Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১ ||  ফাল্গুন ২২ ১৪২৭ ||  ২২ রজব ১৪৪২

স্বর্গ দেখতে চাইলে বাংলাদেশে যাও: বক্সার মোহাম্মদ আলী 

সেতারা কবির সেতু || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:১৪, ১৭ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১১:১৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২১
স্বর্গ দেখতে চাইলে বাংলাদেশে যাও: বক্সার মোহাম্মদ আলী 

‘আপনার সামনে কোনো পাহাড় নেই, যেটা আপনাকে থামিয়ে দিয়েছে। এটা আসলে আপনার জুতার মধ্যে থাকা নুড়ি পাথর।’ উক্তিটি সর্বকালের শ্রেষ্ঠ ক্রীড়াবিদ মোহাম্মদ আলীর। 

১৯৪২ সালের ১৭ জানুয়ারি অর্থাৎ আজকের এই দিনে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্টাকির লুইভিলাতে মোহাম্মদ আলী জন্মগ্রহণ করেন। জন্মগ্রহণের পর মোহাম্মদ আলীর নাম পিতা ক্যাসিয়াস মার্সেলাস ক্লে সিনিয়রের নামে ক্যাসিয়াস মার্সেলাস ক্লে জুনিয়র রাখা হয়। ১৯৬৪ সালে তিনি তৎকালীন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ‘অপরাজেয়’ সনি লিসটনকে পরাজিত করে হেভিওয়েট বক্সিংএ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের প্রথম মুকুট ধারণ করেন। সেই বছরই তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং পরপরই ‘নেশন অব ইসলাম’-এর সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা ঘোষণা করে বিশ্ব অঙ্গনে আবির্ভূত হন মোহাম্মদ আলী রূপে।

আলীর বক্সিংয়ে আসাটা ছিল অনেকটা নাটকীয়। ১২ বছর বয়সে আলী এক সাইকেল চোরকে ধরেন। ধরার সময় চোরকে এমনভাবে ঘুষি মারেন, যেটা দেখে লুইসভিল থানার পুলিশ অফিসার জো মার্টিন মুগ্ধ হয়ে যান। এই মার্টিনই আলীর প্রথম বক্সিং কোচ।
মোহাম্মদ আলী ক্লে ১৯৫৪ সালে প্রথম অপেশাদার বক্সিং প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। ছয়বার কেন্টাকি গোল্ডেন গ্লাভস, দুবার জাতীয় গোল্ডেন গ্লাভস উপাধি লাভ করেন তিনি । এরপর রোমে অনুষ্ঠিত ১৯৬০ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে বক্সিং প্রতিযোগিতায় লাইট হেভিওয়েট বিভাগে স্বর্ণপদক লাভ করেন।

১৯৬০ সালের ২৯ অক্টোবর পেশাদার বক্সিং প্রতিযোগিতায় আলী প্রথমবারের মতো অংশ নেন। ৬ রাউন্ডে পরাজিত করেন টানি হানসাকারকে। ১৯৬০ সাল থেকে ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত আলী ১৯-০ জয়ের রেকর্ড করেন। এর মধ্যে ১৫টি নকআউট জয়। আলী ১৯৬৬ সালে ক্লিভলান্ড উইলিয়ামসের সঙ্গে লড়াই করেন। এটি তার সেরা ম্যাচগুলোর একটি। এ ম্যাচে তিনি ৩ রাউন্ডে জেতেন।

১৯৬৭ সালে ভিয়েতনাম যুদ্ধে যাওয়ার ডাক এলে তিনি মানবতার পক্ষ থেকে যুদ্ধে যেতে অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, ভিয়েতনামের মানুষের সঙ্গে আমার কোনো ঝগড়া নেই। শুধু সাদা চামড়ার মানুষের আধিপত্য বজায় রাখার জন্য ১০ হাজার মাইল দূরের কোনো দেশে গিয়ে মানুষের ওপর অত্যাচার করা, খুন করা, বোমা ফেলা এই কাজে আমি যুক্ত হব না। পৃথিবীর বুকে এসব অবিচার বন্ধ হওয়া উচিত।’ভিয়েতনামের বিরুদ্ধে যুদ্ধে যেতে অস্বীকার করায় মোহাম্মদ আলীকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও দশ হাজার ডলার জরিমানা দেওয়া হয়। আলী আদালতে আপিল করেন। আইনি লড়াইয়ের চার বছর পর ১৯৭১ সালে সুপ্রিম কোর্ট আলীর পক্ষে রায় দেয়।

