Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ২৮ নভেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ১৪ ১৪২৮ ||  ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

বাঁ হাতের অর্ধেকটা নেই, তবুও অদম্য সৌমিক

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:১৪, ২১ মার্চ ২০২১   আপডেট: ২২:১৩, ২১ মার্চ ২০২১

শারীরিকভাবে একজন সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষ থেকে তিনি আলাদা। তবে মনোবলে সাহসিকতায় ছাড়িয়ে যাবেন যে কাউকেই। বাঁ হাতের অর্ধেকটা নেই, পায়েও আছে কিছু সমস্যা। তবুও খেলে বেড়াচ্ছেন টেবিল টেনিস। খেলার জন্য খেলছেন এমনটা নয়। অংশ নিচ্ছেন পেশাদার টুর্নামেন্টে। হারছেন, জিতছেন আনন্দ উৎসবে মেতে আছেন। এক কথায় অদম্য, অবিচল, অটল। 

বলছি নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র সৌমিক মণ্ডলের কথা। সম্প্রতি তিনি নজর কেড়েছেন রাজধানী ঢাকায় মহানগরী টেবিল টেনিস লিগ খেলতে এসে। পল্টনের শহীদ তাজউদ্দিন স্টেডিয়ামের সব আলো কেড়ে নিয়েছেন এই সৌমিক। এক হাতে তিনি যেভাবে প্রতিপক্ষকে নাচান তা দেখে মুগ্ধ হওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই। 

টেবিল টেনিসের আঁতুড়ঘর নড়াইলে তার জন্ম। খেলেন নড়াইল ক্লাবে। কীভাবে পথচলা শুরু? জানতে চাইলে মুখ ভরা হাসি নিয়ে বলেন, ‘আমি একবার আম্মুর সঙ্গে মাঠে ক্রিকেট খেলতে গেছি। সেখানে এক আন্টির সঙ্গে দেখা হয়। আন্টি আমার আম্মুকে বলেন ওর তো সমস্যা ও ক্রিকেটে ভালো করবে না, ওকে টেবিল টেনিসে দেন ও ভালো করতে পারবে। সেই থেকে আমাকে আমার মা-বাবা টেবিল টেনিসে দিয়েছে।’

সেখানেই সৌমিকের শুরু। দৃঢ় মনোবলের তরুণ নিজেকে থামাননি। অর্ধেক হাত নিয়েও সমস্যায় পড়েননি। ভোগেননি হীনমন্যতায়। দুই বছর আগ থেকে খেলা শুরু করা সৌমিক ১৪ তে পা রেখেছেন। টেবিল টেনিস তার নেশা। পাশাপাশি চালিয়ে যেতে চান পড়াশোনা। তার ক্লাবে আছে নানা প্রতিবন্ধকতা। টেবিল টেনিসের বোর্ড আছে দুটি; একটির অবস্থা বাজে। নেই শৌচাগার। বেতন পান মাসিক ২০০ টাকা। ঢাকায় টুর্নামেন্ট খেলতে এসে সৌমিকের চোখ জুড়িয়ে যায়। নিজের ঘরে বা ক্লাবে এমন বোর্ডের স্বপ্নও দেখেন তিনি। 

সৌমিক বলেন, ‘এখানে অনেক ভালো লাগছে, বড় জায়গা, বড় বড় টেবিল। নড়াইলে এতো টেবিল নেই। মাত্র দুটি টেবিল, তাও একটার মান খুবই খারাপ। আমরা ৬০ জনের মতো খেলি। ফলে খুব ভালো একটা অনুশীলন করা যায় না। আমাদের ক্লাব অনেক ছোট, এটা বড় করে টেবিল বাড়ানো গেলে ভালো হতো। প্রতিমাসে আমাদের ক্লাব থেকে মাত্র ২০০ টাকা বেতন দেওয়া হয়। আরও বাড়ালে ভালো হয়।’

এত কিছুর পরও সৌমিক খেলেন মন দিয়ে। ঢাকায় প্রতিযোগিতায় নিজের চেয়ে দ্বিগুণ বয়সী খেলোড়াদের সঙ্গে লড়তে হচ্ছে। তবুও ঘাবড়ে যান না। ডান হাত দিয়ে খেললেও সৌমিক বলের নিয়ন্ত্রণে বাঁ হাতকে কাজে লাগান অসাধারণ ভাবে। যেনো না থেকেও আছে হাত।  এই টেবিল টেনিসকে সৌমিক পেশা হিসেবেই নিতে চান। লক্ষ্য টেবিল টেনিসের প্যারা অলিম্পিকে যাওয়া, ট্রফি জয় করা। মা-বাবাসহ সৌমিকের সঙ্গে ঢাকা এসেছেন তার কোচ জাহিদ হাসান বিপ্লব। খেলার সময়ও কোচকে দেখা গেছে দূর থেকে সঙ্কেত দিয়ে বিভিন্ন বিষয় বুঝিয়ে দিতে। গুরুর ভাষায় শিষ্য সৌমিক প্রতিভাবান। তার অনেক দূর যাওয়ার ক্ষমতা আছে।  

বিপ্লব বলেন, ‘ও (সৌমিক) যখন প্রথম আমার কাছে আসে আমি চিন্তায় ছিলাম পারবে কি পারবে না। কারণ এমন খেলোয়াড় এর আগে কখনো আমার কাছে আসেনি। অভিজ্ঞতা ভয়ঙ্কর হলেও চেষ্টা করে দেখলাম ও ভালো টেনিস খেলতে পারে। ও খুবই প্রতিভাবান। ওকে যা যা বলি সবই ভালোভাবে করে। তবে পায়ে একটু সমস্যা থাকায় একটু কষ্ট হয়। আমার টার্গেট ওকে বিশ্বকাপ ও প্যারা অলিম্পিকে খেলানো। ওদের এগিয়ে নিতে হলে আমাদের আরো ভালো অনুশীলনের ব্যবস্থা দরকার।’

সৌমিক জীবনের দৌড়ে হারতে চান না। স্বপ্নের ডানা মেলে উড়তে চান। দেশকে প্রতিনিধিত্ব করতে চান। অর্ধেক হাত-ই তো নেই। যেটুকু স্রষ্টা দিয়েছেন সেটুকু নিয়ে লড়াই চালিয়ে যেতে চান। সৌমিক পারবেন। কারণ তিনি অদম্য।

ঢাকা/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়