RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||  ফাল্গুন ১২ ১৪২৭ ||  ১২ রজব ১৪৪২

পথশিশুদের ‘আম্মু’ ডাকে আবেগাপ্লুত ইউএনও

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:০৪, ১৫ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৮:৩১, ১৫ জানুয়ারি ২০২১
পথশিশুদের ‘আম্মু’ ডাকে আবেগাপ্লুত ইউএনও

ইমরান হেলাল (৮) ও খাদিজা আক্তার মিম (৯)। এরা কোনো না কোনো পরিবারের সন্তান। কিন্তু মা-বাবা ও স্বজনদের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন এ দুই কোমলমতি শিশু। নিয়তির নির্মম পরিহাসে আজ তারা ‘পথশিশু’ নামেই পরিচিত সভ্য সমাজের কাছে। পথে-ঘাটে ভিক্ষা করেই জীবিকা নির্বাহ করে তারা। 

শিশু দু’টিকে উদ্ধার করে মাতৃ স্নেহে কোলে তুলে নিলেন খুলনার রূপসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন আক্তার। চুমু খেলেন, আদরও করলেন। কিন্তু এ আদর-স্নেহ সাময়িক। আপাতত তাদের ঠিকানা হয়েছে খুলনার শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে। 

ইমরান হেলালের বাবার নাম জুয়েল, মায়ের নাম লাবনী। খাদিজা আক্তার মিমের বাবার নাম খোকন, মায়ের নাম শাবানা। এই পরিচয় ছাড়া শিশু দুটি আর কিছুই বলতে পারে না। তবে তারা নিজেদের মা-বাবাকে কখনও দেখেনি। নানির কাছেই বেড়ে উঠছে। 

কিছুদিন আগে তাদের উভয়ের নানী মারা যাওয়ায় তারা আশ্রয়হীন হয়ে পড়ে। তবে কীভাবে, কার মাধ্যমে সেনেরবাজার ঘাট এলাকায় এসেছে- সে বিষয়ে কিছুই বলতে পারেনি শিশু দুটি। 

স্থানীয়দের ধারণা- শিশু দুটি বরিশাল জেলার কোনো একটি গ্রামের বাসিন্দা হতে পারে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৩ জানুয়ারি রাতে রূপসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন আক্তার জানতে পারেন- উপজেলার আইচগাতী সেনের বাজার ঘাট এলাকায় দুটি শিশু দিনে ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবিকা নির্বাহ করে এবং রাতে রাস্তার পাশে ঘুমিয়ে থাকে।

এ খবর পেয়ে পর দিন ১৪ জানুয়ারি সকালেই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান বাবুল ও ক্যাম্প ইনচার্জ এসআই সেকেন্দার শিশুদের উদ্ধার করে নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে যান। নির্বাহী কর্মকর্তা তাদেরকে নিরাপদ আশ্রয়ে প্রেরণ করার উদ্দেশ্যে যোগাযোগ শুরু করেন। 

তিনি খুলনা ও বাগেরহাট বিভাগের বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করে কোথাও শিশুদের পুনর্বাসনে ব্যবস্থা করতে না পারেননি। এক পর্যায়ে হতাশ হয়ে পড়েন। অবশেষে যোগাযোগ করেন খুলনা শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পূর্নবাসন কেন্দ্রে। সেখানকার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সব বিষয় শুনে তাদেরকে গ্রহণ করার সম্মতি দেন। 

পরে শিশু দুটিকে গোসল করিয়ে দুপুরের খাবার খাওয়ানো হয়। নতুন পোষাক কিনে করে তা নিজ হাতে পরিয়ে দেন নির্বাহী কর্মকর্তা। এছাড়া তাদের চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে মেডিক‌্যাল অফিসারকে খবর দেওয়া হয়। 

তাৎক্ষণিকভাবে মেডিক‌্যাল অফিসার ডা. পিকিং শিকদার নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে এসে তাদেরকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন। 

এদিকে পেরিয়ে গেছে ছয় ঘণ্টা। এক পর্যায়ে খুলনা শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুর্নবাসন কেন্দ্রে শিশু দুটিকে পৌঁছানোর জন্য পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। যখনই শিশু দুটি বুঝতে পারে তাদেরকে নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয় ছেড়ে চলে যেতে হবে, তখন তারা কান্নায় ভেঙে পড়ে। 

তারা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ‘আম্মু’ সম্বোধন করে জড়িয়ে ধরে চুম্বন করতে থাকে। এসময় নির্বাহী কর্মকর্তাও তাদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে তাদেরকে নিজ সন্তানের মতো চুম্বন করেন। সেসময় প্রত্যক্ষদর্শীরাও আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ে। 

দুপুর থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত নির্বাহী কর্মকর্তাকে এ কাজে সহযোগিতা করেন উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. আবু বকর মোল্লা, সমাজসেবক হাবিবুর রহমান, আজিজুল ইসলাম ও গণমাধ্যমকর্মীসহ নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা।

রূপসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন আক্তার বলেন, ‘ফুটফুটে শিশু দুটি কারও না কারও আদরের ধন। কিন্তু যে কোনো কারণেই হোক, তারা আজ পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন-আশ্রয়হীন। যে কারণে তাদের উদ্ধার করে একটি আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরিবারের সঠিক ঠিকানা পাওয়া গেলে তাদেরকে অভিভাবকের হাতেই তুলে দেওয়া হবে।’

নূরুজ্জামান/সনি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়