Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ৩ ১৪২৮ ||  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

২ স্কুলশিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত, কর্তৃপক্ষের ভিন্ন মত

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:১৩, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৯:১৬, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
২ স্কুলশিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত, কর্তৃপক্ষের ভিন্ন মত

দীর্ঘ দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে দেশব‌্যাপী সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। স্কুল খোলার কয়েকদিনের মধ্যেই গোপালগঞ্জের দুটি আলাদা স্কুলের দুজন ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে সেসব স্কুল কর্তৃপক্ষ বলছে তারা করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর স্কুলে এসেছে।

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী মোনালীসার করোনা পরীক্ষার ফল পজেটিভ আসে। এর আগে ১৭ সেপ্টেম্বর করোনা আক্রান্ত হয় জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার ৪ নম্বর ফেরধারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী তানিয়া খানম।

দুই শিক্ষার্থীর করোনা শনাক্তের খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যালয় দুটির শ্রেণিকক্ষ তালাবন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে উপজেলা প্রশাসন ও স্কুল কর্তৃপক্ষ দাবি করে- বাড়ি বা অন্য কোনো স্থান থেকে ওই দুই ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারে।

বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার জানান, ১২ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয় খোলার পর নিয়মিত ক্লাস করছিল পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোনালীসা। ১৪ সেপ্টেম্বর তার মাথা ব্যাথা ও জ্বর শুরু হয়। এরপর থেকে সে আর বিদ্যালয়ে আসেনি। ২১ সেপ্টেম্বর করোনা পরীক্ষা করা হয়। ২২ সেপ্টেম্বর মোনালীসার করোনা পজেটিভ আসে।

মোনালীসার মা মিতু খানম বলেন, ‘বিদ্যালয় বন্ধ থাকাকালীন আমার মেয়ে বাড়িতে ছিলো। সে সুস্থ ছিলো। ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল খোলে। সেদিন থেকে সে স্কুলে যাওয়া শুরু করে। ১৪ সেপ্টেম্বর তার মাথা ব্যাথা ও হালকা জ্বর শুরু হয়। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তাকে আর স্কুলে যেতে দেইনি। জ্বর না কমায় ২১ সেপ্টেম্বর তার করোনা পরীক্ষা করানোর জন‌্য নমুনা দেওয়া হয়ে। পরের দিন ২২ সেপ্টেম্বর মোনালীসার করোনা পরীক্ষার ফল পজেটিভ আসে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) মেয়েকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি করি। সেখানে অক্সিজেন সাপোর্টে রাখার পর এখন কিছুটা উন্নতি হয়েছে। আমাদের পরিবারে অন্য কোনো সদস্য এর আগে করোনায় আক্রান্ত হয়নি।’

বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার বলেন, ‘‘মোনালীসা সর্বশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর স্কুলে এসেছিল। সেদিন তার মধ্যে করোনার উপসর্গ জ্বর ও মাথা ব্যথা ছিল। পরে জানতে পারি তার করোনা পজেটিভ এসেছে। আমরা সার্বক্ষণিক তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।

‘সে বিদ্যালয়ের যে কক্ষে ক্লাস করেছিলো, সেই কক্ষটি স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশে বন্ধ রাখা হয়েছে। বাকি শ্রেণির ক্লাসগুলো স্বাভাবিক নিয়মেই চলছে। তবে অন্য কোনো শিক্ষার্থী‌র মধ্যে করোনার উপসর্গ এখনো দেখা যায়নি। আমরা শিক্ষার্থী‌দের নিয়মিত তাপমাত্রা মেপে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করাচ্ছি।’’

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রুবাইয়া ইয়াসমিন বলেন, ‘বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। বিষয়টি জানার পর আমরা ওই বিদ্যালয়টির দ্বিতীয় তলার ২০১ নম্বর কক্ষ বন্ধ করে দিয়েছি।’

এদিকে কোটালীপাড়ার ৪ নম্বর ফেরধারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী তিনা খানম ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুলে আসে এবং নিয়মিত ক্লাসে করতে থাকে।

১৩ সেপ্টেম্বর তিনা জ্বরে আক্রান্ত হয়। পরে ১৬ সেপ্টেম্বর তার নমুনা পরীক্ষা করানো হয়। ১৭ সেপ্টেম্বর পরীক্ষার ফলাফলে জানা যায় তিনার করোনা পজেটিভ। এরপর থেকে তাকে নিজ বাড়িতে মায়ের সঙ্গে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বাড়িতেই তার চিকিৎসা চলছে।

স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশে ফেরধারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণি ১৪ দিনের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। বাকি শ্রেণির ক্লাসগুলো স্বাভাবিক নিয়মেই চলছে। এছাড়া ওই বিদ্যালয়ের পঞ্চম ও তৃতীয় শ্রেণির আরও চার শিক্ষার্থী সর্দি জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

কোটালীপাড়া উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা শংকর কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘এক শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে জানতে পেরে স্কুলে গিয়ে ওই শিক্ষার্থীর খোঁজ খবর নিই। পরে তাকে বিভিন্ন ধরনের ফল ও খাবার দিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করি। তৃতীয় শ্রেণির ওই কক্ষটি ১৪ দিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে স্কুল বন্ধ করার বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’

কোটালীপাড়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ফেরদৌস ওয়াহিদ বলেন, ‘ঘটনার খবর শুনে স্কুলটি পরিদর্শন করেছি। ওই শিক্ষার্থীর মায়ের করোনা পজেটিভ। তার কাছ থেকেই মেয়েটি ইনফেকটেড হতে পারে। তবে ওই শ্রেণির সব শিক্ষার্থীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিবেচনা করে সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে। আপাতত ওই শ্রেণিকক্ষে ১৪ দিনের জন্য পাঠদান বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়া ওই স্কুলের আরও চার শিক্ষার্থীর জ্বর রয়েছে। তাদেরকেও হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য বলা হয়েছে।’

গোপালগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. সুজাত আহমেদ বলেন, ‘গোপালগঞ্জ ও কোটালীপাড়ায় দুই শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। বর্তমানে তারা সুস্থ আছে। আমরা তাদেরকে করোনার চিকিৎসা দিচ্ছি। বীণাপানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোনালীসা ইসলাম গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন আছে। এছাড়া ফেরধারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী তিনা খানম বাসায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছে। আশা করছি তারা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবে।’

বাদল/মাসুদ/সনি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়