ঢাকা     শনিবার   ০২ মার্চ ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১৮ ১৪৩০

আগরতলায় প্রথমবারের মতো গেলো বাংলাদেশের ট্রেন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৫৭, ৩০ অক্টোবর ২০২৩   আপডেট: ১৬:১৪, ৩০ অক্টোবর ২০২৩
আগরতলায় প্রথমবারের মতো গেলো বাংলাদেশের ট্রেন

আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলপথ দিয়ে প্রথমবারের মতো ভারতের আগরতলার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে বাংলাদেশের ট্রেন। সোমবার (৩০ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বাংলাদেশ রেলওয়ের ছয়জন স্টাফ নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গঙ্গাসাগরে নবনির্মিত রেলওয়ে স্টেশন থেকে পাঁচটি বগি নিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে আগরতলার নিশ্চিন্তপুর রেলওয়ে স্টেশনের উদ্দেশে ছেড়ে যায় ট্রেনটি।

এর আগে চলতি বছরের সেপ্টেম্বরের ১৪ তারিখে প্রথম ট্রায়াল রান হয় বহুল কাঙ্ক্ষিত আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলপথে। 

আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলপথের বাংলাদেশ অংশের প্রকল্প পরিচালক আবু জাফর মিয়া বলেন, পরীক্ষামূলক ট্রেন চলাচল সফল হওয়ায় আগামী ১ নভেম্বর (বুধবার) বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলপথে উদ্বোধন করবেন। উদ্বোধনের পর প্রথমদিকে পণ্যবাহী ট্রেন এবং পরবর্তীতে যাত্রীবাহী ট্রেনও চালানো হবে এই রুটে।

ট্রেন নিয়ে ভারতের আগরতলায় যাওয়ার অনুভূতি জানাতে গিয়ে ট্রেন চালক মো. মাফুজুর রহমান বলেন, একজন চালক হিসেবে প্রথমবারের মতো আমাদের ৬ জন স্টাফ নিয়ে আগরতলায় প্রবেশ করছি। 

টেক্সমেকো রেল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেডের কান্ট্রি ম্যানেজার শরৎ শর্মা বলেন, প্রকল্প, কাস্টমস ও ইমিগ্রেশন ভবনের কাজ প্রায় শেষের দিকে। উদ্বোধনের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত আছে রেলপথ। এই রেলপথে ৭৯ কিলোমিটার গতিতে ট্রেন চালানো যাবে। 

আখাউড়া গঙ্গাসাগর রেল স্টেশনের ইমিগ্রেশন ইনচার্জ আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আজকে আমার প্রথম কর্মদিবস। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানায়, আমাকে এখানে দায়িত্ব দেওয়ার জন্য। আজকে প্রথম ৬জন স্টাফের ইমিগ্রেশন কাজ করেছি। তারাই প্রথম ইমিগ্রেশন করেছেন এই নতুন গঙ্গাসাগর ইমিগ্রেশনে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১৮ সালের জুলাইয়ে ভারতের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টেক্সমেকো রেল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড আখাউড়া-আগরতলা রেলপথের নির্মাণকাজ শুরু করে। ১২ দশমিক ২৪ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের রেলপথের বাংলাদেশ অংশ ৬ দশমিক ৭৮ কিলোমিটার। করোনা মহামারিসহ নানা সংকটে দেড় বছর মেয়াদী এই প্রকল্পের কাজ শেষ করতে সময় লেগেছে পাঁচ বছরেরও বেশি।

মাইনুদ্দিন/মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়