১৯৭৮ সালে বাংলাদেশ সফর করেন সর্বকালের সেরা এই ক্রীড়াবিদ। বিমানবন্দরে আলীকে স্বাগত জানাতে লাখ লাখ মানুষ উপস্থিত হয়েছিল। সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী ভেরোনিকা পরশে, মেয়ে লায়লা আলী, ভাই, বাবা ও মা। তখনো কুর্মিটোলায় বর্তমান বিমানবন্দর উদ্বোধন হয়নি। ঢাকার তেজগাঁও বিমান বন্দরে মোহাম্মদ আলীকে উষ্ণ অভ্যর্থনায় বুকে টেনে নিয়েছিল এ দেশের মানুষ। ওই সফরে আলীকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে নাগরিকত্বও দেওয়া হয়েছিল। তার হাতে সম্মানসূচক নাগরিকত্বের পাসপোর্ট ও প্রতীকী চাবি তুলে দেওয়া হয়েছিল। পল্টনের মোহাম্মদ আলী বক্সিং স্টেডিয়াম উদ্বোধন করেছিলেন আলী নিজেই। তার সম্মানেই স্টেডিয়ামটির নামকরণ।

ঢাকায় এসে তিনি মুগ্ধ হয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, এটা আমার প্রিয় শহর। যাওয়ার সময় তিনি বলে যান, আই লাভ ইউ বাংলাদেশ। প্রায় সপ্তাহ খানেক বাংলাদেশে ছিলেন মোহাম্মদ আলী। সুন্দরবন, রাঙামাটি, কক্সবাজার আর সিলেটের চা-বাগানের সৌন্দর্য মুগ্ধ করেছিল মার্কিন কিংবদন্তিকে। কক্সবাজারে এক বিঘা জমি উপহার দেওয়া হয় আলীকে। আখতার নেওয়াজ রুবেল নামে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের তৎকালীন এক নেতা ওই এক বিঘা জমি আলীকে উপহার দেন। 

মোহাম্মদ আলী বলেছিলেন, আমেরিকা থেকে বের করে দিলেও আমার আরেকটা বাড়ি থাকবে বাংলাদেশে। বিদায় বেলায় আবারও বাংলাদেশে আসার আকাঙ্ক্ষার কথা জানিয়েছিলেন বাংলাদেশে এসে এত খুশি হয়েছিলেন, ফিরে গিয়ে সবাইকে বলেছিলেন, ‘স্বর্গ দেখতে চাইলে বাংলাদেশে যাও।’

১৯৮০ সালে পারকিনসন্স রোগে আক্রান্ত হন এ মুষ্টিযোদ্ধা। ৩২ বছর পারকিনসন্স রোগে ভোগার পর ২০১৬ সালের ৩ জুন ৭৪ বছর বয়সে মারা যান। আলী নিজের ক্যারিয়ার বিষয়ে ‘দ্য গ্রেটেস্ট: মাই ওন স্টোরি এবং নিজের জীবনী ‘দ্য সোল অব অ্যা বাটারফ্লাই’সহ আরও কিছু বইও লিখে গেছেন। ‘আপনার সামনে কোনো পাহাড় নেই, যেটা আপনাকে থামিয়ে দিয়েছে। এটা আসলে আপনার জুতার মধ্যে থাকা নুড়ি পাথর।’ উক্তিটি সর্বকালের শ্রেষ্ঠ ক্রীড়াবিদ মোহাম্মদ আলীর। 

শতাব্দীর সেরা ক্রীড়াবিদ, যুদ্ধ ও আগ্রাসনবিরোধী মহান বীর, কবি, গায়ক, অভিনেতা—আপনাকে এই পৃথিবী কখনো ভুলবে না। আপনি অমর। অবিনশ্বর আপনার স্মৃতি! শুভ জন্মদিন শতাব্দীর সেরা ক্রীড়াবিদ মোহাম্মদ আলী।

লেখক: শিক্ষক ও কলামিস্ট।

ঢাকা/মাহি  

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়