ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ৫ ১৪২৮ ||  ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সাকিবের ফেরার ম্যাচে জয়ের লক্ষ্যে নামবে বাংলাদেশ

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫৪, ৩ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ২২:৫৬, ৩ ডিসেম্বর ২০২১
সাকিবের ফেরার ম্যাচে জয়ের লক্ষ্যে নামবে বাংলাদেশ

ঢাকা টেস্টের আগে আনুষ্ঠানিক অনুশীলনের প্রথম দিন। শের-ই বাংলার ইনডোরে চোখ আটকে যায় একটি দৃশ্যে। বিশ্রাম নিচ্ছেন সাকিব আল হাসান। একটু পরে যোগ দিলেন অধিনায়ক মুমিনুল হক, আবু জায়েদ রাহি এবং প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। মুমিনুল-রাহি সাকিবের দুই পাশে আর দাঁড়িয়ে ডমিঙ্গো। সাকিব-ডমিঙ্গো দুজনে মেতে উঠেছেন আড্ডা-খুনসুঁটিতে, মেতে ওঠেন অট্টহাসিতে। ডমিঙ্গোকে দেখা যায় আঙুল তুলে কী যেন বলতে, পেছন দিক থেকে হওয়াতে মুমিনুলের চেহারা বোঝা যাচ্ছিল না কিন্তু রাহি নেটের অনুশীলনের দিকে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকলেও ঠোঁটের কোণে দেখা মেলে হাসির।

স্বল্প সময়ের এই দৃশ্যে বোঝা যায় সাকিব প্রাণ সঞ্চার করেছেন বাংলাদেশ দলে। বিশ্বকাপে পাওয়া হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে খেলতে পারেননি টি-টোয়েন্টি সিরিজ। প্রথম টেস্টের দলে থাকলেও শেষ মুহূর্তে ছিটকে পড়েন একই কারণে। এমনিতে সাকিব টেস্ট দলে এখন নিয়মিত মুখ না। কখনো ইনজুরি আবার কখনো ব্যক্তিগত কারণে এড়িয়ে গেছেন এই সংস্করণ। এই বছর ৬টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ, তার মধ্যে সাকিব ছিলেন মাত্র দুটিতে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে এখন পর্যন্ত ৪টি ম্যাচ খেলে সবকটিতেই হেরেছে বাংলাদেশ। সাকিবকে নিয়ে শেষ ম্যাচে তাই হয়তো জয়ের স্বপ্নও দেখছেন অধিনায়ক মুমিনুক হক। তাইতো ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে ঘটা করে বলেও দিয়েছেন, ‘সাকিব থাকলে দলের জন্য অনেক কিছু সহজ হয়।’ একই কথা বলেছেন বিকেএসপি’র ক্রিকেট উপদেষ্টা নাজমুল আবেদীন ফাহিমও। 

মুমিনুল বলেন, ‘সাকিব দলে ঢুকলে তো একটু সহজ হয়, তা সবারই জানা। আর উনাকে দেখলাম, উনি ভালোই আছেন। অনুশীলন করেছেন, ভালোই লাগছে দেখে।’

ফাহিম বলেন, ‘আর সাকিব থাকায় বাংলাদেশ একজন ব্যাটসম্যান একজন বোলার একসঙ্গে পাবে। অধিনায়কের জন্য সুবিধা হবে। হাতে একজন বাড়তি বোলার থাকবে। সবকিছু মিলিয়ে সাকিবের উপস্থিতিটা গুরুত্বপূর্ণ, দলের শক্তি বাড়বে, তার টেকনিক্যাল জ্ঞান কাজে লাগবে। ও যদি খেলে আমাদের জন্য এটি বড় পাওনা হবে।’

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় মিরপুর শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ-পাকিস্তান।

সাদা পোশাকে শের-ই বাংলায় ব্যাটিং কিংবা বোলিং দুই জায়গাতেই সবার ওপরে সাকিব। ব্যাট হাতে ১৭ টেস্টে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৩১৩ রানের পাশাপাশি বল হাতে সর্বোচ্চ ৬৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি। সবকিছু মিলিয়ে সাকিবের অন্তর্ভুক্তি দলের শক্তি নিঃসন্দেহে বাড়িয়ে দেবে কয়েকগুণ।

