ঢাকা     সোমবার   ২৮ নভেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৪ ১৪২৯ ||  ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

বাকি আর দুইদিন, শেষ মুহূর্তের ব্যস্ততায় মৃৎশিল্পীরা

কুমিল্লা সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:২৬, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২  
বাকি আর দুইদিন, শেষ মুহূর্তের ব্যস্ততায় মৃৎশিল্পীরা

রং দিয়ে ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে দেবী দুর্গাকে। কুমিল্লা নগরীর কালিবাড়ি মন্দির থেকে তোলা ছবি।

মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে আগামী শনিবার শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। ঢাকের আওয়াজ আর উলু ধ্বনিতে মুখরিত হতে শুরু করবে মণ্ডপগুলো। আর তাই শেষ মুহূর্তে দুর্গাদেবীসহ অন্য দেব দেবীসমূহে রঙ ছড়িয়ে দিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কুমিল্লার মৃৎশিল্পের দক্ষ কারিগররা। 

দুর্গোৎসব উপলক্ষে প্রতিমা সাজাতে কোনো কমতি রাখা হচ্ছে না মণ্ডপগুলোতে। আর তাই দেবী দুর্গার আগমনে দম ফেলানোর ফুসরত নেই  মৃৎশিল্পীদের।

কুমিল্লা জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ জানায়, এবছর জেলার ৭৯৬টি মণ্ডপে অনুষ্ঠিত হবে দুর্গাপূজা। এর মধ্যে কুমিল্লা মহানগরে রয়েছে ৯৪টি মণ্ডপ। যা গতবছরের তুলনা ১০টি বেড়েছে। এছাড়া ব্যতক্রর্মী আকর্ষণ হিসেবে নগরীর কান্দিরপাড় এলাকার কালিবাড়ি মন্দির পূজা মণ্ডপটি ভিন্নভাবে সজ্জিত করা হচ্ছে। 

কুমিল্লায়  জেলায় গত বছরের চেয়ে পূজা মণ্ডপের সংখ্যা বেড়েছে ৪টি। কুমিল্লা নগরীসহ জেলার ১৭ উপজেলা ৭৯৬টি মণ্ডপে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সরেজমিনে নগরীর শ্রী শ্রী কালিবাড়ি, ঠাকুরপাড়া, জগনাথ মন্দির, রাজগঞ্জ রোড আনন্দময় সেবাশ্রমসহ বিভিন্ন এলাকার মন্দির ঘুরে দেখা গেছে, চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। রং তুলির ছোঁয়ায় প্রতিমার আকর্ষণ বাড়ানোর পাশাপাশি দৃষ্টিনন্দন মণ্ডপ তৈরিতে অঘোষিত প্রতিযোগিতায় নেমেছে অনেকে।

নগরীর নানুদিঘী এলাকায় একটি মন্দিরে প্রতিমা তৈরির কাজ করা মৃৎশিল্পী রাজিব দাস বলেন, ‘গত বছরের তুলনায় এ বছর প্রতিমা তৈরির কাজ একটু বেশি। দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে এ মণ্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। প্রতিমা দৃষ্টিনন্দন করতে দিনরাত কাজ হচ্ছে। এখন রঙ তুলির আঁচড়ে সাজানো হচ্ছে।’

জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি তাপস বকশী বলেন, ‘আমরা সার্বিক নিরাপত্তা নিয়ে আশাবাদী। ঝুঁকিপূর্ণ মণ্ডপের তালিকা প্রশাসনকে দেওয়া হবে। আমরা নিজেরাও সচেষ্ট থাকবো যেন কোনো উচ্ছৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয়।‘

কুমিল্লা পুলিশ সুপার মো. আবদুল মান্নান বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ যেন উস্কানি কিংবা গুজব ছড়াতে না পারে সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। কুমিল্লার যে সম্প্রীতির ঐতিহ্য রয়েছে দুর্গা পূজায় আমরা সেটির প্রমাণ দিতে চাই। এছাড়া সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে থাকবে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা।’

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ কামরুল হাসান বলেন, ‘সমগ্র কুমিল্লা প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ। এবারে যে যে স্থানে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে সেইসব স্থানগুলোতে জেলা প্রসাশন ও পুলিশ প্রসাশনের সমন্বয়ে সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি মণ্ডপে সিসিটিভির ব্যবস্থার কাজও চলছে।’

রুবেল/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়