ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ৩০ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৬ ১৪৩১

আমি মালদ্বীপপন্থি: নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মুইজ্জু  

মোহাম্মদ মাহামুদুল, মালদ্বীপ থেকে || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:১৬, ৩ অক্টোবর ২০২৩   আপডেট: ২২:৪৪, ৩ অক্টোবর ২০২৩
আমি মালদ্বীপপন্থি: নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মুইজ্জু  

মালদ্বীপের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ড. মোহাম্মদ মুইজ্জু বলেছেন, আমি মালদ্বীপপন্থি। মালদ্বীপপন্থি নীতিকে যারা সম্মান করে, এমন সব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলব। 

শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পিপিএম-পিএনসি’র প্রার্থী ড. মোহাম্মদ মুইজ্জু বর্তমান প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহকে ৮ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে বিজয়ী হন। এর পর বিবিসি, সিএনএন, গার্ডিয়ান, আল জাজিরা, ওয়াশিংটন পোস্ট এবং স্থানীয় শীর্ষ সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে যে, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে চীনপন্থি প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। এতে ক্ষোভ ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন ড.মোহাম্মদ মুইজ্জু। 

স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, সোমবার (২ অক্টোবর) রাজধানী মালে সিটিতে বিজয় সমাবেশে মোহাম্মদ মুইজ্জু মালদ্বীপ প্রশাসনের পররাষ্ট্রনীতিকে ‘মালদ্বীপপন্থি’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। 

তিনি বলেছেন, আমি আশা করি, বিশ্বের সকল দেশ মালদ্বীপের স্বাধীনতা এবং সার্বভৌমত্বকে সম্মান করবে। সব দেশ আমাদের স্বায়ত্তশাসনকে সম্মান করবে এবং মেনে নেবে যে, স্বাধীনতা রক্ষার অধিকার তাদের মতো আমাদেরও আছে। সারা বিশ্বে লক্ষ লক্ষ পাঠক যেসব সংবাদমাধ্যম পড়ে ও দেখে, সেসব মিডিয়ায় মুইজ্জুকে চীনপন্থি নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করা খুবই দুঃখজনক।  

সমাবেশে মোহাম্মদ মুইজ্জু বলেন, স্ট্যান্ডার্ড প্রটোকল অনুযায়ী বিদেশি সেনাদের বহিষ্কার করা হবে। আমি আত্মবিশ্বাসী যে, আমরা এটা করতে পারব। জনগণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তারা মালদ্বীপে বিদেশি সৈন্য চায় না। আমার সাথে দেখা করতে আসা রাষ্ট্রদূতদের কাছে আমার বার্তা হলো—আপনি এই ভিত্তিতে আমাদের সাথে সম্পর্ক বজায় রাখতে পারেন, কূটনৈতিক সম্পর্কের মাধ্যমে যেকোনো কিছু অর্জন করা যেতে পারে। 

মালদ্বীপের জনগণ যা চায়, সে কাজই করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জু। 

সংবাদমাধ্যমগুলো আগামী পাঁচ বছরের জন্য মালদ্বীপের নেতা নির্বাচনের জরিপকে ভারত ও চীনের মধ্যে যুদ্ধ হিসেবে বর্ণনা করেছিল। সলিহকে ভারতপন্থি এবং মুইজ্জুকে চীনপন্থি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল।

ড. মোহাম্মদ মুইজ্জু বলেছেন, একটি দেশের স্থিতিশীলতা কেবল অভ্যন্তরীণ বিষয়ের ওপর নির্ভর করে না। ভূ-রাজনীতি এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। মালদ্বীপের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিদেশি হস্তক্ষেপ বন্ধ করার জন্য ভারসাম্যপূর্ণ পররাষ্ট্রনীতি গ্রহণ করা হবে। এজন্য প্রয়োজন সব দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা। 

মোহাম্মদ মুইজ্জু তার মালদ্বীপপন্থি নীতির মাধ্যমে সব দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

হাসান/রফিক

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