প্রথম টেস্টে বিব্রতকর ব্যাটিংয়ের খেসারত দিতে হয়েছে ৮ উইকেটে হেরে। অথচ প্রথম ইনিংসে ৪৪ রানের লিড নিয়েছিল বাংলাদেশ। তাই এবার মুমিনুল টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের কাছে রান প্রত্যাশা করছেন। তার মতে শুরুতে ব্যাটসম্যানরা যদি কিছু রান করে দিতে পারে তাহলে সহজ হবে দলের জন্য।

জয়ের জন্য মাঠে নামবেন জানিয়ে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় টেস্ট ম্যাচে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রথম ১ ঘন্টা। আমার কাছে মনে হয় আমরা যদি উপর দিকে ভাল একটা শুরু করে দিতে পারি আমাদের সবার জন্য সহজ হবে। আপনি জানেন আমাদের শক্তি হল ব্যাটিং। ব্যাটিংয়ে দুই থেকে আড়াই দিন পাঁচ-ছয় সেশন যদি ব্যাটিং করতে পারি তাহলে আমার কাছে মনে হয় যে আমরা খেলায় ফিরতে পারবো। অবশ্যই আমি আশাবাদী, কেউই তো ম্যাচ হারার জন্য মাঠে নামে না, আমরা অবশ্যই জেতার জন্য নামবো।’

যদিও মিরপুরে স্পিনাররাই রাজত্ব করেছে বারংবার তবুও মুমিনুল স্পিন উইকেট চান না। তিনি চান ফ্ল্যাট উইকেট। তবে কেমন উইকেট হবে শেষ পর্যন্ত সেই বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা দিতে পারেননি। বাংলাদেশ নামতে পারে সাত ব্যাটসম্যান ৪ পেসার নিয়ে। সাইফ হাসান ছিটকে গেছেন দল থেকে, মুমিনুল জানিয়েছেন ডানহাতি-বামহাতি কম্বিনেশনে হতে পারে ওপেনিংয়ে। তাই অভিষেক হতে পারে মাহমুদুল হাসান  জয়ের। সাকিবের ফেরায় কপাল পুড়তে পারে ইয়াসির আলী রাব্বির। চট্টগ্রাম টেস্টে যার অভিষেক হয়েছিল। ইনজুরি কাটিয়ে তাসকিন আহমেদ ফিরলেও তার খেলার সম্ভাবনা কম। তার জন্য দল অপেক্ষা করবে সকাল পর্যন্ত।

সেক্ষেত্রে আবু জায়েদ রাহি-এবাদত হোসেনই থাকতে পারেন পেস আক্রমণে। আর স্পিনে তাইজুল ইসলামের সঙ্গী হিসেবে মেহেদি হাসান মিরাজে আস্থা রাখতে পারে টিম ম্যানেজম্যান্ট।

এদিকে প্রথম টেস্ট জয়ের অন্যতম নায়ক শাহীন শাহ আফ্রিদি জানিয়েছেন তারাও প্রস্তুত দ্বিতীয় টেস্টের লাড়াইয়ের জন্য, সিরিজ জিতেই ফিরতে চান দেশে। দলের মোমেন্টাম খুব ভালো অবস্থায় জানিয়ে এই পেসার বলেন, ‘মোমেন্টাম খুব ভালো আছে, দলের কম্বিনেশন দারুণ। ছেলেরা প্রস্তুত দ্বিতীয় টেস্টের জন্য। অবশ্যই লড়াই করবো ও ভালোভাবে শেষ করবো এবং এখান থেকে সিরিজ জিতে ফিরবো।’

বাংলাদেশের আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়েছে বড় হার দিয়ে। এই ম্যাচে জয় কিংবা ড্র এনে দিতে পারে স্বস্তির সঙ্গে পয়েন্টও। চলতি বছরের শেষ টেস্টে বাংলাদেশ কি পারবে জয় দিয়ে রাঙাতে? শেষ থেকে নতুন শুরু করতে পারবে মুমিনুলের দল? হয়তো তা বোঝা যাবে ম্যাচের প্রথম ঘণ্টাতেই!

ঢাকা/আমিনুল

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়