ঢাকা     বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২ ||  ভাদ্র ২ ১৪২৯ ||  ১৮ মহরম ১৪৪৪

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আবারও বাড়ল রেপো হার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫৬, ৩০ জুন ২০২২   আপডেট: ২২:৫৬, ৩০ জুন ২০২২
মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আবারও বাড়ল রেপো হার

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আবারও বাড়ানো হয়েছে রেপো হার। রেপো হার আগের চেয়ে দশমিক ৫০ শতাংশ বাড়িয়ে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে। এতে রেপো তথা কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর নেওয়া ধারের বিপরীতে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ সুদ দিতে হবে। রেপোর মাধ্যমে সাধারণত এক দিনের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে অর্থ ধার বা জমা রাখা হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) মুদ্রানীতি ঘোষণাকালে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর বলেছেন, ‘মুদ্রানীতির লক্ষ্য অর্জনে প্রণীত অর্থ ও ঋণ কর্মসূচির সঠিক বাস্তবায়নের নিমিত্তে বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য যেসব নীতিগত পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার মধ্যে একটি রেপোর হার বাড়ানো।’

তিনি বলেন, ‘চাহিদাজনিত মূল্যস্ফীতির চাপ প্রশমনের পাশাপাশি বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিকারী খাতগুলোতে ঋণ সরবরাহ নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে নীতি হার হিসেবে বিবেচিত রেপো হার বাড়িয়ে পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে।’

এর আগে গত সোমবার (২৭ জুন) মনিটারি পলিসি কমিটির (এমপিসি) ৫৫তম সভায় রেপোর হার বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) মুদ্রানীতি ঘোষণার পর মনিটারি পলিসি ডিপার্টমেন্ট থেকে সার্কুলার জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সার্কুলারে রিভার্স রেপো হার বিদ্যমান বার্ষিক ৪ শতাংশ অপরিবর্তিত থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের তীব্রতা হ্রাস এবং অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে বিভিন্ন দেশের সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃক সম্প্রসারণমূলক রাজস্ব ও মুদ্রানীতি গ্রহণের ফলে বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়িয়েছে। একই সঙ্গে বৈশ্বিক চাহিদা বৃদ্ধি, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের সরবরাহ ব্যবস্থায় বিঘ্ন, চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের দীর্ঘসূত্রতার কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে নতুন অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হওয়ায় আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলসহ সব পণ্যের (খাদ্য ও খাদ্য-বহির্ভূত) দামে ঊর্ধ্বগতি এবং অভ্যন্তরীণ অর্থনীতি ও বৈশ্বিক অর্থনীতির মুখ্য সূচকগুলোর পর্যালোচনার জন্য দেশের মুদ্রানীতি সুষ্ঠুভাবে প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গঠিত মনিটারি পলিসি কমিটি রেপো হার পুনঃনির্ধারণ করেছে। 

এর আগে গত ২৯ মে মনিটারি পলিসি কমিটির (এমপিসি) ৫৪তম সভায় রেপো হার বিদ্যমান ৪.৭৫ শতাংশ থেকে দশমিক ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি করে ৫ শতাংশ পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছিল। এক মাস পর মুদ্রানীতি ঘোষণার মাধ্যমে আবারও রেপো হার বাড়ানো হলো।

জাতীয় বাজেট বক্তৃতার তথ্য অনুযায়ী, ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য সরকারের কাঙ্ক্ষিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি ও মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রাসমূহ হলো যথাক্রমে ৭.৫ ও ৫.৬ শতাংশ। এ লক্ষ্য ঠিক রেখে নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো যখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়, তখন নির্দিষ্ট পরিমাণে সুদ নেওয়া হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো থেকে যে হারে সুদ নেয় তাকে রেপো হার বলে।

এনএফ/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়