ঢাকা     শুক্রবার   ১২ আগস্ট ২০২২ ||  শ্রাবণ ২৮ ১৪২৯ ||  ১২ মহরম ১৪৪৪

ফ্রিল্যান্সিং করে প্রান্তের এখন মাসে লাখ টাকা আয়

সোহান সিদ্দিকী || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩০, ৭ জুন ২০২২  
ফ্রিল্যান্সিং করে প্রান্তের এখন মাসে লাখ টাকা আয়

মাত্র ১৭ ডলার আয় দিয়ে শুরু করেছিলেন ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার। চার বছর পর এখন মাসে গড়ে তিনি আয় করেন ৩ হাজার ডলার।

বলছিলাম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় লোকপ্রশাসন বিভাগের ১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র তাসনিমুল হাসান প্রান্তের কথা। প্রান্তের বাড়ি যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার মোহনপুর গ্রামে। আব্দুল আজিজ ও আফরোজা স্বপ্না দম্পতির ছেলে তিনি। 

অনলাইনে ঘরে বসেই সব কাজ তার। কখনো বিদেশি গ্রাহকের কাছ থেকে কাজ বুঝে নিচ্ছেন। কখনও টিম মেম্বারদের সাথে ভার্চুয়াল মিটিং করছেন। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের তরুণদের শেখাচ্ছেন ফ্রিল্যান্সিং। তার দেখানো পথে হেঁটে এলাকার অনেক তরুণ স্বাবলম্বী হয়েছেন।  

প্রান্ত জানান, ২০১৮ সালে কৌতূহলে তিনি অনলাইনে আয়ের বিষয়ে আগ্রহী হন। বন্ধু শামীম রেজার হাত ধরেই এ জগতে পদচরণা। শুরুর অভিজ্ঞতা খুব ভালো ছিল না। প্রথমদিকে অনেক বিড়ম্বনার শিকার হয়েছেন। তবে দীর্ঘ ৪ বছর কঠোর পরিশ্রম করে এখন তিনি সফল ফ্রিল্যান্সার। 

প্রান্ত বলেন, জীবনে অনলাইনে প্রথম আয় ১৭ ডলার। যা প্রায় ১১০০ টাকার মতো। ফ্রিল্যান্সিং থেকেই আমার আয়ের পথ খুলেছে। গত বছর ‘প্রান্ত আইটি সলুশন’ নামে প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছি। এর মাধ্যমে লিড জেনারেশন, ডাটা এন্ট্রি, অ্যামাজন ড্রপ সিপিং, ফেসবুক অ্যাডভার্টাইজিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সার্ভিস প্রদান করছি। এখন মাসে আয় লাখ টাকা পার হয়ে যায়।

করোনাকালে পৃথিবী যখন থমকে গিয়েছে তখন আমি প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করেছে নিজের সঙ্গে। প্রতিদিন নিজেকে গড়ে তুলেছি। পরিশ্রম করেই নিজেকে দক্ষ করে তুলেছি। একটা কথা আছে পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি। এখন কথাটি সত্য মনে হয়। বলেন এই তরুণ। 

কর্মহীন বেকারদের উদ্দেশ্যে প্রান্ত বলেন, বর্তমানে চাকরি পাওয়া খুবই কঠিন। হাজার হাজার বেকার ঘুরে বেড়াচ্ছেন। অনলাইনে প্রচুর কাজ রয়েছে। এখান থেকে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব। তাই চাকরির পেছনে না ঘুরে সঠিক পথে পরিশ্রম করে কাজ করে স্বাবলম্বী হওয়া যায়।

যারা কাজ শিখতে চান তাদের উদ্দেশ্যে প্রান্ত বলেন, প্রথমে শেখার মানসিকতা থাকতে হবে। ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। শুধু ক্লিক করে টাকা ইনকাম করা যায় না। এমন একটা কাজ শিখতে হবে যাতে কোম্পানি বন্ধ হতে যেতে পারে কিন্তু কাজের চাহিদা বাড়তে থাকবে। আমার ক্ষেত্রে দীর্ঘ রাত জাগা পরিশ্রমের পর যখন আয়ের পথ খুঁজে পেলাম এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। 

/তারা/ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়