও মানবপাচারের বিষয়টি দেখি, তাহলে আমাদের খুঁজতে হবে কারা কোম্পানির মালিক, কোন ব্যাংক হিসাব থেকে অর্থ লেনদেন হয় কিংবা ব্যাংক হিসাবের মালিক কারা।  কে লাভবান হচ্ছে—তা খতিয়ে দেখলেই প্রকৃত চিত্র পাওয়া যায়।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, রাজনীতি এখন ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগের একটি খাত হয়ে দাড়িঁয়েছে। ফলে ব্যবসায়ীরা ক্রমশ রাজনীতিতে ঝুঁকছেন। নিজেদের অবস্থান সুসংহত রাখতে রাজনীতি এখন পরিবারতন্ত্রের দিকে যাচ্ছে।  এমন অনেক পরিবার আছেন যাদের স্বামী ও স্ত্রী দুজনেই সংসদ সদস্য।

তিনি বলেন, সম্প্রতি কুয়েত আটক বাংলাদেশি সংসদ সদস্যের ক্ষেত্রে এমন দেখা যাচ্ছে।  নিজের অবস্থান সুসংহত করতে স্ত্রীকে সংসদ সদস্য বানিয়েছেন।  মানবপাচার ও অর্থপাচারের বিষয়ে তার বিরুদ্ধে সিআইডি খতিয়ে দেখছেন।  এছাড়া বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন তার অবৈধ সম্পদের বিষয়েটি খতি দেখছেন।  রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সংসদে বলেছেন, পাপুল কুয়েতের নাগরিক হলে তার সংসদ সদস্য পদ থাকবে না।

তিনি বলেন, সরকারি দলের তিনজন সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে অর্থপাচার ও অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান করছে দুদক।  মাদক ও মানবপাচারের সঙ্গে জড়িত এমন একজন সাবেক এমপির বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের অপরাধে আদালত থেকে সাজার রায় হয়েছে।  মানবপাচার ও অর্থপাচারের সম্পৃক্ততার ব্যাপকতা বেড়েছে।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট (সম্মানসূচক) সাবের হোসেন চৌধুরী ও কেটিএস এর সভাপতি মাজিদ আল মুতাইরি প্রমুখ।


এম এ রহমান/সাইফ

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়