ঢাকা     রোববার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১২ ১৪৩০

কুয়েতে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে সংবর্ধনা

আ হ জুবেদ, কুয়েত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:১৮, ২৯ নভেম্বর ২০২৩  
কুয়েতে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে সংবর্ধনা

‘কুয়েতের জন্য বাংলাদেশের জনগণের অন্তরে রয়েছে বিশেষ স্থান’ বাংলাদেশের অন্যতম বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র কুয়েত।

কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. আশিকুজ্জামান ৫২তম বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

সোমবার (২৭ নভেম্বর) স্থানীয় মিলেনিয়াম হোটেল এন্ড কনভেনশন সেন্টারে প্রতি রক্ষা শাখা, বাংলাদেশ দূতাবাস, কুয়েতের উদ্যোগে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

কুয়েতস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের ডিফেন্স এ্যাটাশে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ হাসান উজ জামান এর পরিচালনায় এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুয়েত সশস্ত্র বাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল লাফি মালফি আল-মুতাইরী।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক বিদেশি কূটনীতিক ও সামরিক এ্যটাশেগন, স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং বিদেশি অতিথিসহ কুয়েতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শুরু হয় বাংলাদেশ এবং কুয়েতের জাতীয় সংগীত বাজানোর মধ্য দিয়ে পরে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ হাসান উজ জামান।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হাসান তার বক্তব্যে উল্লেখ্য করেন যে, ‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস’  বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের এবং  বাংলাদেশের আপামর জনগণের কাছে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিবস। বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর জন্ম হয় মুক্তিযুদ্ধের সময় তাই বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী জনগণের সশস্ত্র বাহিনী হিসেবে পরিচিত।

তিনি বলেন, জনগণের কাছ থেকে আস্থা এবং এই স্বীকৃতি অর্জনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অবদান। বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন, দুর্যোগ মোকাবিলা, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশন এবং কুয়েত পুনর্গঠনে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অবদান অনস্বীকার্য।

ফোর্সেস গোল ২০৩০ অনুসারে সশস্ত্র বাহিনীকে গড়ে তোলার জন্য প্রধানমন্ত্রী, নিরাপত্তা উপদেষ্টা, তিন বাহিনী প্রধান এবং প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী বিভাগকে ধন্যবাদ জানান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হাসান।

প্রধান অতিথির বক্তব্য কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান কুয়েত এবং বাংলাদেশকে একটি ‘ষ্ট্র্যাটেজিক সম্পর্কের’ অংশীদার উল্লেখ করে বলেন যে, এই দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক অবিচ্ছেদ্য ও ইতিহাস নির্ভর।

বিশেষ অতিথি লাফি মালফি আল-মুতাইরী তার বক্তব্যে কুয়েত পুনর্গঠনে নিয়োজিত বাংলাদেশ মিলিটারি কন্টিনজেন্ট এর প্রশংসা করেন।

উল্লেখ্য, স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন ১৯৭১ সালের ২১ নভেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় ইতিহাসে একটি গৌরবজ্জ্বল দিন। এই দিনে হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী ‘সশস্ত্র বাহিনী’ হিসাবে আক্রমণ সূচনা করে। যে কারণে প্রতি বছর ২১ নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবস হিসেবে পালন করা হয়। 

/হাসান/এসবি/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়