ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৯ ||  ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

কুড়িয়ে পাওয়া টাকা অন্ধ হাফেজের চিকিৎসায় দিলেন সৌরভ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:১৪, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২  
কুড়িয়ে পাওয়া টাকা অন্ধ হাফেজের চিকিৎসায় দিলেন সৌরভ

হাফেজ হৃদয়ের হাতে তিন লাখ টাকার চেক তুলে দেন সৌরভ।

ঠাকুরগাঁওয়ে কুড়িয়ে পাওয়া পাঁচ লাখ টাকার মধ্যে তিন লাখ টাকা এক অন্ধ হাফেজের চিকিৎসায় দিয়েছেন সৌরভ হোসেন। সম্প্রতি তিনি কুড়িয়ে পাওয়া ৫ টাকা ফেরত দিতে মাইকিং করে আলোচিত হন। 

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ঠাকুরগাঁও পৌরশহরে মুন্সিরহাট মহল্লার অন্ধ হাফেজ মো. হৃদয়ের চোখের চিকিৎসায় ৩ লাখ টাকার একটি চেক হস্তান্তর করেন সৌরভ। 
 
এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও আবু তাহের মো. শামসুজ্জামান, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান বাবু, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সন্তোষ কুমার আগারওয়ালা, ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী প্রমুখ। 

আরো পড়ুন: কুড়িয়ে পাওয়া ৫ লাখ টাকা ফেরত দিতে মাইকিং 

সৌরভ বলেন, ‘আমি জানতে পারি অন্ধ হাফেজ হৃদয় ২৮ পাড়া কোরআন মুখস্ত করেছেন। মসজিদে আযান দেন। ডাক্তার বলেছেন তার চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার দরকার। অনেক দিন ধরে বিভিন্ন জনের কাছে সহায়তা চেয়েছেন হৃদয়। অনেকেই তাকে সাহায্য করেছেন। সে দেখতে চায়। আমি তাই তাকে তিন লাখ টাকা দিয়েছি। এর বাইরেও যদি হৃদয়ের চিকিৎসায় টাকার প্রয়োজন হয় তাহলে আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে সহযোগিতা করবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘কুড়িয়ে পাওয়া বাকি দুই লাখ টাকার মধ্যে আমার এক বন্ধুর বাবা আইসিইউতে আছেন সেখানে কিছু দেবো। আর স্থানীয় কিছু গরিব মানুষদের মধ্যে বাকি টাকাটা দিয়ে দেবো।’ 

সহযোগীতা পাওয়া হৃদয় বলেন, ‘এমন খুশি আগে কখনো হয়নি। টাকাটা আমার খুবই দরকার ছিলো। আমার জন্য দোয়া করবেন যেন আমি  চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ্য চোখ নিয়ে এই পৃথিবীর আলো দেখতে পারি।’

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও আবু তাহের মো. সামসুজ্জামান বলেন, ‘এটি একটি ভালো উদ্যোগ। আমি সৌরভকে ধন্যবাদ জানাই। একই সঙ্গে দোয়া করি হৃদয় যেন সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরে আসেন।’ 

উল্লেখ্য, গত ২০ আগস্ট কুড়িয়ে পাওয়া ৫ লাখ টাকা মালিককে ফিরিয়ে দিতে ঠাকুরগাঁওয়ে মাইকিং করেছিলেন সৌরভ। টাকা ফেরত দিতে মালিকের জন্য এক মাস অপেক্ষা করেছেন তিনি। কিন্তু কেউ টাকার যথাযথ প্রমাণ দিয়ে মালিকানা দাবি করেননি। আর তাই কুড়িয়ে পাওয়া ওই টাকা গরিবদের মধ্যে বিলিয়ে দিতে শুরু করেছেন সৌরভ। 

মঈনুদ্দীন/ মাসুদ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়